শনিবার, ২৫ Jun ২০২২, ০৫:৫৭ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
দক্ষিণ সুনামগঞ্জে গাছে বেঁধে দিনমুজুরকে মারধরের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে গাছে বেঁধে দিনমুজুরকে মারধরের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক :: দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার শিমুলবাঁক ইউনিয়নের নুরপুর গ্রামের দিনমুজুর পরিবারের এক শ্রমিককে গাছের সাথে বেঁধে মারধর করার প্রতিবাদে এবং মামলার আসামীদের গ্রেফতারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন আহত দিন মুজুরের পক্ষে চাচা মঈন উদ্দিন আহমেদ।

বুধবার দুপুরে সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগে মঈন উদ্দিন আহমেদ বলেন, তাঁর চাচা নাজিমুদ্দিন স্থানীয় নোয়াখালী বাজারের ব্যবসায়ী বরুন কান্তি রায়ের ধানের মিলে শ্রমিকের কাজ করেন। সম্প্রতি তিনি মিল মালিক থেকে ২ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে শশুরবাড়ি বেড়াতে যান। শশুরবাড়ি থেকে ফিরতে বিলম্ব হলে মিলের লেবার সর্দার নুরপুর গ্রামের সুজন মিয়া মোবাইল ফোনে নাজিমুদ্দিনকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। গত ৭ জুলাই দুপুুর অনুমান ২ ঘটিকার সময় শ্রমিক নাজিমুদ্দিন গালিগালাজের বিষয়ে সুজন মিয়ার পিতা সানুর আলীর কাছে জিজ্ঞাসাবাদ করতে গেলে নাজিমুদ্দিনকে আরো গালিগালাজ করা হয়। এক পর্যায়ে নাজিমুদ্দিন প্রতিবাদ করলে সানুর আলী তাকে কিলঘুষি ও লাটিপেটা করেন। পরবর্তীতে সন্ত্রাসী মুর্তাজ আলীর হুকুমে সংঘবদ্ধ চক্রের লোকেরা গ্রামের মসজিদের সামনে আটকাইয়া আকাশী গাছের সাথে বেঁধে বেধড়ক মারপিট করিয়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে। পরবর্তীতে গ্রামের আজিজুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি নাজিমুদ্দিনকে উদ্ধার করে বাড়ি নিয়ে যান।

এ ঘটনার পর পরই সংঘবদ্ধ চক্রের লোকজন নাজিমুদ্দিনের বাড়িতে গিয়ে আরেক দফা হামলা চালায়। ফলে নাজিমুদ্দিন ও তার সাথের রুবেল মিয়া গুরুতর আহত হন। এ ঘটনায় আহত নাজিমুদ্দিনের বড় ভাই নিজাম উদ্দিন বাদী হয়ে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় সকল আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন থানার মামলা নং-৭ তারিখ : ০৯/০৭/২০১৮ইং। উক্ত মামলায় সানুর আলীসহ তার তিন পুত্র কবির মিয়া, সুজন মিয়া ও নানুমিয়াকে আসামী করে নামাংকিত আরো কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

থানা পুলিশ মামলাটি এফআইআর গণ্যে আসামী গ্রেফতারের চেষ্ঠা করছে। মামলার আসামী ধরা ছোঁয়ার বাইরে থাকার কারণে এবং মামলা দায়েরের পর থেকে বাদীপক্ষকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য চাপ অব্যাহত রাখছে আসামী পক্ষ। ফলে জানমাল নিয়ে ভীষণ নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে দিনমুজুরের পরিবার। এ ব্যাপারে মামলার বাদীপক্ষ আসামী গ্রেফতার এবং ন্যায় বিচারে দৃষ্ঠান্তমুলক শাস্তির দাবি করেছেন। এ ব্যাপারে মামলার আসামী কবির মিয়ার মোবাইল ফোন নম্বরে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মামলার বিষয়টি স্থানীয় শালিশ বিচারে শেষ করা হয়েছে কিন্তু বাদীপক্ষ কেন যে মামলাটি তুলছেন না তা আমরা বুঝতে পারছি না। বাদীপক্ষ আমাদেরই আপনজন। মামলার তদন্তকারী অফিসার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার এসআই জিয়াউর রহমান বলেন, মামলায় বর্ণিত আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্ঠা চলছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com