শনিবার, ২৫ Jun ২০২২, ০৫:৫৭ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
বিশ্বকাপ ফুটবল’২০১৮ ও কিছু অভিব্যক্তি

বিশ্বকাপ ফুটবল’২০১৮ ও কিছু অভিব্যক্তি

মুহাম্মদ শাহজাহান

আমি বই পড়ি।বই আমাকে নতুন কিছু শিখতে সাহায্য করে, জানতে সাহায্য করে, বোঝতে সাহায্য করে; বই আমার বুদ্ধি আর সুকুমার বৃত্তিগুলোর বিকাশ ঘটায়। কবিতা কিংবা সাহিত্যের বইও আমি পড়ি; যার শৈল্পিক সৃজনশীলতা, সাহিত্যের রস আমি আস্বাদন করি। তেমনিভাবে নিজেকে করে তুলি আরো সমৃদ্ধ, আরো মানবিক; এভাবে আমি ধীরে ধীরে হয়ে উঠি মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন একজন সুস্থ-স্বাভাবিক মানুষে। সেই বইগুলোর লেখক হতে পারে দেশী কিংবা বিদেশী; বিষয়বস্তু হতে পারে ইতিহাস, ঐতিহ্য, জ্ঞান-বিজ্ঞান, ধর্ম-দর্শন, কবিতা কিংবা সাহিত্য। এমনি হাজারো লেখকের মধ্যে বিশিষ্ট কোনো লেখকের লেখা হতে পারে আমার বিশেষ প্রিয় আর সেই লেখক আমার প্রিয় লেখক; যার লেখা আমাকে আকৃষ্ট করে, আমাকে আলোড়িত করে, সর্বোপরি আমাকে দেখায় সুস্থ-স্বাভাবিক একটি সমৃদ্ধ জীবনের পথ। সেইসব লেখকের বই পড়ে হয়ত বা আমি কখনও কাঁদি, কখনও হাসি, কখনও বিমোঢ় হয় বসে থাকি; হাজারো কর্মব্যস্তার মধ্যে বইই আমার অবসরের বিশ্বস্ত সঙ্গী।

আমি গান শুনি। যে গান শুনতে শ্রুতিমধুর; সে শিল্পী হতে পারে দেশী কিংবা বিদেশী। গান হতে পারে রবীন্দ্র, লালন, নজরুল, আধুনিক, পল্লী, বাউল কিংবা আঞ্চলিক। হাজারো শিল্পীর মধ্যে সেসব শিল্পীদের গান আমি বেশী শুনি; যাদের গান আমাকে আন্দোলিত করে, মহোবিষ্ট করে।তাদের মধ্যে বিশিষ্ট কোনো শিল্পীর গান হয়ত বা আমি বেশি শুনি, বেশি পছন্দ করি; যার গানের সুর, তাল-লয়, রাগ-রাগিনীর আমি একনিষ্ট ভক্ত। সে শিল্পী আমার প্রিয় শিল্পী। এমনি শ্রুতিমধুর, সুললিত, রুচিসম্পন্ন হাজারো গান শুনে আমি আমার আত্মাকে আরো সতেজ, আরো প্রাণবন্ত করে তুলি; গান শুনে আমার অবসর সময়কে করে তুলি উপভোগ্য।

আমি ছায়াছবি ও নাটক দেখি। এক সময় প্রচুর ছবি দেখেছি প্রক্ষাগৃহে; আজ দেখি টিভিতে কিংবা কম্পিউটারের স্কীনে। ছবি কিংবা নাটকের বিষয়বস্তুর যেমন শেষ নেই; তেমনি তাদের অভিনেতা-অভিনেত্রীদেরও শেষ নেই। বাংলা, ইংরেজী, হিন্দি, উর্দূ ভাষায় নির্মিত ছায়াছবি কিংবা নাটক বেশি দেখি; যার মধ্যে শিক্ষনীয় যেমন থাকে তেমিন কিছু থাকে শুধুই বিনোদন মূলক। ঐতিহাসিক ঘটনা নির্ভর ছবিগুলো হয়ত বা আমাকে নিয়ে যায় সেই প্রাচীনযুগে কিংবা মধ্যযুগে; তন্ময় হয়ে দেখি একজন ছবি নির্মাতার নান্দনিক, সৃষ্টিশীল, শৈল্পিক নির্মাণ শৈলী। আমি এও দেখি একজন দক্ষ অভিনেতা কিংবা অভিনেত্রীর প্রাণবন্ত অভিনয়; যিনি তার অভিনয়ের মাধ্যমে জীবন্ত করে তুলেন একটি কল্পিত চরিত্রকে। সেই চরিত্রের সুখে আমি সুখি হই আবার সেই চরিত্রের দুঃখে আমি ব্যাথিত হই; কখনও হয়ত বা নিজের অজান্তেই দু’চোখ বেয়ে নেমে আসে অশ্রুধারা। সেই সব দেশী-বিদেশী অভিনেতা-অভিনেত্রীদের মধ্যে বিশেষ কোনো অভিনেতা-অভিনেত্রীর অভিনয়ের প্রতি থাকতে পারে আমার বিশেষ দুর্বলতা; যার রুচিসম্পন্ন সাবলীল অভিনয় আমাকে পরিতৃপ্ত করে, সে আমার প্রিয় অভিনেতা। ছায়াছবি কিংবা নাটক বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম; যা আমার অবসর সময়কে করে তুলে প্রাণবন্ত, প্রাণোজ্বল।

