মঙ্গলবার, ২৮ Jun ২০২২, ০৬:১৬ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
মহান মে দিবস ও বর্তমান বাংলাদেশ

মহান মে দিবস ও বর্তমান বাংলাদেশ

মহান মে দিবসের রক্তাক্ত ইতিহাস উনিশ শতকের অন্যতম ঐতিহাসিক ঘটনা। ঘটনাটি আমেরিকার শিকাগো শহরের কিন্তু পর্যায়ক্রমে তার প্রতিক্রিয়া সারা বিশ্বব্যাপী প্রসারিত। ১৮৮৬ সালে শিকাগো শহরে প্রায় ৪ লক্ষ শ্রমিক বিভিন্ন কলকারখানায় কাজ করত। ‘হে মার্কেটে’র শ্রমিকরা কাজের সময় ১৬ ঘণ্টার পরিবর্তে ৮ ঘণ্টা আর উপযুক্ত মজুরি আদায়ের দাবি নিয়ে আন্দোলনে সম্পৃক্ত হয়। ১ মে থেকেই তারা তাদের সক্রিয় আন্দোলকে বাস্তবে রূপদান করা শুরু করে। শ্রমিকদের একঘেয়ে জীবন ও কল কারখানার দুর্বিষহ পরিবেশে প্রতিদিন ১৬ ঘণ্টা কাজ করা ছিল অত্যাচারের সামিল।

সপ্তাহজুড়ে কাজ করে শ্রমজীবীদের স্বাস্থ্য ভেঙে যায়। অতি পরিশ্রমে শিশু ও নারী শ্রমিকরা দুর্বল ও রোগাক্রান্ত হয়ে পড়ে। স্বল্প বেতনের বিনিময়ে তখনকার মালিকশ্রেণি তাদের ব্যক্তিগত জীবন ও অবসরের সময়টুকুও কেড়ে নিয়েছিল। দিনের পর দিন পরিশ্রম করে ভারবাহী পশুতে পরিণত হয়েছিল তারা। এজন্য দৈনিক ৮ ঘণ্টা কাজের অধিকার স্বীকৃতি দিতে হবে- এই স্লোগান নিয়ে লক্ষাধিক মেহনতি মানুষ একত্রিত হয়। শ্রমিকরা সংগঠিত হয়ে ১ মে থেকে কাজ করা বন্ধ করে দেয় এবং ঘোষণা করে যে তাদের দাবি মেনে না নেয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি অব্যাহত থাকবে। বহু সংখ্যক শ্রমিক একসাথে কর্মবিরতিতে অংশ নেওয়ায় মালিক শ্রেণি ভীত হয়ে পড়ে। ওই মালিক শ্রেণি শ্রমিক ও কর্মজীবীদের অতিরিক্ত কাজ করিয়ে বেশি মুনাফা লাভের চেষ্টা করত। শ্রমিকদের স্বাস্থ্য বা নিরাপত্তার কথা ভাবত না।

৩ মে পুলিশের সাথে আন্দোলনরত শ্রমিকদের সংঘর্ষ হয় এবং ৬ জন শ্রমিক এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়। ৪ মে ওই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে শ্রমিক-জনতা একটি শান্তিপূর্ণ মিছিল বের করে। মিছিল শেষে শ্রমিক নেতা ফিয়েলদেন শেষ বক্তব্য প্রদান করছিলেন। তখনও সে সময় পরিবেশ শান্ত ছিল। হঠাৎ প্রশাসনের নির্দেশে একদল পুলিশ এসে সমাবেশ ভেঙে দিতে বলে। তখন ফিয়েলদেন ও অন্যান্যদের সঙ্গে পুলিশের তর্ক-বিতর্ক চলার সময় মালিকশ্রেণির ইন্ধনে একটি বোমা বিস্ফোরিত হয়। তাতে পুলিশসহ ৪ জন শ্রমিক মারা যায়। এ ঘটনার পর পুলিশ ব্যাপক ধরপাকড় শুরু করে এবং মারমুখী অনেক নেতাকে গ্রেফতার করে।

