রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:৪২ অপরাহ্ন

pic
সংবাদ শিরোনাম :
অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা সুনামগঞ্জের শান্ত কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক মনোনীত প্রথম দল হিসেবে বিশ্বকাপের কোয়ার্টারে নেদারল্যান্ডস আর্জেন্টিনাকে হারানোর ৩২ বছর পর ক্যামেরুনের ব্রাজিলবধ ২-০ গোলে হারিয়েও ঘানার সঙ্গে বিদায় উরুগুয়ের পর্তুগালকে হারিয়ে রোনালদোদের সঙ্গে দ্বিতীয় রাউন্ডে কোরিয়া ব্রাজিল সাপোর্টারদের মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা আর স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত শান্তিগঞ্জ শান্তিগঞ্জে বাংলাদেশ এনজিও ফাউন্ডেশন দিবস উদযাপন ২৮ তম বিসিএস ফোরাম সিলেট’র সভাপতি ডাঃ জসিম, সম্পাদক সাগর কোস্টারিকাকে ৪-২ গোলে হারিয়েও বিদায় জার্মানির
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
ধর্মপাশায় প্রধান শিক্ষককে লাঞ্চিতের অভিযোগ সাংসদ এর বিরুদ্ধে!

ধর্মপাশায় প্রধান শিক্ষককে লাঞ্চিতের অভিযোগ সাংসদ এর বিরুদ্ধে!

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় জনতা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক খানকে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের অনুষ্টান থেকে ডেকে নিয়ে লাঞ্চিত করলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। জানাযায়,গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে স্থানীয় জনতা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে আয়োজিত অনুষ্টানে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা দেওয়ার পরপরই প্রকাশ্যে ন্যাক্কার জনক এ ঘটনাটি ঘটান এমপি রতন। এ ঘটনার পরপরই ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক,শিক্ষার্থী ও অভিভাবকসহ এলাকার সর্ব-স্তরের লোকজনের মধ্যে এ নিয়ে নিন্দার ঝড় বইতে থাকে। পরে এরই প্রতিবাদে ওইদিন দুপুরে জনতা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনের সড়কের দুই পাশে প্রায় ঘন্টা ব্যাপী দাঁড়িয়ে থেকে ‘প্রতিকী প্রতিবাদ’ জানান ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।
জানা গেছে,মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে সোমবার সকাল থেকেই ধর্মপাশা জনতা মডেল উচ্চ বিদ্যালয় খেলার মাঠে বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করে উপজেলা প্রশাসন। উক্ত অনুষ্টানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। উক্ত অনুষ্টান চলাকালে সকাল সাড়ে নয়টার দিকে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সংবর্ধনা পর্ব শেষে এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন জনতা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে গিয়ে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক খানকে ডেকে এনে বিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে অকথ্য ভাষায় গাল মন্দ সহ হুমকি প্রদর্শন করেন । এ সময় উপজেলা প্রশাসন,পুলিশ প্রশান,স্থানীয় মুক্তিযুদ্ধাগণ,উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানে শিক্ষক-শিক্ষাথীসহ এলাকার শত-শত লোক উপস্থিত ছিলেন এবং এর পরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্য ফেইসবুকে সহ সারা এলাকায় বিষয়টি নিয়ে নিন্দার ঝড় ভয়তে তাকে। পাশাপাশি মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ছাত্রলীগের আলোচনা সভায় এঘটনার প্রতিবাদ জানান। এ ব্যাপারে জনতা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের নির্যাতিত প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক খান বলেন, আমাদের ওই বিদ্যালয়টি উপজেলা সদরে অবস্থিত এবং এটি ফলাফলের দিক দিয়েও উপজেলায় শীর্ষে অবস্থান করায় সরকার ওই বিদ্যালয়টিকে গত ২০১৪ সালে সরকারী করনের ঘোষণা দেয়া হয়। কিন্তু মাননীয় সাংসদ আমাদের ওই বিদ্যালয়টিকে সরকারী করন না করার পক্ষে অবস্থান নেন এবং তিনি উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৬ কিলোমিটার দূরে তাঁর নিজ এলাকায় অবস্থিত বাদশাগঞ্জ পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়কে সরকারী করণ করার জন্য একটি ডিও লেটার দেন। কিন্তু এমপি মহোদয়ের দেওয়া ওই ডিও লেটারটিকে চেলেঞ্জ করে আব্দুল মন্নাফ নামে আমাদের বিদ্যালয়ের এক ছাত্র অভিভাবক হাই কোর্টে একটি রিট আবেদন দায়ের করেন। এর পর থেকেই এমপি মহোদয় আমিসহ আমার বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের প্রতি বৈরী আচরন করে আসছেন। ওই শিক্ষক আরো বলেন,আমার বিদ্যালয়ের প্রায় ৩ হাজার শিক্ষার্থীর দাবির প্রেক্ষিতে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিদ্যালয় সংলগ্ন স্থানে একটি ক্যান্টিন নির্মাণের উদ্যোগ নেন এবং ওই কেন্টিনটি এখানে নির্মান না করার জন্য এমপি মহোদয় আজ আমাকে একটি জাতীয় অনুষ্টান থেকে ডেকে এনে শত-শত মানুষের সামনে এভাবে অপমান অপদস্ত না করলেও পারতেন।বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি আলমগীর কবীর বলেন,আমাদের এমপি সাহেব আজ এমন একটি অনুষ্টান থেকে ডেকে এনে উপজেলার সর্ব বৃহৎ একটি শিক্ষা প্রতিষ্টানের প্রধানকে এভাবে লাঞ্জিত করাটা অত্যন্ত দুঃখ জনক এবং এরই প্রতিবাদে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা তাৎক্ষণিকভাবে এ নেক্কার জনক ঘটনার প্রতীকী প্রতিবাদ জানিয়েছে এবং অনতিবিলম্বে এটি সুরাহা করা না হলে পরবর্তীতে এ নিয়ে আমরা বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি গ্রহণ করবেন বলে বলেও তিনি হুমকি দেন। উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ফখরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন,উপজেলার সুনামধন্য একটি শিক্ষা প্রতিষ্টানের প্রধান শিক্ষককে একজন সাংসদ এভাবে প্রকাশ্যে লাঞ্চিত করার বিষয়টি খুবই দুঃখজনক,এর র্তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান তিনি। এ ব্যাপারে স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, আমি ওই প্রধান শিক্ষককে ডেকে এনে শুধু বিদ্যালয়ের মাঠটি নষ্ট করে কেন্টিনটি নির্মাণ না করার জন্য তাকে সুন্দরভাবে বুঝিয়ে বলেছি। আমি তাকে কোনো ধরনের লাঞ্চিত করিনি।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com