শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৭:২৬ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
শিমুলপাতা, করোনাকাল ও প্রাসঙ্গিক জীবন

শিমুলপাতা, করোনাকাল ও প্রাসঙ্গিক জীবন

১২ জুলাই রাত আটটার কিছু বেশী হবে,অনলাইনে আমার ই মেডিকেলের এক ছোট ভাই ডাক্তার মশিউর চিকিৎসকদের জন‍্য আপডেটেড বিষয়গুলো নিয়ে লেকচার দিচ্ছে,আমি অত্যন্ত মনোযোগী শ্রোতা হয়ে সব বোঝার চেষ্টা করছি;চিকিৎসক হয়ে চিকিৎসা দেবার এ আরেক যন্ত্রণা,আপনি সবসময় আপডেটেড থাকতে হবে এবং এ জন‍্য পড়াশোনা করতে হবে,সে আপনি যতোই বড় মাপের চিকিৎসক ই হন না কেনো। তো অনলাইন ক্লাস এর মাঝামাঝি সময়ের দিকে আমার একজন সহকর্মী ফোনে জানালেন আমি কভিড পজিটিভ,লেকচার এর মাঝেই ডা:মশিউর কে জানালাম;অবাক হয়ে দেখলাম অংশগ্রহণকারী চিকিৎসকদের বেশীরভাগ ই আমাকে চেনেন,অথচ আমি তেমন কাউকেই চিনিনা, কারণ জানতে চাইলে ওরা জানালো চিকিৎসকদের বিভিন্ন গ্রুপ এ আমার লেখা ওরা দেখেছে,সেখান থেকেই জেনেছে।

ওদের থেকে দোয়া চেয়ে আমার সহধর্মিনীকে জানালাম,একটা নিরবতা ও অস্হিরতা ওর মধ‍্যে লক্ষ্য করলাম,সেই নিরবতা ও অস্হিরতা আমাকে ও গ্রাস করলো; প্রাথমিক ধাক্কা সামলে নিয়ে আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম সিলেট শহীদ সামসুদ্দিন আহমদ করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে যেয়ে আনুসঙ্গিক অন‍্যান‍্য পরীক্ষাগুলো করে ওখানকার চিকিৎসকদের পরামর্শ নেব। তো পরেরদিন ওখানে গেলাম,আমার পরিচিত জায়গা,বেশ কিছুদিন আমি সেখানে পোস্টেড ছিলাম,তাছাড়া আজ আসার আগে এখানকার আমার অত্যন্ত শ্রদ্ধার বড় ভাই ডা:জন্মেজয় দাদা ও আমার বন্ধু ইকবালকে বলে এসেছি,উনারা সহ অন‍্যান‍্য স্টাফদের সহায়তায় সব কাজ হলো,কিন্তু উনারা সবাই আমাকে দেখে ভাবছিলো আমি কোন ও তদ্বির করতে এসেছি!কারণ করোনাকাল শুরু হবার পর আমি এই হাসপাতালের সবাইকে এতো বেশী বিষয়ে অনুরোধ করেছি,আজ অমুক আত্বীয় এর জন‍্য কেবিন লাগবে তো কাল আমার পরিচিত অমুক রাগীর আই সি ইউ লাগবে;ওই রোগীকে বড় Oxygen সিলিন্ডার দেয়া ইত‍্যাদি হেন কোন ও অনুরোধ নেই যা আমি করিনি।যা হোক সব কাজ করার পরই বাঁধলো বিপত্তি,পরামর্শ আসলো ভর্তি হতে;কিন্তু যে আমি গত ১৫ বছর চিকিৎসা বেডের পাশে গেছি চিকিৎসা দিতে,সেখানে নিজেকে কল্পনা করছিলাম ;অবশেষে সিদ্ধান্ত হলো হাসপাতাল সংলগ্ন কোয়ার্টার এই থাকবো আর উনাদের পরামর্শমতো চিকিৎসা চলবে এবং কোন ও প্রব্লেম দেখা দেয়ামাত্রই হাসপাতালে চলে আসতে হবে।এভাবেই চলছিল;কাশি,শরীর ব‍্যথা,মাথা ব‍্যথা কমছিলো না,তাই চিকিৎসকদের পরামর্শে বুকের সিটিস্ক‍্যান করা হলো,রিপোর্ট দেখার পর চিকিৎসকরা বললেন আর এক সেকেন্ড ও বাসায় থাকার সুযোগ নেই,এখনই চলে আসতে হবে,তাই হলো,বিভিন্ন রকমের ইন্জেকশন শুরু হলো,চিকিৎসা চলছে,আসার সময় আমার মিসেস প্রায় সব জিনিস ই নিয়ে এসেছে,তবে একটা জিনিস মিস হয়েছে,টেবিল ফ‍্যান,হ‍্যা এই টেবিল ফ‍্যান ছাড়া আমি ঘুমাতে পারি না,সিলিং ফ‍্যান চলবে সাথে আমার এটাও লাগবে,সিলিং ফ‍্যান কিছু সময় চলার পর দেখা যায় শীতশীত লাগে বা গরম বেশী লাগে,আবার ওঠে এডজাস্ট করা লাগে আর এই ঘুম থেকে ওঠে এই কাজ করা আমার পক্ষে অসম্ভব,বার বার করা লাগে,তাই টেবিল ফ‍্যান আমার লাগবেই,আমি বিছানায় থেকেই ফ‍্যানের স্পীড কমবেশী করি আর ভাবি এটা আমার স্বাধীন স্বত্তার একটা প্রমাণ। তো অবশেষে ড্রাইভার কে দিয়ে বাসা থেকে টেবিল ফ‍্যান আনার পর স্বস্তি ফিরেছে।রাত ভালোয় ভালোয় কেটেছে,কিন্তু মুশকিল হচ্ছে আমার চিকিৎসক স্ত্রীকে কিছুইতে বাসায় পাঠাতে পারিনি,সে আমার সাথেই থাকবে,অথচ ওর করোনা নেগেটিভ,এখানে থাকলে আক্রান্ত হবার অনেক বেশী রিস্ক থাকার পরও সে থাকবে……(চলবে…আশাকরি)

লেখকঃ ডা: মোঃ জসমি উদ্দিন।

 স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স   

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com