সেদিনের আন্দোলন সংঘটিত করা, জমায়েতে শ্রমিকদের নিয়ে আসা এবং পুলিশের নির্দেশ উপেক্ষা করে প্রতিবাদী সভার সমাবেশ করায় শ্রমিক নেতাদের গ্রেফতার করে নিপীড়ন চালানো হয়। বোমায় পুলিশ নিহত হওয়া এবং ধর্মঘট সংঘটিত করার দায়ে অগাস্ট স্পাইস নামে এক শ্রমিক নেতাকে ফাঁসির আদেশ দেয়া হয়। তার আগে জেলে একজন শ্রমিক আত্মহত্যা করে। ফাঁসির মঞ্চে আরোহিত ও নিপীড়নের শিকাররা বলে গিয়েছিল তাদের সেই নীরব প্রতিবাদই ভবিষ্যতে সারা বিশ্বে ধ্বনিত হবে। যে কণ্ঠস্বর সেদিন চাপা দেবার চেষ্টা করা হয়েছিল তা একদিন খেটে খাওয়া মানুষের পক্ষে কথা বলবে। ইতিহাসের রেকর্ড থেকে দেখা যায়, ১৮৮৬ সালের মে মাসে শ্রমিক হত্যাকাণ্ড এবং তার প্রতিবাদে সমাবেশ ও সমাবেশে বোমা হামলা প্রভৃতি ঘটনার বিচার ও বিচারের রায়ের বিরুদ্ধে সারা পৃথিবীতে পরবর্তী কয়েক দশক নিন্দার তপ্ত হাওয়া বয়ে যায়। ফলে ১ মে দিনটিকে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি দেয়া হয়।

আন্দোলকারীরা হত্যা-নির্যাতনের পরও তাদের দাবি নিয়ে প্রচার-প্রচারণা অব্যাহত রেখেছিল। ১৮৮৯ সালে ফরাসি বিপ্লবের শতবার্ষিকীতে প্যারিসে দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে ১৮৯০ সাল থেকে শিকাগো প্রতিবাদের বার্ষিকী আন্তর্জাতিকভাবে বিভিন্ন দেশে পালনের প্রস্তাব করেন রেমন্ড লাভিনে। ১৮৯১ সালের আন্তর্জাতিক দ্বিতীয় কংগ্রেস এই প্রস্তাব আনুষ্ঠানিকভাবে গৃহীত হয়। ১ মে শ্রমিক দিবস হিসেবে ঘোষিত হবার পর থেকে অনেক দেশে দিনটি শ্রমিক শ্রেণি কর্তৃক উদযাপিত হয়ে আসছে। রাশিয়ায় এবং পরবর্তীকালে আরও কয়েকটি দেশে সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব সংঘটিত হবার পর মে দিবস এক বিশেষ তাৎপর্য অর্জন করে। জাতিসংঘের একটি গুরুত্বপূর্ণ সহায়ক শাখা হিসেবে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে শ্রমিকদের অধিকারসমূহ স্বীকৃতি লাভ করে। আইএলও কতগুলি নিয়মকানুন প্রতিষ্ঠা করে এবং সকল দেশে শিল্পমালিক ও শ্রমিকদের তা মেনে চলার আহবান জানায় এবং এভাবে শ্রমিক ও মালিকদের অধিকার সংরক্ষণ করা হয়।

বাংলাদেশ আইএলও কর্তৃক প্রণীত নীতিমালায় স্বাক্ষরকারী একটি দেশ। ১৯১৫ সালে প্রথম দৈনিক ৮ ঘণ্টা কাজের নিয়ম জারি করা হয় উরুগুয়ে। পরে সারা বিশ্বে শ্রমিকদের ৮ ঘণ্টা কাজের নিয়ম চালু হয়। মে দিবসের লড়াইয়ে আট ঘণ্টার শ্রমদিবস, মজুরি বৃদ্ধি, কাজের উন্নততর পরিবেশ ইত্যাদি দাবি ছিল- তা এখন উন্নত বিশ্বে পুরোপুরি অনুসরণ করা হচ্ছে।

২.
শ্রমিকের স্বাধীনতায় একদা বিশ্বাসী রাশিয়ার যুদ্ধংদেহি আচরণে বিশ্বের তাবৎ দেশ আজ আতঙ্ক ও দিশেহারা গ্রহের বাসিন্দা। পৃথিবীর যে শতাধিক রাষ্ট্র খুব গুরুত্বের সঙ্গে মহান মে দিবস পালন করে তারাও আজ শঙ্কিত। আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত এই দিনটিকে লেবার ডে বা ওয়ার্কার্স ডে হিসেবেও আখ্যায়িত করা হয়। অসংখ্য দেশে এই দিনটিতে ছুটি থাকে। মে দিবস শ্রমিকদের দাবি আদায় করার সংগ্রামে প্রাণ বিসর্জনের স্মৃতিকে সম্মান দেখানোর দিন। এদিন একজন শ্রমিক উন্নততর জীবনের স্বপ্ন দেখে। কারণ মে দিবস সমগ্র বিশ্বকে বৈষম্য ও শোষণমুক্ত একটি সমাজ উপহার দিয়েছে। কিন্তু যুদ্ধ ও রাজনৈতিক অস্থিরতা শ্রমজীবী মানুষের জন্য অভিশাপ বয়ে এনেছে। যুদ্ধের অভিঘাত থেকে রক্ষা করার জন্য উন্নত দেশগুলোতে কল্যাণকর ব্যবস্থায় সহযোগিতা করা সম্ভব। পক্ষান্তরে উন্নয়নশীল দেশগুলোকে সেই তুলনায় মেহনতি মানুষকে বাঁচিয়ে রাখতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

