মঙ্গলবার, ০৩ অগাস্ট ২০২১, ০৯:৫৯ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এর ছোয়ায় বদলে যাচ্ছে ২ উপজেলা

প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এর ছোয়ায় বদলে যাচ্ছে ২ উপজেলা

স্টাফ রিপোর্টার :: স্বাধীনতার পর থেকে এই আসনে যত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছে তার আগে এতো উন্নয়ন আর হয়নি। ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী এম.এ মান্নান এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর পাল্টে যেতে থাকে এই এলাকার চিত্র।এরপর ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আবারো বিপুল ভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এম.এ মান্নান। পরবর্তী তিনি বাংলাদেশ সরকারের অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান।বর্তমান সরকার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর স্থানীয় সংসদ সদস্য এম.এ মান্নান এর হাত ধরে উন্নয়নের ছোয়ায় পাল্টে যাচ্ছে প্রবসী অধ্যষিত ও হাওর বেষ্টিত দুই উপজেলা দক্ষিণ সুনামগঞ্জ -জগন্নাথপুর। স্বাধীনতা ৪০ বছরে যে উন্নয়ন হয়নি গত ছয় বছরে সেই উন্নয়ন হয়েছে বলে দাবী করেছেন এই এলাকার জনগণ। রাস্তাঘাট-মসজিদ-মন্দির-মাদ্রাসার উন্নয়নের পাশাপাশি দক্ষিণ সুনামগঞ্জ- জগন্নাথপুরের মানুষের স্বাস্থ্যসেবায় হাসপাতালের আসন বৃদ্ধি, দুই উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন স্থাপন, দুই উপজেলা সড়কে দৃষ্টি নন্দন ব্রীজ-কালভার্ট নির্মান, অধিকাংশ এলাকায় সাইক্লোন শেল্টার, প্রত্যেক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঘূর্নিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণ ইত্যাদি। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ এর সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী তহুর আলী বলেন, বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের উন্নয়নে আন্তরিকতার কারনে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুরে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। যুবলীগ নেতা জুবেল মিয়া বলেন, মাননীয় প্রতিমন্ত্রী এম.এ মান্নান যেভাবে এই এলাকার উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত করেছেনে তা সরকারের ভাবমূর্তিকে উজ্জল করেছে।

আজ উন্নয়নের ছোয়ায় পাল্টে গেছে এ দুটি উপজেলার দৃশ্যপট। কয়েক বছরের মধ্যে গ্রামে গ্রামে পাকা রাস্তা, বিদ্যুৎ ব্যবস্থা, সৌর বিদ্যুৎ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো নির্মানে পুরদস্তুর পাল্টে গেছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ  ও জগন্নাথপুর উপজেলা। এ সবের কারিগর স্থানীয় সংসদ সদস্য ও অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম.এ মান্নান। তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বদলে গেছে এ দুটি উপজেলার মানুষের জীবনচিত্র।
এলাকাবাসীর ভাষ্য গত ৯ বছরের এ দুই উপজেলায় সব রাস্তায় প্রায় পাকা হয়ে গেছে। অনেকে চ্যালেঞ্জ চুড়ে বলেন, এখন আর কাচা রাস্তা নেই এ দুই উপজেলায়। যেখানে আগে কাঁচা রাস্তা পর্যন্ত ছিল না, সেখানে এখন ইউরোপ আমেরিকার আদলে পাকা সড়ক। ভাঙা-চোরা মাটির রাস্তার বদলে কার্পেটিং রাস্তা। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের সঙ্গেও নেই দাঙ্গা-ফ্যাসাদ, হানা-হানি! অনেকটায় শান্তিময় এখন এ দুটি উপজেলা। এলাকার বাসিন্দারা বলেন, দুই উপজেলার আমূল পরিবর্তনের ‘নায়ক’  প্রতিমন্ত্রী এম.এ মান্নান। আগেও টার্মে এমপি থাকা অবস্থায় এলাকার উন্নয়নে নেমে পড়েন তিনি। আর প্রতিমন্ত্রী হওয়ার পর উন্নয়নের মাত্রা যোগ হয়। শুধু তার প্রচেষ্টায় নানা মূখি উন্নয়ন শুরু হয় দুটি উপজেলা। এ উন্নয়নের স্পর্ষ করে প্রতিটি গ্রামের পাড়া-মহল্ল থেকে অলিগলি পর্যন্ত। রাস্তা ঘাট নির্মাণ ও সংস্কার, ব্রীজ-কালভাট স্থাপন, স্যানিটেশন স্থাপন, স্কুল ঘর নির্মাণ ও সংস্কার এবং মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ উল্লেখযোগ্য। স্থানীয় লোকজন মনে করছেন, জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জের মানুষ প্রতিমন্ত্রী এম.এ মান্নানের উন্নয়নে অনেক খুশি। তারা মনে করেন সুযোগ্য নেতৃত্বের কারণে এসব উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। সংশ্লিষ্ঠ সূত্রে জানা গেছে, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর দক্ষিণ সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর ১ টি পৌর সভা, পল্লী বিদ্যুৎ অফিস এবং ১৬ ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন (পিআইও) আফিস ছাড়াও বিভিন্ন সরকারি দফতরের মাধ্যমে গত ৮ বছরে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। উন্নয়নের ছোয়া লেগেছে এ দুটি উপজেলার হাওর পাড়ের গ্রামগুলোতেও। গ্রামে গ্রামে কাচা রাস্তা নিয়ে দীর্ঘদিন জনদুর্ভোগে থাকার পর সবগুলো পিচঢালা পথে রূপান্তরে স্বস্তি ফিরে পেয়েছেন দুই উপজেলার মানুষ।
স্থানীয়রা বলেছেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর এ দুটি উপজেলায় গত ৯ বছরে অসংখ্য উন্নয়ন মূলক কাজ হয়েছে। উন্নয়নের এ ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে লোকজন আবারও এম.এ মান্নান কে মূল্যায়ন করবে। মুল্যায়ন করবে বর্তমান সরকারকে। প্রতিমন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ এম.এ মান্নান এর রাজনৈতিক সচিব হাসনাত হোসাইন জানান, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও জগন্নাথপুর উপজেলার তৃণমূল লোকজনের চাহিদা বিবেচনা করে প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান মহোদয় উন্নয়ন কাজে হাত দিয়েছেন। তিনি বলেন, বিগত ও বর্তমান সরকারের আমলে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক সহযোগীতায় শুধু দক্ষিণ সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর নয়, বৃহত্তর সিলেটেও ব্যাপক উন্নয়ন করা হয়েছে। আগামি অর্থ বছরেও এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে এবং বৃদ্ধি পাবে। তিনি বলেন, শুধু রাস্তা-ঘাট নয়, গ্রামীণ অবকাঠাম উন্নয়নের জন্য বয়স্ক ভাতা, বিধাব ভাতা এবং মাতৃত্বকালীন ভাতার সংখ্যাও বাড়ানো হয়েছে।
এ দুটি উপজেলায় বাস্তবায়ন হতে চলে শতভাগ বিদ্যুতায়নের কাজ। প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস জানিয়েছেন, সড়কসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সৌর বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন থেকে শুরু করে এবং টিয়ার-কাবিখা কর্মসুচির মাধ্যমে অসংখ উন্নয়ন মূলক কাজ করেছেন। অপর দিকে কৃষি, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য বিভাগসহ উপজেলার অন্যান্য দফতরের মাধ্যমেও ঘটেছে বৈপ্লবিক পরিবর্তন। স্থাপন করা হয়েছে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন ও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার।

