শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
আমার দেখা মুক্তিযুদ্ধ- (পর্ব-০২)

আমার দেখা মুক্তিযুদ্ধ- (পর্ব-০২)

১৯৭১ সাল।জুন মাস।ইতিমধ্যে পাকিস্তানি দখলদার বাহিনী সাড়া দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।এদেশীয় রাজাকার,আল- বদরদের সহযোগিতায় নৃশংস হত্যা যজ্ঞ চালিয়েছে।চারিদিক থেকে পাওয়া শুধু জ্বালাও পোড়াও, খুন,ধর্ষণের এর কথা বার্তা মানুষের মূখে মূখে।তখন খবরা খবর জানার একমাত্র মাধ্যম ছিল রেডিও। যে বাড়িতে রেডিও ছিল সেখানে যুদ্ধের খবরাখবর জানার জন্য মানুষের ভীড় লেগে থাকত।আমাদের বাড়িতে পাড়ার মানুষের সমাগম বেশি থাকতো। তার দু’টি কারণ। প্রথমতঃ আমাদের গ্রামে উত্তর দিক থেকে হানাদার বাহিনীর আক্রমণের সম্ভাবনা ছিল।আমাদের বাড়িটি গ্রামের একেবারে দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত। আক্রান্ত হলে পালিয়ে যাওয়া সহজ ছিলো। ঘাটে সব সময় বাড়ির নৌকা গুলো প্রস্তুত থাকতো। দ্বিতীয়তঃ আমার চাচার একটি রেডিও ছিলো।যুদ্ধের খবরাখবর জানা যেতো।

