বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৪:৫৫ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
বন্যা পরিস্থিতি ও আমাদের করনীয়

বন্যা পরিস্থিতি ও আমাদের করনীয়

সম্প্রতি আকস্মিক ভাবেই অতিরিক্ত বৃষ্টিপাত এবং পাহাড়ি ঢলের কারনে সিলেট বিভাগের বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে বন্যা পরিস্থিতি। এখন পর্যন্ত উজান থেকে পাহাড়ি ঢল নামা এবং ক্রমাগত বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে যার ফল স্বরূপ ইতিমধ্যেই বন্যা পরিস্থিতি ভয়াভহ রূপ ধারন করেছে। সিলেট জেলার প্রায় প্রত্যেক উপজেলার বিভিন্ন লোকালয় পানির নিচে তলিয়ে আছে।

ভারতের মেঘালয় এবং আসাম প্রদেশের সীমান্তবর্তী এলাকা হিসেবে খ্যাত আমাদের এই উত্তরপূর্বাঞ্চল। ভৌগলিক কারনে পাহাড়ি অঞ্চলের পাদদেশে অবস্থিত হওয়ায় এই এলাকায় প্রায় প্রত্যেক বর্ষা মৌসুমে নানান ভোগান্তি পোহাতে হয় জনগনকে। বিশেষ করে সুরমা, কুশিয়ারা, সারি নদীর অববাহিকায় গড়ে উঠা বাজার, লোকালয় সবসময়ই হুমকির মুখে পড়ে কেননা পাহাড়ি ঢল নামার অন্যতম প্রাকৃতিক “ড্রেনেজ ওয়ে” হলো এই নদীগুলো।

সম্প্রতি অপরিকল্পিত শহরায়ন এবং বিভিন্ন হাওর, খাল ভরাট হয়ে যাওয়ায় রীতিমতো হুমকির সম্মুখীন সমগ্র জীববৈচিত্র্য। এছাড়াও নতুন করে উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে নদী দূষণ, তার মধ্যে সুরমা প্লাস্টিক দূষণে মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ। সুরমা অববাহিকায় নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়ায় নদীর নাব্যতা সংকট দেখা দিয়েছে এবং অল্প পানির চাপেই নদীর কূল ছড়িয়ে পানি লোকালয়ে প্রবেশ করে। যার ফলে প্রায় প্রত্যেক বছরই নদীর কূল ঘেষা সাধারন মানুষ বর্ষা মৌসুমে ভোগান্তির শিকার হোন।

তবে উজান এলাকা খ্যাত উঁচু অঞ্চল থেকেও সবচেয়ে ভয়ানক পরিস্থিতি তৈরী হয় হাওরাঞ্চলে। ভৌগলিক ভাবে সারা বাংলাদেশের মধ্যে সুনামগঞ্জ জেলা, কিশোরগঞ্জ ও ময়মনসিংহ হাওরের জন্য বিখ্যাত। এই অঞ্চল গুলো দিয়ে পুরো বর্ষা মৌসুমের পাহাড়ি ঢলের পানি প্রবাহিত হয়। কিন্তু সবচেয়ে প্রান্তিক (অর্থনৈতিক ভাবে ভঙ্গুর) এলাকা হিসেবে পরিচিত এইসব নিচু এলাকা বা হাওরঞ্চল। একটি কথা এখন মোটামুটি সত্য বলেই প্রমানিত হয়ে গেছে যে হাওরাঞ্চলে পানি বাড়লে বা বন্যা পরিস্থিতি তৈরী হলে দীর্ঘমেয়াদি বন্যার সৃষ্টি হয় যা ক্ষয়ক্ষতির পরিমান অনেক গুণ বাড়িয়ে দেয়। বিগত কয়েক বছর ধরেই হাওরাঞ্চলে এরকম অবস্থার তৈরী হয়।
এর একটি অন্যতম কারন হলো হাওরে অপরিকল্পিত ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মান যা জীববৈচিত্র্য সহ সমগ্র পরিবেশে বিরূপ প্রভাব সৃষ্টি করছে।

এই রকম পরিস্থিতি কয়েক বছর ধরে সৃষ্ট হলেও এ নিয়ে নেই কোন দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা এবং সফল বাস্তবায়ন। আমরা দেখি যে কোন দূর্যোগ আসলেই আমাদের রাজনীতিবিদদের তোড়জোড় বেড়ে যায়, এটা অবশ্যই ইতিবাচক দিক যে তখন অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়ান কিন্তু বিঘ্ন সৃষ্টি আমরা তখনই করি যখন এই “সাহায্য ” কে সস্তা ট্রেন্ড বানিয়ে ফেলি! দেখা যায় যে কোন দূর্যোগেই এক শ্রেণীর কিছু সংখ্যক নাম সর্বস্ব রাজনীতিবিদরা ক্রমাগত একচেটিয়া সুযোগ সুবিধা (দূর্নীতি-লোটপাট) করতে থাকেন। এটা অবশ্যই আমাদের প্রচলিত নষ্ট রাজনৈতিক সংস্কৃতির দায়।

বছরের পর বছর প্রকৃতি এমন বিরূপ আচরণ দেখিয়ে আমাদের বারবার মনে করিয়ে দিচ্ছে আমাদের কি করা প্রয়োজন।
প্রথমত, একটি দীর্ঘমেয়াদি বন্যা নিয়ন্ত্রণ এবং হাওর রক্ষা পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং বাস্তবায়ন দরকার।

দ্বিতীয়ত, পরিবেশ দূষণ এবং নদী রক্ষার তাগিদে বিশেষ করে নদী খনন, দূষণ রোধ, অবৈধ ভাবে নদী,খাল,বিল হাওর দখল করে স্থাপনা তৈরী রোধ ইত্যাদি বিষয়ে ব্যাবস্থা নিতে হবে।

তৃতীয়ত, সরকারের যেমন এসব বিষয়ে সদিচ্ছা প্রয়োজন তেমন করে সকল স্তরের রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন গুলোকে এগিয়ে আসতে হবে এবং জনসচেতনতায় প্রয়োজনীয় প্রচার কাজ অব্যাহত রাখতে হবে।

চতুর্থত, আসন্ন বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারি সকল বিভাগকে সমন্বিত ভাবে প্রস্তুতি এবং কাজ পরিচালনা করতে হবে। অনেক সময় সরকারি বিভিন্ন বিভাগের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কারনে জনদূর্ভোগ এবং ভোগান্তি বাড়ে সুতরাং এদিকে নজর রাখতে হবে।

পঞ্চমত, সমাজের সকল স্বাবলম্বী মানুষদের এগিয়ে আসতে হবে বন্যাদূর্গতদের পাশে।

বিশেষ করে জরুরি ঔষধ, শুকনা খাবার মজুদ রাখার ব্যাবস্থা করতে হবে। কোন ভাবেই যেন পানি বাহিত, বায়ু বাহিত রোগ না ছড়ায় সেদিকে স্বাস্থ্য বিভাগের বিশেষ নজরদারি প্রয়োজন। স্থানীয় প্রশাসন অবশ্যই দূর্যোগ মোকাবেলায় আন্তরিক হয়ে কাজ করবে এই প্রত্যশা রইলো।

 

লেখক: পংকজ চক্রবর্ত্তী জয়
শিক্ষার্থী ও ছাত্র সংগঠক
মুরারি চাঁদ (এম,সি) কলেজ, সিলেট।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com