রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:২৭ অপরাহ্ন

pic
সংবাদ শিরোনাম :
অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা সুনামগঞ্জের শান্ত কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক মনোনীত প্রথম দল হিসেবে বিশ্বকাপের কোয়ার্টারে নেদারল্যান্ডস আর্জেন্টিনাকে হারানোর ৩২ বছর পর ক্যামেরুনের ব্রাজিলবধ ২-০ গোলে হারিয়েও ঘানার সঙ্গে বিদায় উরুগুয়ের পর্তুগালকে হারিয়ে রোনালদোদের সঙ্গে দ্বিতীয় রাউন্ডে কোরিয়া ব্রাজিল সাপোর্টারদের মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা আর স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত শান্তিগঞ্জ শান্তিগঞ্জে বাংলাদেশ এনজিও ফাউন্ডেশন দিবস উদযাপন ২৮ তম বিসিএস ফোরাম সিলেট’র সভাপতি ডাঃ জসিম, সম্পাদক সাগর কোস্টারিকাকে ৪-২ গোলে হারিয়েও বিদায় জার্মানির
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
আজ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮ তম জন্মদিন

আজ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮ তম জন্মদিন

স্টাফ রিপোর্টার,মোঃ আবু সঈদ:
আজ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯ তম জন্মদিন। তার সম্মানে দিবসটিকে জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে পালিত হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিশুদের খু্ব ভালবাসতেন। শিশুরাই জাতির ভবিষ্যৎ। তাই শিশুরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনকে শিশু দিবসের দাবি জানালে ১৯৯৬ সালে ১৭ মার্চকে জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বাধীন বাংলাদেশের স্হপতি, বাঙ্গালী জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালের ঐ দিনে ফরিদপুর জেলার(বর্তমান গোপালগঞ্জ জেলা)গোপালগঞ্জ মহকুমার মধুমতি নদীর তীরে অবস্হিত টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। প্রতি বছর যথাযোগ্য মর্যাদা ও উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে দিবসটি উদযাপন করা হয়। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে জড়িয়ে পড়েন। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতা সংগ্রাম পর্যন্ত যত আন্দোলন তার অগ্রনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, বিশ্ব বরেণ্য একজন মহান নেতা। তিনি ছিলেন বাঙ্গালী জাতির গর্ব,অসাধারণ প্রজ্ঞার অধিকারি সেই মহানায়ক। তার জন্ম না হলে বাংলাদেশের জন্ম হত না,যার জন্ম না হলে স্বাধীনতা আসত না,যার জন্ম না হলে হয়তো আমাদেরকে আজও পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর করাল গ্রাসে নির্যাতনের স্বীকার থাকতে হত ইতিহাসের সেই মহানায়ক শেখ মুজিবুর রহমান। অকুতোভয় সাহসী বীর,দুরদৃষ্টি সমম্পন্ন অপরিসীম তীক্ষ বুদ্ধির অধিকারি। হে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-সবুজের সমারোহে লাল সবুজের পতাকা একে তুমি আছ বাংলার মানুষের হৃদয়ে বিশ্বের মানচিতে জেগে তুলেছ বাংলার পতাকা,পরিচয় দিয়েছ বাঙ্গালী জাতির যার নাম রেখেছিলে তুমি হৃদয়ে বাংলাদেশ। বুকের গভীরে স্বাধীনতার স্বপ্ন একে ধাপে ধাপে পাড়ি জমিয়ে ছিলে স্বাধীনতার পথে। তুমিইতো ছিলে দেশপ্রেমিক ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে। তোমার প্রেরণায় আজ বাংলাদেশ উন্নয়নের মহাহাসড়কে। বসন্তের এই নতুন পাতার ন্যায় তুমি নতুনত্ব জীবনে আগমণ ঘটিয়ে ছিলে নিদারুন চৈত্রের সন্ধ্যালগ্নে আলোকিত করছিলে তুমি এই পৃথিবীর আকাশ।