আমাদের প্রিয় ডুংরিয়া গ্রামটি পানিতে থৈ থৈ করছে। গ্রামের মধ্যকার রাস্তাগুলো (ঘোপাট) অথৈ জলে নিমগ্ন। পুরো গ্রামটি যেনো জলে ভাসা পদ্ম। তখনকার দিনে বর্ষায় চলাচলের প্রধান বাহনই ছিল নৌকা। মাঝে মধ্যে কাছাকাছি দুই বাড়ির মধ্যে বাঁশের সাঁকো। বর্তমানে গ্রামে চলাচলের জন্য নৌকার প্রয়োজন হয় না। গ্রামে অসংখ্য পাকা রাস্তা জালের মতো বিস্তৃত। গ্রামের দক্ষিণ পার্শ্বে ধান ক্ষেত। যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে স্কুল বন্ধ। আমার মাছ ধরার খুব নেশা ছিল । আমাদের ঘরে বর্ষা কালীল সময়ের জন্য একটি কাজের ছেলে ছিল। নাম তোঁতা। আমার থেকে ৩/৪বছরের বড়। মধ্যদুপুরে ছোট নৌকা করে আমি তোঁতাকে নিয়ে বাড়ি থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে জাল দিয়ে মাছ ধরতে যাই। আমরা মাছ ধরায় ব্যস্ত ছিলাম। হঠাৎ গ্রামের উত্তর দিক থেকে বিকট শব্দে পর পর ৫/৬ টি গুলির শব্দ হলো। কিছুক্ষণের মধ্যেই আগুনের লেলিহান শিখা দেখা গেলো । বুঝতে বাকী নেই , পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী গ্রামে হামলা করেছে। আমাদের বাড়ি থেকে অসংখ্য মানুষ ধানক্ষেতে পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়ছেন।নৌকা বুঝাই লোকজন গ্রাম থেকে পালাচ্ছেন। গুলির শব্দ শুনার সাথে সাথে আমরা জাল রেখেই বাড়ির দিকে যাত্রা করি। কে একজন বাড়ি থেকে চেঁচিয়ে বলছেন, বাড়িতে আসিস না,দক্ষিণ দিকে যা। আমরা তাই করলাম। কিছুক্ষণের মধ্যেই সাতঁরে আসা লোকজনে আমাদের নৌকাটি পূর্ণ হয়ে গেলো। আমাদের গ্রামের ৩/৪কিলোমিটার দক্ষিণে বড়মোহা গ্রাম। আমরা সেদিকেই যাচ্ছি। কিছু দূর যাওয়ার পরই আমাদের বাড়ির লোকজনের দেখা পাই। আমরা তাদের অনুসরণ করি। অল্প কিছু সময় পরেই আমরা ৪০/৪৫ জন লোকের বহর বড়মোহার একটি বাড়িতে আশ্রয় নেই। বাড়ির লোকজন আমাদের সমাদরে আন্তরিকতায় মোটেই কার্পণ্য করেননি। বিকেলের দিকে খবর পাওয়া গেলো হানাদার বাহিনী ৩/৪টি বাড়ি ভস্মীভূত করে গ্রাম ছেড়েছে। হতাহতের সংখ্যা মনে নেই। আমাদের গ্রামে মুক্তি বাহিনী অবস্থান করছে -এই সংবাদে পার্শ্ববর্তী গ্রাম উজানী গাঁওয়ের ছত্তার দালালের বাড়িতে অবস্থিত ক্যাম্পে অবস্থানরত হানাদাররা আমাদের গ্রামে হামলা চালায়। সৌভাগ্যবশতঃঐদিন আমাদের গ্রামে মুক্তি বাহিনী ছিল না। আমরা সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরে আসি। বাড়িতে থাকা আর নিরাপদ নয় ভেবে সাব্যস্থ হয় পরদিনই আমাদের পরিবারের সবাইকে আমার নানা বাড়ি দক্ষিণ ছাতকের নিভৃত পল্লী কেওয়ালী পাড়া পাঠিয়ে দেয়া হবে।যথারীতি পরদিন সকালে আমরা যৌথ পরিবারের সবাই নানা বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হই। শুধু দাদীকে অনেক পীড়া পীড়ির পরও নেওয়া গেলো না। তিনি তাঁর দুই ছেলেকে রেখে বাড়ি থেকে অন্য কোথাও যাবেন না।
নানা বাড়ি ২০/২২দিন খুব আনন্দ উচ্ছ্বাসের মধ্যেদিয়ে কাটলো। তার পর বাড়ির জন্য মন ছট ফট করতে লাগলো। ইতিমধ্যে বাবা এক দিন আমাদের দেখতে গেলেন । আমি বাড়ি ফিরে যাওয়ার জন্য বায়না ধরলাম। তিনি কোন মতেই রাজি হচ্ছেন না। আমিও নাছোড় বান্দা। শেষ পর্যন্ত এক সপ্তাহের জন্য নিয়ে যেতে রাজি হলেন। পরের দিন মহানন্দে বাড়ির দিকে রওয়ানা হলাম। প্রায় ৩ ঘন্টার রাস্তা। গ্রামটি অল্প দৃশ্যমান হতেই নৌকার সামনের মাঝি আমাকে জানালো। ছৈয়ের ভিতর থেকে বেরিয়ে এসে বহুদিন পর গ্রামটি দেখতে পেয়ে আনন্দে মন ভরে গেলো। মনে হলো পানির গভীর থেকে ভেসে উঠে গ্রামটি যেনো আমাদের উঁকি দিয়ে দেখছে। আস্তে আস্তে গ্রাম দৃশ্যমান হচ্ছে। লম্বা লম্বা গাছগুলো দেখা যাচ্ছে। কোন বাড়ির কোন গাছ আমি মনে মনে মিলাতে লাগলাম। গ্রামের কোন গাছের কুল মিষ্টি,কার গাছের আম টক তা আমাদের কয়েক জনের মুখস্থ ছিলো। আমাদের নৌকাটি ইতিমধ্যে হাওড় পাড়ি দিয়ে গ্রামের পাশের ধানক্ষেতে প্রবেশ করেছে। আচমকা আমাদের নৌকার দু’পাশে লোক বুঝাই দু’টি নৌকা আমাদের নৌকাটি ঘিরে ফেললো। লোক গুলোর সবার হাতেই রাইফেল। কারো গায়ে গেঞ্জি,কারো গায়ে হাফ শার্ট, কারো গলায় গামছা পেঁচানো,কারো পরনে খাকি হাফ প্যান্ট। আমি ভয়ে দ্রুত ছৈয়ের ভিতরে আত্মগোপন করার চেষ্টা করলাম। বাবা তখন ছৈয়ের ভিতরে তন্দ্রাচ্ছন্ন ছিলেন। চলবে,,,,

লেখক আলহাজ্ব মোঃহুমায়ুন কবির
শিক্ষক, গোবিন্দগঞ্জ হাই স্কুল।
ছাতক, সুনামগঞ্জ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com