বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৭:১২ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
‘নভেম্বরের আগে আরও খেলবে যুক্তরাষ্ট্র’

‘নভেম্বরের আগে আরও খেলবে যুক্তরাষ্ট্র’

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্কঃ অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ। আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক। পড়াশোনা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, কানাডার কার্লটন বিশ্ববিদ্যালয় ও অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ে। ভিজিটিং প্রফেসর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন জাপানের ইয়োকোহামা সিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে। এখন অধ্যাপনা করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে।

যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফর প্রসঙ্গ নিয়ে মুখোমুখি হন জাগো নিউজের। যুক্তরাষ্ট্রে মধ্যবর্তী নির্বাচন সামনে রেখে প্রেসিডেন্ট বাইডেন প্রশাসন বিশেষ কৌশল নিতে চাইছে, যার অংশ এই সফর। সামনে আরও ঘটনা ঘটতে পারে বলে ইঙ্গিত দেন এই বিশ্লেষক।

সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সায়েম সাবু

জাগো নিউজ: বিতর্কের মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ান সফর করছেন। এ নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে চীন। ন্যান্সি পেলোসির এই সফর আসলে কতটুকু গুরুত্ব বহন করে?

অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ: যুক্তরাষ্ট্রে সামনে মধ্যবর্তী নির্বাচন। এই নির্বাচন সামনে রেখেই ডেমোক্র্যাট নেতা ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ান সফর করছেন বলে আমি মনে করি। পেলোসির সফর মূলত পশ্চিমা মিডিয়ার উত্তেজনা। পশ্চিমা মিডিয়ার মূলত আন্তর্জাতিক মিডিয়া দখলে রাখার যে চেষ্টা, তারই একটি ট্রায়াল বলতে পারেন।

 

যুক্তরাষ্ট্রে প্রচুর এশিয়ান অবস্থান করছে। ভোটের রাজনীতিতে তারাও প্রভাব রাখে। আমেরিকা এ সফরের মধ্য দিয়ে দেখানোর চেষ্টা করছে যে, তারা এখনো সবচেয়ে ক্ষমতাধর এবং চীনকে মোকাবিলা করতে পারে।

জাগো নিউজ: আসলেই কী সে ক্ষমতা দেখাতে পারলো?

 

ইমতিয়াজ আহমেদ: চীন কিন্তু একবারও বলেনি যে, পেলোসিকে তাইওয়ানে ঢুকতে দেওয়া হবে না। এই সফর আমেরিকার একতরফা সিদ্ধান্ত। নভেম্বরে আমেরিকায় নির্বাচন। ডেমোক্র্যাটরা জিততে পারবে কি না তা অনিশ্চিত। কিন্তু এই নির্বাচনের আগে এমন আরও ঘটনা দেখতে পাবো।

সম্প্রতি আল-কায়েদা নেতা আয়মান আল জাওয়াহিরির হত্যাকাণ্ডও ঘটালো বলে প্রকাশ করলো যুক্তরাষ্ট্র। অথচ ২০ বছর ধরে তাকে মারতে পারলো না। আসলে একজন মানুষকে কতবার মারবে যুক্তরাষ্ট্র, তা জানার বিষয়। জাওয়াহিরি হত্যা যুক্তরাষ্ট্রের নাটক ছাড়া কিছু নয়। মধ্যবর্তী নির্বাচনের আগে বাইডেন প্রশাসন আরও নাটক সাজাবে। ইউক্রেন থেকে ব্যাকফায়ার হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের জন্য। নিজ দেশের প্রভাব ফেলছে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে। নভেম্বরের আগে আরও খেলবে যুক্তরাষ্ট্র।

জাগো নিউজ: সমুদ্রে, আকাশে চীন মহড়া দিচ্ছে। এর মধ্যে পেলোসির এই সফর ঝুঁকি ছিল কি না?

ইমতিয়াজ আহমেদ: না। কোনো ধরনের ঝুঁকি ছিল না বলে আমি মনে করি। তাইওয়ান চীনেরই অংশ এবং যুক্তরাষ্ট্র এক চীন নীতি সব সময় মেনে নিয়েছে। তাইওয়ান নিয়ে পশ্চিমাদের অবস্থান দেখে আমার মাঝে মধ্যে হাসি পায়। তামাশা করে তারা আসলে কী পায় আমার জানা নেই। ছোট্ট একটি দ্বীপ নিয়ে এই তামাশা মানায় না। হংকং নিয়েও এমন তামাশা করেছিল। এখন থেমেছে। মনে রাখতে হবে তাইওয়ানের সবচেয়ে বড় বিনিয়োগ কিন্তু চীনে হয়। এটি ভুললে তো হবে না।

জাগো নিউজ: তাইওয়ান তো এখন স্বশাসিত। আলাদা করে ভাবার সুযোগ আছে কি না?

