বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:২০ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
প্রাতিষ্ঠানিক বিকেন্দ্রীকরণই উন্নয়নের পূর্বশর্ত; কেন্দ্রীকরণ নয়

প্রাতিষ্ঠানিক বিকেন্দ্রীকরণই উন্নয়নের পূর্বশর্ত; কেন্দ্রীকরণ নয়

হাসন রাজা, আব্দুল করিম, দেওয়ান মোহাম্মদ আজরফ, অধ্যাপক শাহেদ আলীর স্মৃতি বিজড়িত জেলা সুনামগঞ্জ। কথিত আছে মুঘল সেনাপতি সুনাম উদ্দিনের নামানুসারেই নামকরণ হয় সুনামগঞ্জের। মুঘল সেনা সুনাম উদ্দিনের কৃতিত্বের স্বাক্ষর হিসাবেই তাকে দান করা হয়েছিল এই অঞ্চল। নামকরণ যেভাবেই হোক; ভৌগলিক অবস্থান, ফসল উৎপাদন, মৎস সম্পদ, কয়লা, বালি, চুনাপাথর আর চিমচাম শিল্প নগরির কারণে জাতীয় অর্থনীতিতে সুনামগঞ্জের রয়েছে সতন্ত্র ভূমিকা ও সুনাম। প্রবাসী অধ্যুষিত ছাতক, জগন্নাথপুর, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলাসহ অন্যান্য উপজেলার প্রবাসীদের প্রেরিত রেমিটেন্স জাতীয় রেমিটেন্সের একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। নীলাদ্রি লেক, টাঙ্গুয়ার হাওর, বাঁশতলা আর শিমুল বাগান পর্যটন শিল্পের এক অপার সম্ভাবনাময় স্থান। উন্মোচিত হয়েছে পর্যটন নব-দিগন্তের। বিভিন্ন দিক থেকে সতন্ত্র বৈশিষ্ট্যমন্ডিত হলেও যোগাযোগ, যাতায়াত, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যখাতে ছিল বরাবরই পিছিয়ে। অনেক খ্যাতনামা, প্রথিতযশা রাজনৈতিকের জন্মস্থান এই সুনামগঞ্জ। উনাদের প্রতি সর্বোচ্চ শ্রদ্ধা রেখেই বলছি, সুনামগঞ্জবাসী ছিল কাঙ্খিত উন্নয়ন হতে বঞ্চিত। বলছিনা যে উনারা কোন উন্নয়নই করেননি, বরং বলছি কাঙ্খিত উন্নয়ন হতে স্কোরটা পিছিয়ে ছিল। এর হয়তো বহু কারণও ছিল, ওগুলো নিয়ে আলোচনা আপাতত না করাটাই উত্তম। উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় বিতর্ক নয়, সবার ভালবাসা আর সহযোগীতা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে বহুদূর। নেতিবাচক সমালোচনা বিদ্বেষ ছড়ায়, দুরত্ব বাড়ায়; তাই সমালোচনা নয় ভালবাসাই হোক এগিয়ে যাবার মূলমন্ত্র।
:

