রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
সংবাদ শিরোনাম
১৮তম শিক্ষক নিবন্ধন: প্রিলিতে পাস করেও লিখিত পরীক্ষা দেননি ১ লাখ ৩১ হাজার প্রার্থী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা শান্তিগঞ্জে অবৈধ রিংজাল জাল ও চায়না দুয়ারী পুড়িয়ে ধ্বংস শান্তিগঞ্জের পাথারিয়া এফআইভিডিবি আরইসিসি প্রকল্পের সহযোগিতায় ওর্য়াড সভা অনুষ্ঠিত  শান্তিগঞ্জের পূর্ব পাগলা ইউনিয়নে এফআইভিডিবি আরইসিসি প্রকল্পের সহযোগিতায় ওয়ার্ড সভা ব্রিটেনের জাতীয় নির্বাচনে আবারও এমপি হলেন জগন্নাথপুরের মেয়ে আফসানা ব্রাজিলকে টাইব্রেকারে হারিয়ে সেমিতে উরুগুয়ে ইকুয়েডরকে টাইব্রেকারে হারিয়ে সেমিফাইনালে আর্জেন্টিনা কাল থেকে বৃষ্টি কমতে পারে ন্যায্য পেনাল্টি দেওয়া হয়নি ব্রাজিলকে, কনমেবলের ভুল স্বীকার

বন্যার ধকল নিয়েই বাড়ি ফিরছেন বানভাসি মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০২৪
  • ২৯ বার

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্কঃ ভাঙা টিনের চাল। পুরোনো টিনের বেড়ায় ফাঁকফোকর। মাটির মেঝেতে খেলা করছে কেঁচো। এখানেই স্বামী-স্ত্রী ও আর ৫ সন্তানকে নিয়ে বাস দরিদ্র পরিবারটির। এবারের বন্যায় সুনামগঞ্জ শহরের ৯নং ওয়ার্ডের ওয়েজখালী গ্রামের রাহেলা বিবির ঘরটিও তছনছ করে গেছে। কোনোমতে বৃদ্ধ স্বামীকে নিয়ে আনসার ভিডিপি ভবনে আশ্রয় নিয়েছিলেন। এখন পানি নামার পর এসে দেখেন হাওরের আফাল (উত্তাল ঢেউ) ভেঙে নিচ্ছে ভিটা। মেঝের মাটি ঢেউয়ের আঘাতে সরে যাচ্ছে। এই অবস্থা শুধু এই নারীরই নয়; একই পাড়ার আজাদ মিয়া, জাহেদা বেগম, তাজ আলীসহ অন্তত ২০ হতদরিদ্র পরিবারের। হাওরের মাঝখানে তৈরি বসতঘর সংস্কার ও রক্ষা নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছে তারা।

পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের এই বর্ধিত অংশ হাওর ভরাট করে গড়ে উঠেছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে বেড়েই চলেছে হাওর ভরাট করে বসতবাড়ির নির্মাণ প্রতিযোগিতা। এই অবস্থা হাসননগরের কেজাউড়া, শান্তিবাগ, পশ্চিম ও দক্ষিণ হাজীপাড়া, পূর্ব ও দক্ষিণ নতুন পাড়া, কালিপুর, পূর্ব মল্লিকপুর ও পূর্ব ও দক্ষিণ ওয়েজখালী এলাকার। বন্যা হলে এসব এলাকার মানুষের দুর্ভোগ দীর্ঘ হয়। পানি আটকে থাকে বিভিন্ন অংশে। হাওরের লেভেলের ভিটার কারণে জলাবদ্ধতা এখন সব এলাকায় লেগেই থাকে। পৌরশহরের নাগরিক হলেও তারা সুবিধা পায় না। রাস্তাঘাট, পয়োনিষ্কাশন, বিশুদ্ধ পানি, বাথরুমের স্বাস্থ্যসম্মত ব্যবস্থা নেই।

সরেজমিন এই চিত্রই সোমবার (২৪ জুন) দেখা গেছে। ওই এলাকায় গিয়ে দেখা যায় হাতে বাওয়া নৌকায় এসে আশ্রয়কেন্দ্র থেকে জিনিসপত্র নিয়ে বাড়ির দিকে ছুটছে বন্যার্তরা। তাদের সঙ্গে কাঁথা-বালিশ, বাসন-কোসন ও শিশুরা রয়েছে। ক্লান্ত দেহে বন্যার ধকল নিয়েই বাড়িতে ছুটছে তারা।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. রেজাউল করিম বলেন, বন্যায় বিভিন্ন ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। প্রতিটি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের প্রকৃত ক্ষয়ক্ষতির তালিকা তৈরি করে পাঠানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এখন বন্যার্তদের জন্য ত্রাণসহায়তা দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, বসতবাড়ি সংস্কারে বরাদ্দ পাওয়া গেলে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের দেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর