রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০২:৩১ অপরাহ্ন

pic
সংবাদ শিরোনাম :
অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা সুনামগঞ্জের শান্ত কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক মনোনীত প্রথম দল হিসেবে বিশ্বকাপের কোয়ার্টারে নেদারল্যান্ডস আর্জেন্টিনাকে হারানোর ৩২ বছর পর ক্যামেরুনের ব্রাজিলবধ ২-০ গোলে হারিয়েও ঘানার সঙ্গে বিদায় উরুগুয়ের পর্তুগালকে হারিয়ে রোনালদোদের সঙ্গে দ্বিতীয় রাউন্ডে কোরিয়া ব্রাজিল সাপোর্টারদের মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা আর স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত শান্তিগঞ্জ শান্তিগঞ্জে বাংলাদেশ এনজিও ফাউন্ডেশন দিবস উদযাপন ২৮ তম বিসিএস ফোরাম সিলেট’র সভাপতি ডাঃ জসিম, সম্পাদক সাগর কোস্টারিকাকে ৪-২ গোলে হারিয়েও বিদায় জার্মানির
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
৬ লাখ বাংলাদেশি দাসত্বের শিকার

৬ লাখ বাংলাদেশি দাসত্বের শিকার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::
বাংলাদেশের প্রায় ছয় লাখ মানুষ আজও দাসের মতো জীবনযাপনে বাধ্য হচ্ছেন বলে সম্প্রতি এক সমীক্ষায় উল্লেখ করা হয়েছে। সমীক্ষাটি বলছে, রাষ্ট্রের চাপিয়ে দেওয়া কারণে অথবা কোনো না কোনোভাবে এই মানুষগুলো নামমাত্র মজুরিতে দাসের মতো শ্রম দিতে বাধ্য হচ্ছেন। অথবা দালালের খপ্পরে পড়ে বাধ্য হচ্ছেন যৌনকর্মীর জীবনযাপনে, ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিয়ে করে কাটাচ্ছেন কৃতদাসীর জীবন।

অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক সংস্থা ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশন এসব মানুষের এই দুর্দশাকে বর্ণনা করেছে ‘আধুনিক দাসত্ব’ হিসেবে। বিশ্বের চার কোটির বেশি মানুষ এই দাসত্বের শিকার। আধুনিক দাসত্বের শিকার মানুষের মধ্যে সবচেয়ে দুর্দশাগ্রস্ত নারীরা। বলা হচ্ছে, আধুনিক দাসত্বের শিকার মানুষের মধ্যে নারী ও শিশু ৭১ শতাংশ; যেখানে পুরুষ ২৯ শতাংশ।
বৃহস্পতিবার ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশন গ্লোবাল স্লেভারি ইনডেক্স-২০১৮ প্রকাশ করেছে। এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে প্রতি হাজারে ৩.৬৭ জন মানুষ কোনো না কোনোভাবে ‘আধুনিক দাসত্ব’ শিকার হচ্ছেন। ১৬ কোটি মানুষের এই দেশে এ ধরনের দুর্দশায় পড়া মানুষের সংখ্যা প্রায় পাঁচ লাখ ৯২ হাজার। জনসংখ্যার আনুপাতিক হিসাবে বিশ্বের ১৬৭টি দেশের এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান এবার ৯২তম।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বজুড়ে যারা ‘আধুনিক দাসের’ জীবন কাটাতে বাধ্য হচ্ছে, তাদের অধিকাংশের বসবাস এশিয়ায়। আর মোট সংখ্যার হিসাবে সবচেয়ে বেশি আধুনিক দাসের বসবাস চীন, পাকিস্তান ও উত্তর কোরিয়ায়। এই সংখ্যা বিশ্বে আধুনিক দাসের মোট সংখ্যার ৬০ শতাংশ।
প্রতি হাজারে এ ধরনের দুর্দশায় শিকার মানুষের হার বিবেচনা করলে এবারের সূচকে সবচেয়ে খারাপ অবস্থানে রয়েছে উত্তর কোরিয়া। সেখানে প্রতি হাজারে ১০৪. ৬ জন আধুনিক দাসত্বের শিকার। এই তালিকার শীর্ষ দশে উত্তর কোরিয়ার পরে ধারাবাহিকভাবে এসেছে ইরিত্রিয়া, বুরুন্ডি, সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক, আফগানিস্তান, মৌরিতানিয়া, দক্ষিণ সুদান, পাকিস্তান, কম্বোডিয়া ও ইরান।

তবে আধুনিক দাসত্বের এই প্রচ্ছন্ন অপরাধ থেকে মুক্ত নয় উন্নত বিশ্বও। প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে ৪ লাখ, যুক্তরাজ্যের ১ লাখ ৩৬ হাজার, জার্মানির ১ লাখ ৬৭ হাজার, ফ্রান্সের ১ লাখ ২৯ হাজার মানুষ দাসের মত জীবন কাটাতে বাধ্য হচ্ছেন। ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশনের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এন্ড্রু ফরেস্ট বলেন, ‘আধুনিক দাসত্ব আধুনিক বিশ্বের তৈরি একটি সমস্যা। আধুনিক দেশগুলোই বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভোক্তা। তাদেরকেই এ সমস্যার সমাধান করতে হবে।’

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে আফগানিস্তানে প্রতি হাজারে ২২.২ জন, পাকিস্তানে হাজারে ১৬.৮ জন, মিয়ানমারে ১১ জন, ভারতে ৬.১ জন, নেপালে ৬ জন এবং শ্রীলঙ্কায় ২.১ জন আধুনিক দাসত্বের শিকার। এই দাসত্বের অবসানে সরকারের পদক্ষেপ ও তাতে সাফল্যের বিবেচনায় সূচকে বাংলাদেশকে দেয়া হয়েছে ‘বি’ রেটিং। এর অর্থ হলো বাংলাদেশ সরকার এ সমস্যায় সাড়া দিতে উদ্যোগী হয়েছে এবং কিছু মানুষকে সহায়তাও দিতে পারছে। ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থায় এমন কাঠামো যুক্ত করতে পেরেছে, যাতে কাউকে দাসের জীবনে বাধ্য করা হলে দোষী ব্যক্তিকে শাস্তির আওতায় আনা যায়। পাশাপাশি এ ধরনের দুর্দশাগ্রস্ত মানুষকে সহায়তা দিতে একটি নীতি কাঠামোও তৈরি করতে পেরেছে।

এই বিচারে বাংলাদেশের স্কোর একশর মধ্যে ৪৪.৪। তালিকায় ‘এ’ রেটিং পেয়ে সবচেয়ে ভালো অবস্থায় রয়েছে নেদারল্যান্ডস। দেশটির স্কোর ৭৫.২।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com