আমরা কারো সমালোচনা করতে গিয়ে কখনও কখনও যে নিজেরই ক্ষতি করে বসি, সে চিন্তা হয়ত তখন করি না বা সজ্ঞানেই এড়িয়ে যাই। তবে যখন বুঝতে পারি যে কাজটা ঠিক করি নাই, তখন অনেকটা দেরি হয়ে যায়! ক্ষতিটাও হয় অপূরণীয়। হিসাবের খাতার গড়মিলটা মিল করতে গিয়ে কখন যে পৃষ্টাটাই শেষ হয়ে যায় খেয়ালই করি নাই, তবুও গড়মিলটা রয়েই যায়। স্বাধীনতা পরবর্তী চার দশকেও কাঙ্খিত উন্নয়নের আলো দেখেনি সুনামগঞ্জ। পঞ্চম দশকের শেষের দিকে উন্নয়নের মহাসড়কে যখন আমাদের অবস্থান, তখন উন্নয়ন বান্ধব নয় বা উন্নয়নে সহায়ক নয় এমন কথা না বলাই শোভনীয়। বলাটা নিজের পায়ে নিজে কুড়াল মাড়ার মতো। এতে করে নিজের শরীরটাই রক্তাক্ত হয়, ব্যাথা লাগে সর্বত্র।
:
২১.১০.২০২০ দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনে পরম শ্রদ্ধেয় পীর হাবিবুর রহমান স্যারের “ডঃ কামাল অবসর নিন, মান্নান শান্তিগঞ্জের মন্ত্রী নন” শিরোনামে লেখাটি গভীর আগ্রহ নিয়ে মনযোগ সহকারেই পড়লাম। মাফ করবেন উনার সমালোচনা করার জন্য বলছি না, বা সে যোগ্যতাও আমার নেই। উনার জ্ঞানের সাগরে আমি সামান্য জলকণা মাত্র। হ্যাঁ উনি সত্যিই বলেছেন মান্নান স্যার শান্তিগঞ্জের মন্ত্রী নন, উনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বর্তমান মেয়াদের পরিকল্পনা মন্ত্রী। এবং উনার বাড়ী সুনামগঞ্জ জেলায়। আর এ কারণেই ভালবাসার টান সুনামগঞ্জের প্রতি একটু বেশিই, এবং এটাই স্বাভাবিক। এ ভালবাসা থেকেই অবহেলিত, উন্নয়ন বঞ্চিত সুনামগঞ্জের উন্নয়নে উনি বদ্ধপরিকর। ভালবাসা না থাকলে এত প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবেলা করেও উন্নয়নের জোয়ারে ভাসাতেন না। দেশের অন্যকোন জেলায় জন্ম হলে এখানে এসে গাঁয়েপড়ে এভাবে কাজও করতেন না। দেশের অন্যকোন জেলায় জন্ম হলে উনারা তাকে সম্মানের সর্বোচ্চ আসনে জায়গা করে দিত। উন্নয়নের বরপুত্র বা সুনামগঞ্জের উন্নয়নের রূপকার মান্নান স্যারকেই বলা যায়। হাবিবুর রহমান স্যার তার লেখায় বেশ কয়েকটি বিষয় সুকৌশলে যুক্ত করেছেন, যেমন : স্থানের নাম। বলেছেন ডুংরিয়ায় সরকারি মেগা প্রজেক্ট বাস্তবায়নের কথাও। উনি শান্তিগঞ্জ আর ডুংরিয়াকে একত্রে ঘুলিয়ে ফেলেছেন। বিষয়টি পরিস্কার করার জন্য বলছি শান্তিগঞ্জ একটি এলাকা আর ডুংরিয়া একটি গ্রাম মাত্র। হাবিবুর রহমান স্যার একজন বিজ্ঞ ব্যক্তি সন্দেহ নেই। তো উনি যদি সুনামগঞ্জের জন্য আরও কোন মেগা প্রজেক্ট নিয়ে আসেন এবং বাস্তবায়ন করেন, সাধুবাদ উনাকেও। উনার সেই পরিমান ক্ষমতা আছে, সেটা বিশ্বাস করি। বিরোধিতা করে আমরা যদি নিজেরাই নিজেদের ক্ষতি করি, সেটা হবে দুঃখজনক। প্রতিদন্ধীতা হোক উন্নয়নের, প্রতিযোগীতা হোক ইতিবাচক। প্রেম ভাল, তবে যে প্রেম বিয়ের আগেই গর্ভপাত ঘটায়; সেটা বিপদজনক!