যেমন, বাংলাদেশের ৫০ লাখ গার্মেন্টস শ্রমিক শহরকেন্দ্রিক (যদিও এদেশের শ্রমিকদের মাত্র ১৫ শতাংশ শহুরে-শ্রমিক হিসেবে কাজ করে), এছাড়া আছে দিন এনে দিন খাওয়া শ্রমজীবী মানুষ এবং কৃষিখাতে জড়িত বিপুল দরিদ্র জনগোষ্ঠী। এসব স্বল্প আয়ের মানুষকে সংকট থেকে রক্ষা করা যেমন জরুরি তেমনি দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখার জন্য তাদের কাজে লাগানোও প্রয়োজন। তাছাড়া চিকিৎসা সেবাখাতে শ্রমজীবী নারী-পুরুষের চাহিদা করোনা সংকটে অনেক বেশি ছিল। চিকিৎসক-নার্সদের পাশাপাশি হাসপাতালের ওয়ার্ডবয়, আয়া, ক্লিনার করোনা মোকাবেলায় ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেছে। অর্থাৎ সংকটময় মুহূর্তে চিকিৎসাসেবায় শ্রমজীবী মানুষের গুরুত্ব ছিল অপরিসীম। এদিক থেকে এবারের মে দিবস আলাদা তাৎপর্য বহন করছে। এজন্য ২০২২ সালেরও স্লোগান হওয়া দরকার- ‘বাঁচলে শ্রমিক বাঁচবে দেশ’।

৩.
বাংলাদেশের শ্রম আইনে আছে- সপ্তাহে ছয়দিন শ্রমিকরা কাজ করবে, প্রতিদিন আট ঘণ্টার বেশি নয়। দুই ঘণ্টা ওভারটাইম কাজ করানো যেতে পারে, কিন্তু কোনোক্রমেই তার বেশি নয়, অর্থাৎ কোনো অবস্থাতেই ১০ ঘণ্টার অতিরিক্ত একজন শ্রমিকের কর্মঘণ্টা হতে পারবে না। এই অতিরিক্ত দুই ঘণ্টার জন্য শ্রমিককে দ্বিগুণ মজুরি দিতে হবে। কোনো অবস্থাতেই মিল কর্তৃপক্ষ জোর করে অর্থাৎ শ্রমিকের সম্মতি ব্যতিরেকে ওভারটাইম কাজ করাতে পারবে না। শ্রমিককে জোর করে ১৬/১৮ ঘণ্টা কাজ করানো কিংবা ওভারটাইমে দ্বিগুণ মজুরি না দেওয়া অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়। শ্রম আইনে আছে, কারখানার পরিবেশ স্বাস্থ্যকর ও মানবিক হতে হবে। দৈহিক নির্যাতন, গালিগালাজ ও যৌন নিপীড়নের ঘটনা যেন সেখানে না থাকে। শ্রম আইন লঙ্ঘন করলে শাস্তির বিধানও রয়েছে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে কৃষি শ্রমিকের সংখ্যা ২ কোটি ৩৩ লাখ, হোটেল রেস্তোরাঁ ও দোকানে নিয়োজিত শ্রমিকের সংখ্যা ৮২ লাখ, কারখানা শ্রমিকের সংখ্যা ৭৫ লাখ। এর মধ্যে ৫০ লাখ শ্রমিক পোশাক কারখানায় কাজ করে। দেশের ৬৪ জেলার মধ্যে বেশ কয়েকটি জেলায় শিশু শ্রমিকদেরও দেখা মেলে। এছাড়া সড়ক ও জনপথ, নির্মাণ, বস্ত্র (সূতা তৈরি ও বুনন), ট্যানারি, জাহাজ ভাঙা, পোল্ট্রি ও চিংড়ি (প্রক্রিয়াজাতকরণ), চাতাল (ধান কল), কৃষি ও মৎস্যখাতে শ্রমিক আছে। সেবা খাতে দোকান-শ্রমিক এবং যানবাহন মেরামত কারখানার শ্রমিকরাও গুরুত্বপূর্ণ। নির্মাণখাতের পাথর উত্তোলন ও পাথর ভাঙার এবং ইট ভাটার শ্রমিক ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত।

