বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৫:১৩ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
ঈদুল ফিতর – গ্রামীন সম্প্রীতি ও আনন্দ উৎসব

ঈদুল ফিতর – গ্রামীন সম্প্রীতি ও আনন্দ উৎসব

ফয়ছল আহমদ

রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের দীর্ঘ এক মাস ত্যাগ-তিতিক্ষা, আত্মশুদ্ধি ও মুসলিম উম্মাহর কঠোর ধৈর্যের পরীক্ষা সিয়াম সাধনার পরে প্রিয় বান্দাদের জন্য আল্লাহ তাআলা পুরস্কার সরূপ দিয়েছেন ঈদুল ফিতর। আল্লাহ তাআলা ঘোষণা দিয়েছেন যে বান্দা পরিপূর্ণ ভাবে রমজান শরীফের রোজা ও এবাদত বন্দেগী করতে পেরেছে সে ব্যক্তি ঈদুল ফিতরের দিন ঈদগাহের ময়দানে ঐরূপ পবিত্র ও গুণাহমুক্ত হয়ে উপস্থিত হবে যেরূপে সে পবিত্র ও গুণাহমুক্ত হয়ে জন্ম গ্রহণ করেছিল। মুমিন বান্দাদের জন্য আল্লাহ প্রদত্ত এর চাইতে বড় উপহার আর কি হতে পারে? এই সংবাদ নিশ্চই পরম আনন্দের! আর এই জন্যই ঈদের অর্থ আনন্দ। তবে ঈদুল ফিতরের আনন্দের সংবাদ তাদের জন্য দেওয়া হয়নি যারা আল্লাহ তাআলার নির্দেশ অমাণ্য করে রমজান শরীফের রোজা তরক করেছে। আল্লাহর আইন অমাণ্যকারীদের জন্য দুনিয়া ও আখেরাতে কঠোর শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে। তাদেরকে সতর্ক করা হয়েছে তারা যেন ঈদের দিন ঈদগাহে ঈদের নামাজে শরীক না হয়।
গ্রাম্য ঈদগাহে ঈদের নামাজের পূর্বে ঘোষণা করা হয় বিনা উজরে রোজা তরক করা কোন ব্যক্তি যদি ঈদগাহে উপস্তিত হয়ে থাকেন তাহলে দাড়ান নতুবা সাক্ষীপ্রমাণ সাপেক্ষে যদি কাউকে পাওয়া যায় তাহলে কঠোর শাস্তি পেতে হবে। অনেক সময় কেউ কেউ দাড়ায় এবং তার দোষ স্বীকার করে সংশোধনের প্রতিশ্রুতি দেয় আবার অনেক সময় প্রত্যক্ষদর্শী কেউ কারও বিরুদ্ধে সাক্ষী দিলে তখন তাকে দাড় করিয়ে প্রতিজ্ঞা করানো হয় যাতে এমন গর্হিত কাজ আর না করে। এটি বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলের ঈদের জামায়াতে পরিলক্ষিত হয়, শহরাঞ্চলে হয়ত এই রীতির প্রচলন তেমন একটা নেই। এতে একজন পাপিষ্ঠ ব্যক্তিকে জাহান্নামের হাত থেকে বাচাতে গ্রাম্য মানুষের ভালবাসা ও সম্প্রীতিরই বহিপ্রকাশ ঘটে।

আবার ঈদগাহে নামাজ আদায়ের পর একে অন্যের সাথে কোলাকুলি করে পুরনো দিনের কালিমা,রাগ,বিদ্বেষ,দুর করে নতুন ভাবে সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার শপথ নেন। একজন আর একজনের বুকের সাথে বুক মিলিয়ে কোলাকুলি করার পর আর কোন বিদ্বেষ বা রাগ থাকা তো দুরের কথা উপরন্তু পারস্পারীক ভালবাসা কয়েকগুণে বৃদ্ধি পাবে এতে বিন্দু পরিমানও সন্দেহ নেই আর মুসলিম উম্মাহর জন্য এটি একটি বিরাট সুযোগও বটে।