:
শান্তিগঞ্জে কিছু হলে তার সরাসরি সুবিধা পাবে সুনামগঞ্জ সদর, জামালগঞ্জ, দিরাই, শাল্লা, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, জগন্নাথপুর, দোয়ারা ও ছাতক। সে দৃষ্টিকোণ বিবেচনায় জেলার বেশিরভাগ উপজেলাই সুবিধা পাচ্ছে, বাকীরাও যে পাচ্ছে না! বিষয়টা এমন নয়। তাছাড়া সুনামগঞ্জ শহরের প্রসারণ ভৌগলিক কারণেই দক্ষিণমুখী। তাই দক্ষিণে কিছু হওয়াটা অবিবেচনাসূচক নয়। বরং ভৌগলিক প্রকৃতির সাথে সামঞ্জস্য রেখে সুদূরপ্রসারী চিন্তার যুগোপযোগী ও বাস্তব প্রতিফলন। সুনামগঞ্জের উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করতে সম্মিলিত প্রচেষ্টাই মূখ্য ভূমিকা পালন করতে পারে।

প্রথমবিশ্ব বা উন্নতবিশ্ব যাই বলি না কেন বা যে শব্দই প্রয়োগ করি না কেন, ওখানকার লোকজন উন্নয়নের ক্ষেত্রে একে অপরের সহযোগী, সম্পূরক বা পরিপূরক। এ কারনেই উনারা উন্নত বিশ্বের নাগরিক আর আমরা তৃতীয় বিশ্বের। উনাদের আচার-আচরন অনেকটাই মার্জিত। পক্ষান্তরে আমরা ! কাঁদা ছোড়াছুড়ি ও নোংরামিতে ব্যস্ত সময় পার করি। অনেকটা নিজের নাক কেটে অন্যের যাত্রা ভঙ্গের মত অবস্থা। এই মানসিকতা যতদিন পর্যন্ত পরিহার বা পরিত্যাগ করতে না পারব, ততদিন পর্যন্ত তিমিরেই রয়ে যাব। উন্নয়নটা স্বপ্নই থেকে যাবে, বাস্তবায়ন হবে না আদৌ ! অহমিকার করিডোর দিয়ে হেঁটে বৃহত্তম মনের পরিচয় দেওয়া, সেতো লেবাস সর্বস্ব ভালমানুষ মাত্র। মেধা সেটা নয়, যেটা অন্যের উপকারে আসে না। প্রকৃত মেধা তো সেটাই, যেটা অন্যের উপকারে আসে বা সহায়ক ভূমিকা পালন করে। বর্তমানে শান্তিগঞ্জের উন্নয়ন নিয়ে কিছু মুখরোচক শব্দ উচ্চারিত হচ্ছে জোরেশোরেই। তবে নেতিবাচক মন্তব্যের মাত্রাটাই বেশি পরিলক্ষিত হচ্ছে। বলা হচ্ছে সুনামগঞ্জকে বাদ দিয়ে শান্তিগঞ্জমুখী নানান উন্নয়ন প্রকল্পের কথা। প্রশ্ন হল শান্তিগঞ্জ কি সুনামগঞ্জের বাহিরে নাকি সুনামগঞ্জেরই একটা অংশ ? যদি অংশই হয় তবে শান্তিগঞ্জের উন্নয়ন মানেই কি সুনামগঞ্জের উন্নয়ন নয় ? হ্যাঁ আমি যদি বিরোধিতা করতে চাই, তার আগে আমার চিন্তা করা উচিত, আমার দ্বারা ঐ প্রকারের বা তারচাইতেও ভাল কোন উন্নয়ন সম্ভব কি না। সে ক্ষমতা বা যোগ্যতা যদি নাই তাকে, তবে অযতাই বাক্য ব্যয় করে উন্নয়ন বাঁধাগ্রস্ত করে সাধারণ মানুষকে সুফল প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত করা কতটা যৌক্তিক ?
