বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:০১ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
সুনামগঞ্জে ট্রাফিক পুলিশের লাইসেন্স বিহীন বেপরোয়া ইজিবাইক চলাচলে অভিযান

সুনামগঞ্জে ট্রাফিক পুলিশের লাইসেন্স বিহীন বেপরোয়া ইজিবাইক চলাচলে অভিযান

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::সুনামগঞ্জে বেপরোয়া লাইসেন্স বিহীন ইজিবাইক চলাচলে অভিযানে নেমেছে ট্রাফিক পুলিশ। শনিবার সকালে ট্রাফিক সার্জেন্ট ওলিউরের নেতৃত্বে শহরের বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে লাইসেন্স বিহীন ও অপ্রাপ্ত বয়স্ক চালক দ্বারা চালিত ২১ টি ইজিবাইক আটক করা হয়।
জানাযায়, সুনামগঞ্জ জেলা শহরের সড়ক আর অলিগলিতে ব্যটারি চালিত বেপরোয়া ইজিবাইকের চলাচল নাগরিক জীবন দুর্বিষহ করে তোলেছে। প্রতিদিন ঘটছে ছোট বড় দূর্ঘটনা। কেবল হতাহতের ঘটনাই নয়। শহরের ষোলঘর এলাকাতেই পর পর দুর্ঘটনা কবলিত হয়ে মৃত্যু হয়েছে শিশুসহ দুইজনের। শহর ছাড়াও পৌর এলাকার মল্লিকপুর, বড়পাড়া, নবীনগর,নতুনপাড়া ,ওয়েজখালী সহ ইজিবাইকের ধাক্কায় এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে বেশ কয়েক জনের, অধিকাংশ সড়ক অভ্যন্তরীন রাস্তায় পৌরসভার লাইসেন্স নিয়ে কিছু ইজিবাইক চললেও অনেক ইজিবাইক লাইসেন্স ছাড়া ও ছোট ছোট ছেলেদের দ্বারা চালাতে গিয়ে মর্মান্তিক দূর্ঘটনা ঘটছে বলে জানান শহরের সচেতন নাগরিকরা।
শহরের তেঘরিয়া এলাকার মো:তারা মিয়া বলেন, কয়েক হাজার ইজিবাইক চলছে শহরে তাদের নিয়ন্ত্রনে ট্রাফিক ব্যাবস্থা একেবারে নাজুক। ইজিবাইক চলাচল বন্ধে দায়িত্বশীল ও প্রশাসনিক পর্যায়ে কার্যকর ভুমিকা জরুরী বলে মনে করেন সচেতনরা।
গত ১৫ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় শহরের ষোলঘর এলাকায় ৪ বছরের স্কুল ছাত্র মুহুর্ত দাশ কে চাপা দেয় বেপরোয়া ইজিবাইক। এ ঘটনায় টিটু দাশের ছেলে মুহুর্তর মৃত্যু হয়। একই এলাকায় এর আগেও বেপরোয়া ইজিবাইকের চাপায় মৃত্যু হয় মিঠু নামের আরো একজনের। একের পর এক মৃত্যুর ঘটনা চলমান থাকায় ইজিবাইক বন্ধের দাবি জোড়ালো হয়ে উঠেছে।
সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার হাবিবুল্লাহ জুয়েল বলেন‘ যানবাহনের বিষয়টা মুলতো বিআরটিএ দেখে, তাদের মতে ইজিবাইক কোন ধরণের যানবাহনই না, কেননা এগুলো ইঞ্জিণ চালিত না, তার পরেও আমরা নাগরিক নিরাপত্তার বিষয়ে চিন্তা করে এদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাই আর এই অভিযান অব্যাহত রাখা হবে । আমাদের মতে অদক্ষ চালক দিয়ে ইজিবাইক পরিচালনা করে এবং প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে, কিন্তু আমরা যখন তাদেরকে আটক করি তখন পৌরসভা থেকে পাওয়া লাইসেন্স তারা সামনে আনে, এজন্য আমরা কিছু করতে পারি না, যেহেতু পৌরসভা এদেরকে বৈধতা দিচ্ছে সেহেতু পৌরসভাকেই এর ব্যবস্থা নিতে হবে।
সুনামগঞ্জ পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র হোসেন আহমদ রাসেল বলেন‘ আমার এলাকাতেই পর পর ২টি মৃত্যুর ঘটনা ঘটিয়েছে বেপরোয়া ইজিবাইক,একারণে আমি নিজেও এদের বেপরোয়া চলাচলে ক্ষুব্ধ,আমরা অনেকাংশেই এদের সংখ্যা কমিয়ে আনছি, ফিটনেস নেই এসব ইজিবাইক এবং অদক্ষ্য চালকদের ইজিবাইক চালাতে দিচ্ছিনা, আমাদের দেয়া লাইসেন্স খুব কম ইজিবাইকের, এরা বিভিন্ন সমিতির মাধ্যমে চলাচল করছে, এদেরকে শহরে চলাচল করতে দেয়া যায় কি না সে ব্যাপারে আমরা সুশিল সমাজ ও প্রশাসনের দায়িত্বশীলদের নিয়ে শীঘ্রই আলোচনায় বসছি, আর যেহেতু ষোলঘর পয়েন্ট কে নিয়ে সদ্য প্রয়াত মেয়র আয়ূব বখত জগলুলের একটা পরিকল্পনা ছিলো যে এ পয়েন্ট কে আরো প্রশস্থ করা এবং রাস্তার উপর থেকে সবজি ও মাছের বাজার সরিয়ে নেয়া সে বিষয়টি নিয়েও আমরা কাজ শুরু করেছি। আশা করছি এ পয়েন্ট কে আমরা প্রশস্থ করে দিলে এখানে দুর্ঘটনার মাত্রা কমে যাবে’।
এদিকে, বৃহস্পতিবার ইজিবাইক চাপায় শিশু মৃত্যুর ঘটনার পর থেকে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হচ্ছে সুনামগঞ্জে। বেপরোয়া ইজিবাইক চলাচল বন্ধে ষোলঘর পয়েন্ট এলাকায় মানববন্ধন ও সড়ক অবরোধ করে স্থানীয় এলাকাবাসী।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com