এদেশে মানবেতর পরিবেশে বহু নারীশ্রমিক কাজ করে। মাটি কাটা ও ইট ভাঙার কাজে, চাতাল ও মাছ প্রক্রিয়াকরণ শিল্পে এসব নারীদের দেখা যায়। আবার প্রবাসী নারী শ্রমিকদের এদেশের রেমিট্যান্সে অবদানও স্বীকৃত। বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি নারী শ্রমিক গেছে ১০টি দেশে; প্রায় ৯ লাখ নারী শ্রমিক আছে সেসব দেশে। জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো বা বিএমইটি তথ্য মতে ১৯৯১ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে বিদেশে যাওয়া নারী শ্রমিকের সংখ্যা হলো- সৌদি আরব- তিন লাখ ৩২ হাজার ২০৪ জন, জর্ডান- এক লাখ ৫৫ হাজার ৪১১, সংযুক্ত আরব আমিরাত- এক লাখ ৩০ হাজার ৫৭১, লেবানন- এক লাখ ছয় হাজার ৮৪০, ওমান- ৮৬ হাজার ১৩২, কাতার- ৩২ হাজার ২৫৯, মরিশাস- ১৭ হাজার ৯২৩, কুয়েত- নয় হাজার ১৯, মালয়েশিয়া- ছয় হাজার ৬৩৮ এবং বাহরাইনে চার হাজার ২৯০ জন নারী শ্রমিক। বাংলাদেশে সব মিলে ৬ কোটি শ্রমিক আছে। এসব শ্রমিকদের প্রধান সমস্যা নিপীড়ন, নিখোঁজ ও দুর্ঘটনায় মৃত্যু। সমুদ্র মৎস্যখাতে শ্রমজীবী মানুষ সবচেয়ে বেশি নিখোঁজ হয়।

দুর্ঘটনার মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনা, বিদ্যুৎস্পৃষ্ট, ভবন ধসের ঘটনা, উপর থেকে পড়ে যাওয়া, বজ্রপাত, অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণের ঘটনায় শ্রমিকের মৃত্যু হয়ে থাকে প্রতিবছর। অন্যদিকে তৈরি পোশাক খাতে ২০০৯ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত ১১ বছরে প্রায় দেড় হাজার শ্রমিক নিহত হয়েছে। তবে ২০১৮ থেকে শ্রমিকদের অপমৃত্যু বহুলাংশে কমে এসেছে। লেখাবাহুল্য, মৃত শ্রমিকদের পরিবার ও সন্তানরা অসহায় হয়ে পড়ে, তাদের দেখার কেউ থাকে না। তারা বেঁচে থাকার জন্য ন্যূনতম চাহিদা মেটাতে পারে না।

৪.
গত ১৩ বছরে বাংলাদেশের শ্রম পরিস্থিতি সন্তোষজনক অবস্থায় উত্তীর্ণ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকারের চেষ্টায় শিশু শ্রম নিষিদ্ধ ও শ্রম আইন বাস্তবায়ন থেকে শুরু করে পোশাক শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধি এবং কৃষি শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনা পরিশোধ করার ব্যবস্থা উল্লেখযোগ্য কাজ। জাতিসংঘের অঙ্গসংগঠন আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) ইতোমধ্যে জেনেছে যে, বাংলাদেশ শ্রম আইন ও ইপিজেড আইন সামঞ্জস্যপূর্ণ, এখানে সংগঠন করতে শ্রমিকদের বাধা দেওয়া হয় না, দাবি আদায়ের ক্ষেত্রে শ্রমিকদের ছাঁটাই ও পুলিশি হয়রানি এখানে অনুপস্থিত। উপরন্তু শ্রমমান পরিদর্শনে (ইন্সপেকশন) যথার্থ বিধান রয়েছে।