:
প্রাতিষ্ঠানিক বিকেন্দ্রীকরণ উন্নয়নের পূর্বশর্ত। যদি সেটাকে কুক্ষিগত করে ফায়দা নিতে চান ! সেটা হবে বঙ্গভঙ্গ বিরোধী আন্দোলনের সমর্থকদের মত। কলকাতার বাবুরা (বাবু বলতে এখানে নির্দিষ্ট কোন ধর্মের মানুষকে চিহ্নিত করতেছি না) শুধুমাত্র মুষ্টিমেয় কিছু সংখ্যক এর স্বার্থের চিন্তা থেকেই বঙ্গভঙ্গের তীব্র বিরোধিতা করেছিলেন, একটা পর্যায়ে তারা সফলও হয়েছিলেন। ফলশ্রুতিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিকেন্দ্রীকরণ না হওয়ায় সমগ্র বাংলার খণ্ডিত অংশ বাদে বাকী অঞ্চল ছিল উন্নয়ন বঞ্চিত, যার খেসারত আমরা আজও দিচ্ছি। প্রাতিষ্ঠানিক বিকেন্দ্রীকরণে ঘাটতি থাকায় ঢাকা আজ বিশ্বের দূষিত শহরের শীর্ষ তালিকার একটি। যদি বিকেন্দ্রীকরণ হত, তবে তালিকায় নামটা হয়তো লেখা হত ভিন্নভাবে। বিশ্ব যখন পরিকল্পিত নগর নির্মানে ব্যস্তসময় পার করছে, আমাদের চিন্তা তখনও মান্ধাতা আমলের। জাতির বিশিষ্ট বিশেষজ্ঞ সন্তানদের কেউ কেউ এখনও আত্মকেন্দ্রিক চিন্তায় বিভোর। এটা বৃহত্তর উন্নয়নের মেগা প্রতিবন্ধক। জেলার বৃহত্তর অংশ বা জনসাধারণের সুবিধার চিন্তা ব্যতিরেকে আত্মকেন্দ্রিক ভাবনা কৃপণতারই শামিল। সবচাইতে ভাল হয়, আপনারা যারা প্রাতিষ্ঠানিক বিকেন্দ্রীকরণ চান না, বা জেলার অন্যান্য অংশের উন্নয়নের কথা ভাবেন না, বা সজ্ঞানেই এড়িয়ে যেতে চান, বা এড়িয়ে যান! আপনাদের মত অসাধারণ ব্যক্তিগণের কারণে, আমরা সাধারন মানুষ যে সুবিধাপ্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হই, সেটা ভাবেন কি ? ইদানীং সোশ্যাল মিডিয়া ফেইচবুক ও পত্রিকার পাতায়ও দেখা যায় মিথ্যার ছড়াছড়ি ! অনেকেই বলছেন সুনামগঞ্জ থেকে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের অফিস নাকি শান্তিগঞ্জে সরিয়ে আনা হচ্ছে, বিষয়টা একটা ডাহা মিথ্যাচার। প্লিজ গুজব রটাবেন না, গুজবে কান দেবেন না। আসলে সুনামগঞ্জ থেকে কোন প্রতিষ্ঠানই সরিয়ে আনা হচ্ছে না, বরং নতুন প্রতিষ্ঠান নিয়ে আসা হচ্ছে সরকারের কাছ থেকে। এবং ঐ নতুন প্রতিষ্ঠানগুলো যদি জেলার মধ্যবর্তী কোথাও স্থাপন করা হয়, তবে সুবিধা পাবে গোটা জেলার সর্বজন। সুনামগঞ্জের ম্যাপটি যদি ভালভাবে খেয়াল করেন, তবে বিষয়টি স্বচ্ছ পানির মতই পরিস্কার হয়ে যাবে। একজন দূরদর্শী রাজনীতিবিদের যেমন মধ্যনগরের চিন্তা করা প্রয়োজন, তেমনি প্রয়োজন ঝিগলী, বরাটুকার মানুষজনের কথাও।
:
কথাবার্তার ক্ষেত্রে আমাদের আরও বেশি শালীন হওয়া উচিত বলে মনেকরি। আমরা অনেকসময় নিজেদের বড় করতে গিয়ে অন্যকে সচেতনভাবেই হোক বা অবচেতন মনেই হোক, অসম্মান করে বসি। এমনটা না করাই উত্তম হবে। শেষের দিকে যেটুকু বলব তা হল, এখনও সুনামগঞ্জে অনেক প্রতিষ্ঠান বাকী আছে। কেউ যদি মেডিকেল কলেজ নিয়ে আসেন, তো অন্য কেউ মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে আসুন। কেউ যদি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট নিয়ে আসেন, তো অন্যকেউ বুয়েটের মত প্রতিষ্ঠান নিয়ে আসুন। আপনার জন্যও বুকভরা ভালবাসা আর প্রাণখোলা দোয়া থাকবে সুনামগঞ্জবাসীর পক্ষ থেকে। ডিজিটালাইজেশন বা গ্লোবালাইজেশনের যুগেও যদি চিন্তার প্রসারণ ঘটাতে না পারি, সেটা হবে আমাদের নিজেদের জন্যই দুঃখজনক !
♦লেখক
আহমেদ জুনেদ
এনজিও কর্মী
:

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com