যাই হোক ঈদুল ফিতর যদিও মুসলিম উম্মাহর জন্য মহা খুশির বার্তা তবুও এই খুশিতে অন্য ধর্মাবলম্বীরাও সমান তালে শামিল হওয়ার পরিবেশ বা সংস্কৃতি বাংলাদেশে বিরাজমান। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ঈদের খুশি সমান তালে সকল ধর্মাবলম্বীদের উৎসবে শামিল করে। বাংলার প্রতিটি ঘরে ঘরে ঈদ বাঁধভাঙ্গা উচ্ছাস নিয়ে হাজির হয় আর এজন্যইত ঈদ একটি সর্বজনীন উৎসবে পরিনত হয়েছে। তবে শহর এবং গ্রামের ঈদের আনন্দ উদযাপন এবং উপভোগের ক্ষেত্রে রয়েছে তারতম্য ও বৈচিত্রময়তা। যেমন শহরে রমজানের মধ্যভাগ থেকেই শুরু হয় কেনাকাটার ধুম। এ সময় শহরের প্রতিটা পরিবারের সবাই শপিংমলে গিয়ে নিজেদের পছন্দ মত পোশাক কিনতে দেখা যায়। অপরদিকে গ্রামের সবার ক্ষেত্রে শপিংমলে গিয়ে কেনাকাটা করার সুযোগ হয় না। পিতার পছন্দমত পোশাকেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় আবার অনেকের নতুন পোশাক কেনার সামর্থই থাকে না। এক্ষেত্রে শহরের ঈদের আনন্দ একটু আগেই চলে অসে বলতে হয়। গ্রামের ঈদ যদিও একটু দেরীতে আনন্দ নিয়ে আসে তবে আনন্দের মাত্রা এবং বৈচিত্রতা থাকে একটু বেশী।

গ্রামের দরিদ্রদের জন্য গ্রামেরই বিত্তবানরা যাকাতের টাকা অথবা পোশাক পরিচ্ছদ বিতরণ করে পাড়া প্রতিবেশীদের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগী করে যেমন আনন্দ পান তেমনই দরিদ্ররাও সহযোগীতা পেয়ে পরম আনন্দে মেতে উঠে। আনন্দ এমন এক বিষয় ভাগাভাগীর মধ্যদিয়ে আনন্দ বহুগুণে বৃদ্ধি পায় যেটা গ্রামের মনুষ পুরোপুরি উপলব্দি করে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগী করে। ঈদুল ফিতরে গ্রামের হিন্দু মুসলিম সবাই সবার বাড়িতে নিমন্ত্রণ পান এবং সবার বাড়িতে সবাই ঘুরতেও যান। গ্রামের প্রতিটা বাড়িতে বাড়িতে ঈদের আগের দিন চালের গুড়া তৈরী করে নানান রকমের পিঠা তৈরী করা হয় যেমন: গুড়ের সন্দেশ,ডালের বড়া,নারিকেলের সমোচা,নারিকেলের বড়া ইত্যাদি নানান রকমের পিঠা তবে অঞ্চল ভেদে এর তারতম্যও আছে। পিঠাগুলির মধ্যে গুড়ের সন্দেশ সবাই তৈরী করবেই করবে। এটা না হলে গ্রামের ঈদ পরিপূর্ণ হবে না এমন ধারনা গ্রামের মানুষের বিশেষ করে সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলের গ্রামগুলাতে। পরের দিন সকাল থেকে মেহমান আসলে এইসব বাহারী পিঠা দিয়ে আপ্যায়ন করা হয় সাথে সেমাই পায়েশও থাকে তবে পিঠাটাই মুখ্য ভুমিকায় থাকে। গ্রামের এমন কোন পরিবার বাদ থাকে না পিঠা তৈরী থেকে। যদি কোন পরিবার পিঠা তৈরী করতে অসামর্থবান হয় তাহলে আশেপাশের প্রত্যেক বাড়ি থেকে এসব পিঠা আসতে থাকে একসময় দেখা যায় তাদের পিঠার পরিমান সবার সমানই হয়ে গেছে। গ্রামের ছেলে মেয়েদের মধ্যে এক ধরণের প্রতিযোগীতা চলে ঈদের দিন কে কার আগে গোসল করে নতুন জামা পড়তে পারে। অনেককে দেখা যায় রাত গভীর অন্ধকার থাকতেই গোসল সেরে ঈদের নতুন পোশাক পড়ে বীরের বেশে সবাইকে জানাতে বেড়িয়ে পড়ে তার আগে গোসলের বীরত্ব প্রমানে।