মূলত অ্যাকর্ড, অ্যালায়েন্সসহ অন্যান্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের কমপ্লায়েন্স নিশ্চিতকল্পে বিভিন্ন উদ্যোগের কারণে এটি সম্ভব হয়েছে। অর্থাৎ শ্রমমান এবং শ্রমিকদের সুরক্ষায় সচেতনতা বেড়েছে। কিন্তু সেই তুলনায় সংকটের সমাধান হচ্ছে ধীর গতিতে। এজন্য সব খাতের দিকে নজর দেওয়া দরকার। অবশ্য ২০১৩ সালে রানা প্লাজা দুর্ঘটনার পর শেখ হাসিনা সরকারের উদ্যোগে পোশাক কারখানাগুলোর পরিবেশে যে পরিবর্তন এসেছে তা বেশ স্পষ্ট সেখানে কর্মরত শ্রমিকের কাছেও। আগে গার্মেন্টসগুলোতে দুর্যোগ মোকাবেলায় ট্রেনিং হতো না। এখন বেশ কিছু কারখানায় বছরে একাধিক ট্রেনিং হচ্ছে। আগুন লাগলে কী করতে হবে, কখনোবা অন্যান্য করণীয় সম্পর্কে বিভিন্ন সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করছে মালিক পক্ষ। বেতন-বোনাস নিয়েও আগের মতো ‘টালবাহানা’ নেই।

শ্রমিকদের কোনো সমস্যা হলে এখন ম্যানেজমেন্টের কাছে অভিযোগও করা যায়। আসলে বিদেশি ক্রেতাদের দুটি জোট অ্যাকর্ড ও এলায়েন্সের চাহিদা মেনে ফায়ার সেফটি, ইলেক্ট্র্রিক্যাল সেফটি, বিল্ডিং সেফটি সবকিছু নতুন করে আধুনিক পদ্ধতি মেনে পোশাক-কারখানা সচল রাখতে হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ এবং অন্যান্যদের রচনার সূত্রে দেখা যায়, ১৯৭১ এর আগে পাকিস্তান আমলে পাটকল, বস্ত্রকল ও চিনিকলে শ্রমিকদের পদচারণায় মুখরিত ছিল। এসব বড় বড় শিল্প কারখানা স্বাধীনতার পরে লাভের মুখ না দেখতে পারলেও এদেশে ছোট ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ব্যাপকহারে। গার্মেন্টেসের পাশে এই নতুন কলকারখানার শ্রমিকরা শ্রমবাজারে নতুন। আর সব মিলে নারীশ্রমিকের সংখ্যা এখন অনেক। কিন্তু পোশাক কারখানাকে ঘিরে কোনো শ্রমিক কলোনি গড়ে উঠে নি। যেমন জুট মিল কিংবা টেক্সটাইল মিলকে ঘিরে অতীতে কলোনি থাকত। শ্রমিকরা এখন বাস করে শহরের বস্তিতে, কারখানা সংলগ্ন অনুন্নত জায়গায়। অথচ একসময় পাট ও বস্ত্র শিল্পের শ্রমিকদের জন্য থাকার কলোনি, চিকিৎসা ভাতা ইত্যাদির ব্যবস্থা ছিল। তবে শ্রমিকের ঘর ভাড়া, ওষুধ ও চিকিৎসা খরচ, নূন্যপক্ষে চারজনের এক পরিবারের জন্য মাসিক ৮ হাজার টাকা মজুরি নির্ধারণ করা হয়েছে শেখ হাসিনা সরকারের আমলে।

৫.

১ মে অন্যায়ের বিরুদ্ধে, শোষণের বিরুদ্ধে মেহনতি মানুষের জেগে ওঠার দিন। অবিচার ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে দাবি আদায়ের লড়াইয়ের দিন। এটি ঐক্যের দিনও- সকল শ্রমজীবী মানুষ তাদের ভ্রাতৃত্বের বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করার মাধ্যমে উন্নয়নমুখী কাজের জয়যাত্রাকে এগিয়ে নেবার শপথ ঘোষণার দিন এটি। ১ মে থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে ভবিষ্যতে সকল ন্যায্য দাবি আদায়ের মাধ্যমে শ্রমজীবী ও মেহনতি মানুষ তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হবে বলে আমার বিশ্বাস। করোনাশূন্য-বিশ্বে শিল্প-কারখানার কর্মপরিবেশ ও স্বাস্থ্য সুরক্ষার নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা বজায় থাকলে কৃষি ও রপ্তানি খাতে শ্রমজীবী মানুষের অবদান হবে স্মরণীয়।

লেখক : ড. মিল্টন বিশ্বাস – কবি, কলামিস্ট, সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম, নির্বাহী কমিটির সদস্য, সম্প্রীতি বাংলাদেশ এবং অধ্যাপক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।
email-drmiltonbiswas1971@gmail.com

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com