মঙ্গলবার, ২৮ Jun ২০২২, ০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
চারদিকে শুধু পানি, মরদেহ দাফন করতে পারেননি সুনামগঞ্জের অনেকে

চারদিকে শুধু পানি, মরদেহ দাফন করতে পারেননি সুনামগঞ্জের অনেকে

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্কঃ সুনামগঞ্জে কবর দেওয়ার মতো ভাসা জায়গা না পেয়ে পাঁচদিন পর দাফন করা হলো আশরাফ আলীর মরদেহ। শহরতলির সুরমা ইউনিয়নের ইব্রাহিমপুর গ্রামের কবরস্থানের সামান্য অংশ ভেসে ওঠায় বুধবার (২২ জুন) দুপুরে তাকে দাফন করা হয়।

ওই গ্রামের সাজন মিয়ার মরদেহ পাঁচদিন ধরে কফিনবন্দি। কবরস্থানের অন্য অংশ ভেসে উঠলে সেখানে বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) তাকে দাফন করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বজনরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) থেকে উজানের ঢল ও প্রবল বর্ষণে সুনামগঞ্জ শহরসহ প্রতিটি গ্রাম প্লাবিত হয়। শুক্রবার (১৭ জুন) ভোরের দিকে হঠাৎ করে ঢলের পানি চার থেকে পাঁচ ফুট উচ্চতায় বাড়ি-ঘরসহ জনপদে প্রবেশ করতে থাকে। পরিস্থিতি এতই ভয়াবহ আকার ধারণ করে যে একতলা ঘরবাড়ি মুহূর্তেই পানির নিচে চলে যায়। উঁচু কবরস্থান-শ্মশানেও গলা থেকে তার চেয়ে বেশি উঁচুতে পানি ছিল। এ অবস্থায় স্বজনদের মরদেহ কফিনে ঢুকিয়ে কবরে নিয়ে বেঁধে রেখেছিলেন কেউ কেউ।

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের ইব্রাহিমপুর গ্রামের বাসিন্দা ইব্রাহিম মিয়া জাগো নিউজকে বলেন, ‘গত শুক্রবার ইব্রাহিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আশ্রয়কেন্দ্রে আমার বাবার মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু চারদিকে বন্যার পানি। কবর দেওয়ার মতো জায়গা নেই। সেজন্য বাবার লাশ কফিনে ঢুকিয়ে কবরে নিয়ে বাঁশ কোপে (খানিকটা খুঁড়ে) বেঁধে রেখেছি।’

সুনামগঞ্জ পৌর শহরের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মৃত ব্যক্তির এক স্বজন (সনাতন ধর্মাবলম্বী) জানান, সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে নাতিনের বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে একজন নারীর মৃত্যু হয়। তিনদিন পর মরদেহ সুনামগঞ্জের শ্রীপুরে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। কিন্তু চারদিকে বন্যার পানি থাকায় তার মরদেহ দাহ করা যায়নি। তাই মরদেহ পাথর বেঁধে নদীতে ডুবিয়ে দেওয়া হয়।

সুরমা ইউনিয়নের ইউপি মেম্বার গিয়াস উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, ‘৫-৬ ইউনিয়নের মধ্যে মরদেহের কবর দেওয়ার মতো কোনো ভাসা জায়গা ছিল না। আজ পানি কমেছে। এজন্য একজনের কবর দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আরেকজনকে কাল কবর দেওয়া হবে।’

jagonews24

বুধবার শহরতলির ইব্রাহিমপুরে মরদেহ উদ্ধার করতে দেখা যায় কোস্টগার্ডের একটি দলকে। কোস্টগার্ডের কর্মকর্তা লে. সাব্বির জানান, মরদেহ দাফনের জায়গা না পেয়ে পাঁচদিন ধরে মরদেহ নিয়ে বসে আছে দুটি পরিবার। তাদের সহায়তা করতে এসেছে কোস্টগার্ড।

কেবল এ তিনজন নয়, স্বজনের খোঁজ নেই, কিংবা মৃত স্বজনের মরদেহ নিয়ে বেকায়দায় পড়েছিলেন সুনামগঞ্জের লাখো বানভাসির অনেকে।

সুত্রঃ জাগোনিউজ২৪ ডটকম

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com