সরেজমিন এ দুটি উপজেলা ঘুরে উন্নয়নের চিত্র দেখা গেছে। প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এর একান্ত প্রচেষ্টায় সুনামগঞ্জে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ব বিদ্যালয় একনেকে  অনুমোদিত হয়েছে, সুনামগঞ্জে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের অনুমোদিত হয়েছে। দক্ষিণ সুনামগঞ্জের নোয়াখালিতে কালনী নদীর উপর সেতু নির্মাণের কাজ দ্রুত চলছে, জগন্নাথপুর ড্রেনের জন্য ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। ডাবর তেকে আউশা কান্দি মহা সড়ক এর কাজ পুনঃসস্কার হচ্ছে, সুনামগঞ্জ পৌর কলেজের কাজ বাস্থবায়ন হচ্ছে। দক্ষিণ সুনামগঞ্জে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কাজ শুরু হবার পথে, দক্ষিণ সুনামগঞ্জে মডেল থানা নির্মাণ হয়েছে, দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের কাজ শেষ হয়েছে, দক্ষিণ সুনামগঞ্জে উপজেলা রাসেল মিনি স্টেডিয়াম কাজ সম্পন্ন হয়েছে, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স হয়েছে, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাব স্থায়ী বিল্ডিং এর কাজ হচ্ছে, উন্নয়নের ফলশ্রুতিতে বদলে যাচ্ছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও জগন্নাথপুরসহ দুই উপজেলা। সুনামগঞ্জে সুরমা সেতু নির্মাণেও প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এর অবদান আছে। শুধু সুরমা সেতু নয় সিলেটের মধ্যে বৃহত্তর কুশিয়ারা নদীর উপর সেতু নির্মানেও রয়েছে প্রতিমন্ত্রী এম.এ মান্নান এর  একক অবদান।দক্ষিণ সুনামগঞ্জ  উপজেলা কৃষি অফিস মারফত জানা যায়, উপজেলা পর্যায়ে সরকারি ভাবে নানামুখি সেবা প্রদানের ক্ষেত্র কৃষি বিভাগ। এ খাতে সরকারের পর্যাপ্ত ভর্তুকি থাকে। যা প্রাপ্তিতে কোনো ঘাটতি পড়েনি। কৃষি অফিসের দেয়া তথ্যমতে, কৃষিতে জড়িত দুই উপজেলার ৮০ ভাগ মানুষ। এখানকার প্রধান অর্থকারী ফসলের মধ্যে অন্যতম হলো ধান, টমেটু মিষ্টি কুমড়া ও আলুসহ বিভিন্ন ধরনের সবজি। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, উপ-স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, কমিউনিটি ক্লিনিক ও পরিবার পরিকল্পনা উপকেন্দ্র সংস্কার ও উন্নয়ন করেছেন প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। এ সব ক্লিনিক এবং উপকেন্দ্রে নিরলস ভাবে সেবা প্রদান কার্যক্রম অবহত রয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, এম.এ মান্নান এর সঠিক সিদ্ধান্ত ও দক্ষতার কারনে দুটি উপজেলার মানুষ সবদিক দিয়ে এখন অনেক খুশি। তারা অনেকে স্বাচ্ছন্দ জীবন যাপন করছেন।
যোগাযোগ করা হলে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি বলেন, তৃণমূল মানুষের চাহিদা বিবেচনা করে বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কাজ করার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক সহযোগীতায় শুধু দক্ষিণ সুনামগঞ্জ -জগন্নাথপুর নয়, বৃহত্তর সিলেটেও ব্যাপক উন্নয়ন করা হয়েছে। আগামিতেও এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com