ইমতিয়াজ আহমেদ: কোনোভাবেই আলাদা করে ভাবার সুযোগ নেই। বাংলাদেশের দ্বীপ জেলা ভোলা যদি কখনও এমন স্বাধীনতা দাবি করে তাহলে তো হাস্যকর হতে পারে। তাইওয়ান ঐতিহাসিক কারণেই চীনের অংশ। আগের চীন আর এখনকার চীন এক নয়। পরিবর্তন হয়েছে। এ কারণে আমি মনে করি, এ ধরনের তামাশা করে উত্তেজনা বাড়িয়ে পশ্চিমারা খুব লাভবান হতে পারবে না।

আমেরিকা তার জনগণকে দেখাতে চাইছে যে, আমরা এখনো নাম্বার ওয়ান। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র বড় ধরনের

ঝামেলায় পড়ে গেছে। ইউরোপ-আমেরিকায় পণ্যের দাম বেড়েছে। জ্বালানির দাম বেড়েছে। এই পরিস্থিতিতে ইমেজ বাড়াতে বাইডেন প্রশাসন বলতে চাইছে আমরা শুধু রাশিয়া নয়, চীনকেও ঠেকাতে পারি। এ খবরগুলো বেশি দিন উত্তেজনা ছড়াবে না। তখন নতুন ঘটনার জন্ম দেবে যুক্তরাষ্ট্র।

জাগো নিউজ: চীনে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতকে তলব করা হয়েছে। তাইওয়ানে চীন অভিযান পরিচালনা করবে বলেও খবরে আসছে। তাইওয়ানের জনগণের জন্য সংকট বাড়ছে কি না?

ইমতিয়াজ আহমেদ: চীন তাইওয়ানে অভিযান চালাবে কেন? বহু আগেই তো অভিযান চালাতে পারতো। তাইওয়ান অর্থনৈতিকভাবে এরই মধ্যেই চীনের অংশ। তাইওয়ানের বিনিয়োগ চীনের। চীনের যে পরিকল্পনা তাইওয়ান এমনিতেই চলে যাবে। চীন কখনই যুদ্ধের মধ্যে যেতে চায় না।

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতকে তলব করতেই পারে। চীনের পক্ষ থেকেও পরিষ্কার ব্যাখ্যা পাওয়া জরুরি। একজন স্পিকারের এই সফরের আসলে কী গুরুত্ব আছে সেটাও আমার কাছে স্পষ্ট নয়। স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির স্বামী নিজেই দুর্নীতির একটি মামলায় পড়ে আছেন। পেলোসির কাছে এই সফর ব্যক্তিগত বলেই আমি বিশ্বাস করতে চাই। সব মিলে ডেমোক্র্যাটরা আদৌ ক্ষমতায় থাকতে পারবে কি না সেটাই এখন প্রশ্ন। নভেম্বর না এলে আমরা কিছুই বুঝতে পারবো না।

জাগো নিউজ: ইউরোপে যুদ্ধ। এশিয়ায় উত্তেজনা ছড়ালো। এটি যুক্তরাষ্ট্রের আসলেই মিডিয়া ট্রায়াল, নাকি দূরদর্শী কোনো পরিকল্পনা?

ইমতিয়াজ আহমেদ: একেবারেই মিডিয়া ট্রায়াল। পশ্চিমা মিডিয়া এবার ধরা খেয়েছে। মূলধারার এসব মিডিয়ায় মানুষ আর বিশ্বাস রাখে না। গবেষকরা তাদের আর গুরুত্ব দেন না। স্বতন্ত্রভাবে যেসব মিডিয়া নেট দুনিয়ায় খবর দিচ্ছে, তারাই বরং বস্তুনিষ্ঠ খবর দেয়। এ কারণে পেলোসির সফর আর জাওয়াহিরি নিহত হওয়ার ঘটনায় যে উত্তেজনা ছড়াতে চাইছে, তা হালে পানি পাচ্ছে না।

জাগো নিউজ: সামনের দিনে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান কী?

ইমতিয়াজ আহমেদ: বিশ্ব মোড়ল দেখানোর ভাবটা যুক্তরাষ্ট্রের পুরোনো নীতি। এটি অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতেও কাজে লাগে। যুক্তরাষ্ট্রে বিভিন্ন দেশ থেকে গিয়ে মানুষ বসবাস করে। তার বিজ্ঞান, ব্যবসা, বিশ্ববিদ্যালয় বাইরের দেশের মানুষেরাই সচল রেখেছে। বিশ্বের নাম করা সিইও বাইরে থেকে যাওয়া। মোড়ল ভাব দেখাতে না পারলে তো বাইরে থেকে মানুষ সেখানে যাবে না।

আমেরিকার নির্বাচনে এসব পলিসি গুরুত্বপূর্ণ। ওয়াশিংটন পোস্ট, সিএনএন ডেমোক্র্যাটদের পক্ষে অবস্থান নিয়ে কাজ করছে। এখন ফক্স নিউজ কী করবে সেটাই দেখার বিষয়। আবার অস্ট্রেলিয়ার স্কাই নিউজ যারা রিপাবলিক্যানদের সঙ্গে আছে, তারা অন্য খবর দিচ্ছে।

আপাতত আন্তর্জাতিক মিডিয়ার অবস্থান থেকে পরিষ্কার ধারণা আপনি নিতে পারবেন না। তবে এমন উত্তেজনা আরও বাড়বে, তা আপনি ধারণা করতেই পারেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com