শনিবার, ২৫ Jun ২০২২, ০৪:২১ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
একজন মান্নান ও একটি বৈপ্লবিক ইতিবাচক পরিবর্তন

একজন মান্নান ও একটি বৈপ্লবিক ইতিবাচক পরিবর্তন

আল আমিন আহমেদ জুনেদ::

২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এম.এ মান্নান এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে পাল্টে যেতে থাকে দুটি উপজেলার চিত্র। ব্যাপক উন্নয়ন কার্যক্রম শুরু করেন এম.এ মান্নান। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আবারো বিপুল ভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এম.এ মান্নান। পরবর্তীতে তিনি বাংলাদেশ সরকারের অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। বর্তমান সরকার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর স্থানীয় সংসদ সদস্য এম.এ মান্নান এর আন্তরিক প্রচেষ্ঠায় ব্যাপক উন্নয়ন কাজ হওয়ায় পাল্টে যাচ্ছে প্রবাসী অধ্যুষিত ও হাওর বেষ্টিত দুই উপজেলা জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ। স্বাধীনতার ৪৬ বছরে যে উন্নয়ন হয়নি গত ৯ বছরে সেই উন্নয়ন হয়েছে বলে দাবী এলাকার সাধারন জনগণের।

সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নিয়ে গঠিত সংসদীয় আসন সুনামগঞ্জ ০৩ আসনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ -এই আসন থেকে নিবার্চিত হয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন মরহুম আব্দুস সামাদ (আজাদ) স্পীকার হুমায়ুন(রসিদ) সহ বিভিন্ন সময়ের বিভিন্ন দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতূবূন্দ-বর্তমান সাংসদ ও প্রতিমন্ত্রী এম,এ,মান্নান যে উন্নয়নের চমক দেখাচ্ছেন বিগত ৪৬ বছরেও এত উন্নয়ন হয়নি, উন্নয়নের জোয়ার সুনামগঞ্জ জেলা জুড়ে ঝলমল করছে-তারই প্রমান স্বরুপ। প্রত্যন্ত এলাকায় ছোট ছোট বসতবাড়িগুলো এখন সন্ধ্যার পর আলোকিত হয়ে ওঠে, যেখানে এক সময় সন্ধ্যা নামার আগেই কেরোসিন কিনে আনতে ব্যস্ত সময় কাটতো বাসিন্দাদের। সড়ক ব্যবস্থার উন্নতি হওয়ায় ব্যবসা-বাণিজ্যে সমৃদ্ধ হয়ে উঠেছে এলাকা।

এক সময়ের অবহেলিত এ দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলাকে উন্নয়নের ছোঁয়ায় বদলে দিচ্ছেন অর্থ মন্ত্রনালয় ও পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বজ্জন রাজনীতিবিদ ও জন সম্পৃক্ত নেতা এম এ মান্নান, আনাচে কানাচে রাজনৈতিক আলোচনা – সমালোচনার ভীড়ে এ কথা স্বীকার করেন প্রায় সকলেই। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ অনেক স্কুলকে কলেজে উন্নীতকরণ করা হয়েছে, যারমধ্যে পাগলা স্কুল এন্ড কলেজ হলো এর জলন্ত কটি উদাহরণ।

উপজেলাকে কেন্দ্র করে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় ব্যবসা কেন্দ্র, মসজিদ, মাদরাসা, কমিউনিটি সেন্টার, মার্কেট, ব্যাংক বীমাসহ নানা ধরনের দৃষ্টিনন্দন স্থাপনা গড়ে তোলা হয়েছে। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে। আধুনিক ও দৃষ্টিনন্দন দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদ ভবন। উপজেলায় অনলাইন ব্যাংকিং সুবিধা দিচ্ছে প্রায় ৩ থেকে ৪টি ব্যাংক। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে এ উপজেলার উন্নয়ন হয়নি বললেই চলে। আর এটি মাথায় রেখে অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নিজের এলাকার উন্নয়নের দিকে নজর দিচ্ছেন একটু বেশিই। তাঁর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের মানুষের আর্থসামাজিক অবস্থা। এক যুগ আগেও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় উন্নয়ন বলতে হাতে গোনা যৎসামান্য কিছু দেখা গেলেও সেই দৃশ্যপট পাল্টেছে খুব কম সময়েই ।
অভিজ্ঞ মহলের মতে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর একক প্রচেষ্টায় বিগত ৯ বছরে নতুন রূপ পেয়েছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা। কার্প হ্যাচারী শান্তিগঞ্জ এলাকায় স্থাপনে হয়েছে কর্মসংস্থা সুযোগ, আর এর পেছনের মূল পরিকল্পণাকারি ছিলেন মান্নানই ।

ব্যক্তি জীবনে আপোষহীন, নির্ভেজাল ও দরিদ্রদের কাছে উদার মনের মানুষ হিসাবে পরিচিত এম এ মান্নান। এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর ক্ষমতার দম্ভ কখনোই স্পর্শ করেনি করে তাকে। সুনামগঞ্জ-০৩ আসনের উন্নয়নের অগ্রনায়ক, যার তুলনা তিনি নিজেই। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ওখানকার সাংসদরা উন্নয়ন কর্মকান্ডে ব্যর্থ হলেও সুনামগঞ্জ-০৩ আসনে পর পর দুই বার নির্বাচিত সাংসদ এম এ মান্নান এমপি বিগত ৯ বছরে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় ব্যাপক উন্নয়ন কর্মতৎপরতা চালিয়েছেন। এরমধ্যে উপজেলা পরিষদ ভবন নির্মান, আবাসিক ডর্মেটরী নির্মান, ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন নির্মান, নতুন থানা ভবন নির্মাণ, উপজেলা মৎস্য অফিস নির্মান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মান, ৫শ আসন বিশিষ্ট ঝিলমিল অডিটোরিয়াম, নিমার্ণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে উপজেলা কেন্দ্রীয় মসজিদ, উপজেলা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল, উপজেলা ষ্টেডিয়াম, টেক্সটাইল কলেজ, খাদ্য গোদাম, বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র, দেখার হাওরের উতরারিয়া বাধ এলাকায় রাবার ড্যাম্প স্থাপন সহ বেশ কয়েকটি নতুন ভবন নির্মান, এ উপজেলায় নিরবিচ্ছন্ন বিদ্যুতের জন্য পাওয়ার ষ্টেশন স্থাপন, শান্তিগঞ্জ রজনীগঞ্জ সড়ক নির্মাণ, উপজেলার বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণ, উচ্চ বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মান, প্রতিটি ইউনিয়নের সাথে উপজেলা সদরের যোগাযোগ রাস্তা, অসংখ্য কাজ তাগিদের সঙ্গেই বাস্তবায়ন করতে চান প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, এর অনেকগুলো সম্পন্ন, বাকীগুলো প্রক্রিয়াধীন।

ইতিমধ্যে ৮১কোটি টাকা ব্যয়ে জগন্নাথপুর পৌরশহর সহ পাগলা রানীগঞ্জ আউশকান্দি সড়কের কাজ শুরু হয়েছে-এবং জগন্নাথপুর উপজেলা বিভিন্ন স্কুল কলেজ মাদ্রসার নতুন ভবন নির্মাণ হয়েছে।
এ উপজেলাবাসীর উন্নয়নে এম এ মান্নান শুধু একজন অগ্রনায়কই নন মহানায়কই বলা যায়।

 

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com