পৌষ মাসের কন কনে শীত উপেক্ষা করেও এই প্রতিযোগীতায় বিজয়ী হওয়া বা অংশগ্রহণ করা ঈদের আনন্দকে বহুগুণে বাড়িয়ে দেয় গ্রামের ছেলে মেয়েদের যে আনন্দ শহরের ছেলে মেয়েদের যান্ত্রীক জীবন যাপনে স্পর্শ করে না। নতুন জামা পড়ে তারা খুব ভোরেই দলবেধে বের হয় বড়দের সালাম করতে। বাড়ির সবাইকে সালাম করে করে সালামী আদায় করে তারপর ছেলেরা ঈদগাহে যায়। ঈদের দিন এবাড়ি ওবাড়ি ঘুরে ঘুরে সারাদিন আনন্দে কাটায় গ্রামের ছেলে মেয়েরা। বড়রা ঈদগাহ থেকে পাড়া প্রতিবেশীর বাড়ি বাড়ি গিয়ে কোশল বিনিময় করে মিষ্টিমুখে বাড়ি ফিরে আসেন। বর্ষার ঈদে গ্রামের মানুষ পরিবার পরিজন নিয়ে নৌকা ভ্রমণে বের হন। শহর থেকে আসা বন্ধু বান্ধব নিয়ে বন্ধুদের দল সারা দিন নৌকায় করে ধাপিয়ে বেড়ান আর পানিতে সাঁতার কেটে ঈদ উদযাপন করেন। প্রতি ঈদে দুর দুরান্তের শহর থেকে হাওরের বিশাল জলরাশি পরিদর্শনে পর্যটকরা এসে হাওরাঞ্চলের মানুষের ঈদ আনন্দ বাড়িয়ে দেন। নৌকায় করে থৈ থৈ পানিতে হাওরের পর হাওর ঘুরে বেড়ানো গ্রামের ঈদের আনন্দকে বহুগুণে বাড়িয়ে দেয়। হাওরের বিস্তৃত জলরাশিতে অবাধ বিচরণ করে গ্রামের মানুষ কক্সবাজারের জলরাশিতে সাঁতার কাটার সাধ মিটাতে পারেন এটা গ্রামের মানুষের জন্য সৌভাগ্য বটে বিশেষ করে হাওরাঞ্চলের মানুষের জন্য।

গ্রাম্য অকৃত্রিম ঈদ আনন্দ উপভোগ করতে শহর ছেড়ে গ্রামে পাড়ি জমান শহরের বাসিন্দারা। গ্রামের ঈদ আনন্দের স্থায়ীত্ব দীর্ঘ দিন বিরাজমান থাকে। মেয়েরা জামাই সমেত ঈদে বাবার বাড়িতে বেড়াতে আসেন। অনেকে মামার বাড়িতে বেড়াতে যান। কেউ বোনের বাড়িতে। এভাবে আত্মীয় বাড়ি ঘুরতে ঘুরতে গ্রামের ঈদ আনন্দ অনেক লম্বা হয়। গ্রামে সেটেলাইটের বিস্তৃতি কম হওয়ায় এখানে ঈদের আনন্দ বিটিভি’র নাটক,সিনেমা আর হানিফ সংকেতের জনপ্রিয় আয়োজন ইত্যাদির মধ্যমেই উপভোগ্য হয়। তাও সবার বাড়িতে টেলিভিশন থাকে না এক্ষেত্রে একে অন্যের বাড়িতে গিয়ে টিভি অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পারে। এখানে গ্রাম্য সম্প্রীতির বহিপ্রকাশ ঘটে। ঈদের দিন আসরের নামাজের পর গ্রামের হতদরিদ্ররা মসজিদের ফটকে এসে ভীর জমায়। গ্রামের ধনীরা সাধ্যমত এদিন আর্থিক সাহায্য করে থাকেন। গ্রামের কৃষক পরিবার এদিন মসজিদে চাল দিয়ে পাটান এবং সবার চাল একত্র করে গরীবদের মধ্যে বন্টন করে আনন্দিত করা হয়।

এসব দিক থেকে আমরা দেখতে পাই, শহরের চাইতে গ্রামের ঈদ আনন্দ অনেক বেশী ও বৈচিত্রময়তায় ভরপুর। আবার গ্রামে ঈদ বয়ে নিয়ে আসে পারস্পরীক সম্প্রীতি ও ভালবাসার অফুরন্ত সম্ভার। হাওরের থৈ থৈ পানির মত ভরে উঠুক গ্রামের ঈদ আনন্দ। ঈদ বয়ে নিয়ে আসুক সবার জীবনে অনাবিল সুখ আর শান্তি, সবার প্রতি অগ্রীম ঈদ শুভেচ্ছা রইলো।

লেখক- ফয়ছল আহমদ, প্রভাষক-ডুংরিয়া হাই স্কুল এন্ড কলেজ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com