সবাই আদর করে নাম রেখেছিলেন খোকা। তরু-তমালে সুশোভিত ছায়া-ঢাকা,পাখি-ডাকা ফুল-ফসলে সমৃদ্ধ নয়ন জুড়ানো পরিবেশে বেড়ে উঠেছিলে শৈশবে শেখ বাড়ির শেখ বংশে। শিশুকাল থেকেই যার মন মানুষের সেবায় উৎস্বর্গ করেছেন,বিলিয়ে দিয়েছেন অভাবী মানুষদের খাবার। ১৯৩৮ সালে কৃষিমেলা উদ্ভোধনকালে গোপালগঞ্জ মিশন স্কুলে পুলিশ বেষ্ঠিত মন্ত্রীর পথ আগলে বসে তাক লাগিয়েছিলেন অবিভক্ত বাংলার প্রধানমন্ত্রী শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক ও শ্রমমন্ত্রী হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীকে।সাহসিকতায় মুগ্ধ হয়ে ডেকে নিলেন ডাকবাংলোয়। গোপালগঞ্জে মুসলিম ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করে বঙ্গবন্ধুকে করা হলো সম্পাদক। যার হাত ধরে রাজনীতির শুরু তিনি হলেন রাজনীতির গুরু হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী । ১৯৪৬ সালে মুসলিম জনমত গঠনে কাজ করেন। ১৯৫৪ সালে নদীমাতৃক বাংলাদেশে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে জয়লাভ করে হয়েছিলেন পল্লী উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রী। সেই নৌকা প্রতীক নিয়ে ৭০ সালে বিজয় এনেছিলেন।
৬দফা আন্দোলন,৬৯ এর গণঅভ্যূথান,আগরতলা ষড়যন্ত মামলা থেকে মুক্তি পাওয়ার পর ১৯৬৯ সালে বঙ্গবন্ধু উপাধি দেওয়া হয়। ১৯৬৯ সালের ৫ই ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু পূর্ব পাকিস্তানের নামকরণ করেন বাংলাদেশ। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামীলীগ বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে সরকার গঠন করতে না পারায় প্রতিবাদে শুরু হয় অসহযোগ আন্দোলনের। যার ডাকে সারা দিয়ে ৭ই মার্চ ১৯৭১ সালে মানুষের ঢল নামলো রেসকোর্স ময়দানের দিকে। বাঙ্গালী জাতির প্রাণ পুরুষ বঙ্গবন্ধু উত্তাল জনসমুদ্রে সভামঞ্চে উপস্হিত হলে শ্লোগানে প্রকম্পিত হয়েছিল বাংলার-আকাশ-বাতাস। বঙ্গবন্ধু তাদের শুনায়েছিলেন মুক্তির বাণী। এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। বঙ্গবন্ধুর আবেগ মথিত ভাষণ মুক্তিকামী মানুষকে অনুপ্রাণিত করে ছিল। বাংলার মানুষের অধিকার আদায়ের ভাষণ স্হান করে নিল ইতিহাসের পাতায়। রক্ত যখন দিয়েছি,আরো রক্ত দেব। এদেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাল্লাহ। সেই মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক বঙ্গবন্ধুর এই অলিখিত ভাষণটি ছিল সুবিন্যস্ত। বিশ্বের ইতিহাসে দলিল হিসেবে জাতিসংঘের ইউনেস্কো কর্তৃক “মেমোরী অব দা ওযাল্ডইন্টান্যাশনাল” হিসেবে স্বীকৃতি পেল। বাঙ্গালী জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা ২৫ শে মার্চ মধ্যরাতে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ঝাঁপিয়ে পড়লে বাংলার স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। তার ডাকে লক্ষ লক্ষ বীর বাঙ্গালী মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে ৩০লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে আমরা অর্জন করেছি স্বাধীনতা। স্বাধীনপ্রাপ্ত দেশের সূচনার গতিধারা বজায় রেখে দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছিল তার সেই অগ্রযাত্রা স্বাধীনতা বিরোধী চক্র সহ্য করতে পারেনি। তাই সাড়ে তিন বছরের মাথায় রাতের অন্ধকারে বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করে। ঘাতকেরা বঙ্গবন্ধুর দেহ থেকে প্রাণ কেড়ে নিলে ও তিনি প্রতিটি বাঙ্গালীর হৃদয়ে বেঁচে থাকবেন চিরকাল।আমরা তাকে শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করি এবং তার আত্মার রুহের মাগফেরাত কামনা করি।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com