বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
ডোবরা’র পানি আশঙ্কা, দক্ষিণ সুনামগঞ্জে দুঃশ্চিন্তায় কৃষকেরা

ডোবরা’র পানি আশঙ্কা, দক্ষিণ সুনামগঞ্জে দুঃশ্চিন্তায় কৃষকেরা

আলাল হোসেন,দক্ষিণ সুনামগঞ্জ:
হাওর পাড়ে বাস আর দুঃশ্চিন্তা থাকবে না তা যেনো হাওরবাসী নামের সাথে বেশ বেমানানই দেখায়। প্রকৃতির হেলার খেলায় আমাদের কৃষকদের কপালের সাথে যেনো ‘দুঃশ্চিন্তা’ তকমাটা লেগে আছে যুগযুগ ধরে। তাই গত বছরের ধান হারানোর দুঃশ্চিন্তা মাথায় রেখে যখন এবছর হাওর জোড়ে ধানের চাষ করেছে সাধারণ কৃষক এবং সরকার বাঁধ নির্মান করে দিচ্ছেন তখন স্বভাবতই চিন্তামুক্ত হওয়ারই কথা সাধারণ কৃষকদের। কিন্তু ঘটছে ভিন্ন কাহিনী। হাওরে ধানের ভালো ফলন হয়েছে। খুব আশাবাদী চাষীরাও। কৃষকদ্বারা বাঁধ নির্মান হওয়ায় মন্দের ভালো হয়েছে বাঁধের কাজও। আগাম বন্যায় হাওর তলাতে হলে একটু বেগ পোহাতেই হবে ‘সর্বনাশা পানিকে’। তবে এমন অবস্থায় কৃষকরা শঙ্কায় ভোগছেন জলাবদ্ধতার। ‘ডোবরার পানি’ এ বছর হাওরের সোনার ফসল নষ্ট করার আশঙ্কা করছেন সাধারণ মানুষ। অকাল বন্যার চিন্তা থেকে নতুন চিন্তয় পড়েছেন তারা। বলছেন,যে হারে হাওরের চারদিকে বাঁধ নির্মান করা হয়েছে তাতে বৃষ্টি এলে হাওরের ফসলের ক্ষেতে যে পানি জমা হবে তা বেরোবে কি করে। বেরোনোর কোনো রাস্তাও তো নেই। সব দিকে বাঁধ দেওয়া হয়েছে।’ এ অবস্থায় খুবই আশঙ্কায় ভোগছেন তারা। দক্ষিণ সুনামগঞ্জের ৮ ইউনিয়নের ছোট বড় প্রায় সব ক’টি হাওরে বাঁধ নির্মান করা হয়েছে। ‘ডোবরা’ বা জলাবদ্ধতার পানি নিষ্কাশনের জন্য খুব বেশি একটা পথ খোলা নেই। বৃষ্টি পড়লে অতিরিক্ত বৃষ্টির পানি কোন পথে বেরোবে তা নিয়ে এখন দিন যাপন করছেন কৃষকরা। পানি যদি ডুকে পড়ে যেমন ক্ষতি তেমনি প্রয়োজনের অতিরিক্ত পানি যদি বের করা না যায় তাও ফসল হানি ঘটবে বলে ধারণা কৃষকদের। এবং এটিই এখন ফসল হানির রড় আশঙ্কা দেখছেন তারা। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়,কৃষিবান্ধব এ সরকার পানি সেঁচের প্রস্তুতিও নিচ্ছে। যদি পরিস্থিতি এমন দাঁড়ায় যে,বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধতা বা ‘ডোবরার’ সৃষ্টি হয়ে ধান পানিতে তলিয়ে যায় তাহলে সরকারী ভাবে যত সম্ভব সেচ মেশিন বসানো হবে। এ নিয়ে সরকারের পদস্থ কর্মকর্তাদের মাঝে কার্যত আলোচনাও হচ্ছে। তবে কতটা সক্রিয়ভাবে এগুচ্ছে এসব আলোচনা তা জানা যায়নি। পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নের ঠাকুরভোগ গ্রামের সাধারণ কৃষক আলমগীল মিয়া বলেন,বাঁধ ডুবে এখন হাওর তলিয়ে যাবে এনিয়ে এখন আর ভাবছি না। ভাবছি,হাওর তলাবে এবার ডোবরার পানিতে। এখন যদি সরকার এর কোনো ব্যবস্থা না গ্রহণ করেন তাহলে সোনার ফসল এবারো নষ্ট হতে পারে।’পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের ডিগারকান্দি গ্রামের খাচিভাঙ্গা হাওরের কৃষক সিরাজুল ইসলাম বলেন,খাচিভাঙ্গা আর চুড়াভাঙ্গা মিলিয়ে ডিগারকান্দি, নাজিমপুর,ঘোড়াডুম্বুর,জালিয়া,হরিনগর ও আক্তাপাড়া গ্রামের প্রায় বিশ হাজার কৃষকের জমি আছে এ হাওরে। বাঁধ হয়েছে। আমরা তাতে খুশি। এখন নতুন চিন্তা হচ্ছে বৃষ্টি এলে ডোবরা বা জলাবদ্ধতায় হাওর তলাতে পারে। তাই সেচের আগাম প্রস্তুতি রাখতে সরকারকেই।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com