শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৬:০৭ পূর্বাহ্ন

pic
সংবাদ শিরোনাম :
রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা, ১৯ ফেব্রুয়ারি ভোট সিলেটে যেভাবে পাওয়া যাবে বিপিএলের টিকিট শান্তিগঞ্জে নবনিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের বরণ তাসকিনের গতিঝড়ে বিধ্বস্ত খুলনা, ১০৮ রান নিয়ে জিতলো ঢাকা রুদ্ধশ্বাস শেষ ওভারে সাকিবের বরিশালকে হারালো মাশরাফির সিলেট ৪৮ ঘণ্টার ব্যবধানে আবারও যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকহামলা, নিহত ৯ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মোহাম্মদ শাহ জাহান আর নেই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এসোসিয়েশনের দপ্তর সম্পাদক হলেন এল.আর জায়গীরদার খোকন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এসোসিয়েশন সম্পাদক হলেন শাহিনুর রহমান শাহিন শান্তিগঞ্জে রাতের আঁধারে শীতার্তদের ঘরে ঘরে গিয়ে কম্বল বিতরণ 
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
মুহিতের ‘সংসদীয় রাজনীতির’ ইতি!

মুহিতের ‘সংসদীয় রাজনীতির’ ইতি!

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্ক :: দেশের ইতিহাসে এক ডজনবার বাজেট পেশ করা সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য আবুল মাল আব্দুল মুহিতকে আর দেখা যাবে না জাতীয় সংসদে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাঁর ছোট ভাই ড. এ কে আব্দুল মোমেন সিলেট-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন। কার্যত এর মধ্য দিয়ে মুহিতের সংসদীয় রাজনীতির ইতি ঘটছে। প্রবীণ এই নেতা এবার অবসর জীবন যাপন করতে চান। অবশ্য আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা চাইলে বিশেষ কোনো কাজে জড়াতে পারেন বলেও ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন মুহিত।
আবুল মাল আব্দুল মুহিত গেল বেশ কিছু দিন ধরে বলে আসছিলেন, তিনি আর নির্বাচন করবেন না। এবার তিনি অবসরে যেতে চান।
গেল শনিবারও (২৪ নভেম্বর) ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে মুহিত বলেছেন, ‘আমার লম্বা কর্মজীবন প্রায় ষাট বছরের বেশি। এখন এই লম্বা কর্মজীবনে অবসরের প্রস্তুতি নিচ্ছি।’
মুহিতের চাওয়াই শেষপর্যন্ত পূর্ণ হচ্ছে। তাঁর নির্বাচনী এলাকা সিলেট-১ আসন থেকে এবার আওয়ামী লীগ মনোনয়ন দিয়েছে জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও সাবেক রাষ্ট্রদূত ড. এ কে আব্দুল মোমেনকে। মুহিতেরই ছোট ভাই ড. মোমেন। বছরখানেক আগেই মোমেনকে সিলেট-১ আসনের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন মুহিত।
প্রায় ষাট বছরের কর্মময় জীবনে ১৯৮২-৮৩ ও ১৯৮৩-৮৪ অর্থবছরে এরশাদ সরকারের আমলে অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা ছিলেন আবুল মাল আব্দুল মুহিত। ওই সময়ে তিনি দেশের দুটি বাজেট দেন।
মুহিত সর্বপ্রথম জাতীয় নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ২০০১ সালে। সেবার আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিএনপির সাইফুর রহমানের কাছে পরাজিত হন মুহিত। এরপর ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফের প্রার্থী হয়ে জয়ের মুখ দেখেন তিনি। ২০০৯ সালের শুরুর দিকে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পান মুহিত।
২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় নির্বাচন বিএনপি বর্জন করে। ওই সময় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন আবুল মাল আব্দুল মুহিত। এ দফায়ও তাঁকে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব দেন শেখ হাসিনা।
মুহিত ২০০৯-১০ অর্থবছর থেকে ২০১৮-১৯ অর্থবছর পর্যন্ত টানা ১০টি বাজেট পেশ করেছেন; যা বাংলাদেশে কোনোও অর্থমন্ত্রী বা অর্থ উপদেষ্টা হিসেবে একটি রেকর্ড। আরেকটি জায়গায় প্রয়াত অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানের সাথে রেকর্ডে নাম আছে মুহিতের। দেশে সর্বোচ্চ ১২ বার বাজেট প্রদানের রেকর্ড সাইফুর ও মুহিতের।
১৯৩৪ সালে জন্মগ্রহণ করা আবুল মাল আব্দুল মুহিত ১৯৫১ সালে সিলেট এমসি কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক (সম্মান) ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন।
পাকিস্তান সিভিল সার্ভিস (সিএসপি)-তে ১৯৫৬ সালে যোগদানের মধ্য দিয়ে কর্মজীবন শুরু হয় আবুল মাল আব্দুল মুহিতের। অর্থনৈতিক পরামর্শক হিসেবে ১৯৬৯ সালে যুক্তরাষ্ট্রস্থ পাকিস্তান দূতাবাসে যোগ দেন মুহিত। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে জুন মাসে পাকিস্তানের চাকরি থেকে ইস্তফা দেন তিনি।
স্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে পরিকল্পনা সচিব এবং ১৯৭৭ সালে অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বহিঃসম্পদ বিভাগে সচিব পদে নিযুক্ত হন মুহিত। তিনি ১৯৮১ সালে চাকরি থেকে স্বেচ্ছায় অবসর নিয়ে অর্থনীতি ও উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ হিসেবে ফোর্ড ফাউন্ডেশন ও ইফাদে কাজ শুরু করেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com