আমি খেলা দেখি। ফুটবলই আমার সবচেয়ে প্রিয় খেলা, বিশেষ করে বিশ্বকাপ ফুটবল শুরু হলে এখনও বসে পড়ি টিভি সেটের সামনে; যদিও আমার দেশ কোনো দিন বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি। মানসম্পন্ন দলের কিংবা একজন ভালো খেলোয়ারের খেলা আমি মনযোগ দিয়ে দেখি, উপভোগ করি; সে হতে পারে যে কোন দেশের, যে কোন জাতের। কে কোন দেশের, কোন জাতের সেটা একজন ফুটবল প্রেমীর কাছে বিবেচ্য নয়। একজন ভাল ফুটবলারের ক্রীড়ানৈপূণ্য আমাকে মুগদ্ধ করে; যেমন- সাবেক ফুটবলার পেলে, জিকো, মেরাডোনা, ক্যানেজিয়া, বাতিস্তুতা, রোমারিও, ব্যাজিও, রোনালদিনহো, রোনালদোদের সেই শৈল্পিক খেলা একসময় হা করে থাকিয়ে থাকিয়ে দেখতাম। আজকের মেসী, নেইমার, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, মু. সালাহ, থমাস মুলারের মত জনপ্রিয় ফুটবলারদের খেলা দেখে আমি অভিভুত হই। এতসব বিখ্যাত ফুটবলারদের মধ্যে হয়ত বা বিশেষভাবে কোনো ফুটবলারকে আলাদা ভাবে আমার ভাল লাগে; তার খেলার নৈপূণ্য, তার ক্ষিপ্রতা, তার স্টাইল, তার পেশাদারিত্ব, তার আচার-আচরণ আমাকে প্রভাবিত করে। আমি তার খেলার ভক্ত, সে আমার প্রিয় ফুটবলার। সে যে দলে খেলে অবশ্যই আমি চাইব সে দল জিতুক; সে দল জিতলে আমার মন খুশিতে ভরে ওঠে, সে দল হারলে আমার মন বিষাদে ভরে ওঠবে এটাই স্বাভাবিক। তবে কোনো দেশের অন্ধ সমর্থক আমি নই; কোনো দেশের সমর্থক বা ফ্যান হওয়া আমার পছন্দ নয়, আমি মনে করি খেলাধুলা বিনোদনের একটি অন্যতম মাধ্যম মাত্র। দু’টি দলের খেলায় এক দল যেমন জিতবে, তেমনি অন্য দলটি হারবে; প্রত্যেকেরই এই জয় কিংবা পরাজয় স্বাভাবিকভাইে মেনে নেওয়া উচিত।

কোনো দলের সমর্থক হয়ে সে দেশের পতাকা নিয়ে মিছিল করা, কোনো দলের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে গালিগালাজ করা, ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করা, কোনা খেলোয়ার কে নিয়ে টিটকারী করা, উপহাস করা; গাড়িতে-বাড়িতে সমর্থক দেশের পাতাকা টানানো, এসবই প্রমান করে আমাদের বুদ্ধির দেউলীয়াপনা। এসব দৃষ্টিভঙ্গী কোনো ভাবেই একজন সুস্থ-স্বাভাবিক মানুষের পরিচয় বহন করে না।

দৃষ্টি আকর্ষণ: মিশাল, অনিক, রিয়াজ সহ নাম না জানা কিশোর-তরুনেরা তোমরা সকলেই ভাল থেকো, তোমাদের জন্য অনেক অনেক শুভকামনা।
২২.০৬.২০১৮খ্রি:

লেখক: সমাজ সেবক ও ব্যবসায়ী, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ :

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com