শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১, ১১:০২ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
দোয়ারাবাজারে ভাঙ্গনের মুখে আলীপুর বাজার

দোয়ারাবাজারে ভাঙ্গনের মুখে আলীপুর বাজার

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্কঃ পাহাড়ি খরস্রোতা খাসিয়ামারা নদী এখন কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের আলীপুর বাজার ও আশপাশের বাসিন্দাদের। অব্যাহত ভাঙ্গনে বাজারভিট ও দোকানপাটসহ পার্শ্ববর্তী অনেক বসতবাড়ি ইতোমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

নদীর পানি যতই নিচে নামছে ভাঙন ততই বাড়ছে। কিছুদিনের মধ্যে বাকি স্থাপনাগুলোও বিলীনের আশংকা করছেন স্থানীয়রা। তবে ভাঙ্গনরোধে আজও কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

স্থানীয়রা জানান, আলীপুর বাজারটিতে ব্যবসানির্ভর এলাকার শতাধিক পরিবার। গত ক’বছর আগেও বাজারে যাদের ভিটেমাটি দোকানপাট ছিল, ভাঙনের তীব্রতায় সেগুলো বিলীন হয়ে গেছে খাসিয়ামারা নদীগর্ভে। শুধু তাই নয়, আশপাশের বিস্তীর্ণ ফসলি জমি, বসতবাড়ি ও প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন স্থাপনাও আজ হুমকির মুখে।

স্থানীয়রা আরও জানান, নদীতীরের অদূরে দোকানি সিরাজ মিয়ার একমাত্র দোকানভিটে ব্যবসা চালিয়ে কোনো মতে চলতো তার সংসার। স্বল্প আয়ের তার একমাত্র অবলম্বনটুকুও নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এখন অন্যত্র ভারাটে দোকানে ব্যবসা টিকিয়ে রেখেছেন তিনি।এছাড়া একই গ্রামের জাহের মিয়া, নানু মিয়া, দুলাল মিয়া, ভানু বিবি, ফিরুজ আলীসহ অনেকের দোকানভিট ও বসতবাড়ি চলে ওই রাক্ষুসে খাসিয়ামারা নদীর পেটে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আলীপুর বাজারের দক্ষিণ-পূর্ব দিকে মৎস্যচাষী আব্দুর রহিমের বিল্ডিংটি সহসা নদী গর্ভে বিলীন হতে পারে। ভাঙনরোধে তার নিজ অর্থে গাইড ওয়াল বসিয়েও ভাঙন থামেনি। পার্শ্ববর্তী ভানুবিবির বসতবাড়ির সিংহভাগ নদীগহ্বরে চলে গেছে। ভাঙনরোধে নদীর পাড়ে বাঁশ ও ইকড় গাছ লাগিয়েছেন স্থানীয়রা। পার্শ্ববর্তী টিলাগাঁও গ্রামের মন্নাফ ডাক্তারের দোকানভিট, ফিরুজ আলীর বসতবাড়িটিও রয়েছে ঝুঁকির মুখে।

স্থানীয় আ’লীগ নেতা ও ব্যবসায়ী আব্দুর রহিম বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে গাইড ওয়াল নির্মাণ করেও ভাঙন রুখতে পারিনি। ভাঙ্গনরোধে দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে ওই বাজারটির অস্তিত্বই থাকবেনা।’

স্থানীয় সমাজকল্যাণ সংগঠন সদস্য জামাল মিয়া বলেন, ‘আমাদের সংগঠনের কার্যালয় নদী ভাঙনের মুখে। সহসা বিলীন হওয়ার শঙ্কা রয়েছে।’

মুদি দোকানি সিরাজ মিয়া বলেন, ‘আমার দোকান ঘর, ভিটে হারিয়ে এখন ভাড়াটে দোকানে ব্যবসা করছি। ভাঙনরোধে সরকারি উদ্যোগ নিলে হয়তো আমার দোকানভিটটি রক্ষা পেতো।’

নদীপাড়ের বাসিন্দা ভানুবিবি বলেন, ‘আমাদের বসতবাড়ি, ফসলি জমি ও দোকানভিট কয়েক দফা ভাঙনে বিলীন হয়ে গেছে। এখন সামান্য যেটুকু আছে তাও বিলীনের পথে। আমাদের আর কোথাও যাওয়ার জায়গা নাই। খাসিয়ামারা নদী ভাঙ্গনরোধে দ্রুত কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণের দাবি জানাই।’

সুরমা ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মামুনুর রশীদ বলেন, ‘খাসিয়ামারা নদী ভাঙ্গনে আলীপুর বাজার ও আশাপাশের এলাকা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। যেভাবে ভাঙন বাড়ছে দ্রুত কোনো পদক্ষেপ না নিলে আশপাশের বাসিন্দা ও ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। ভাঙ্গনরোধে দ্রুত কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের সুদৃষ্টি কামনা করছি।’

পাউবো’র দোয়ারাবাজার উপজেলা শাখার উপসহকারী আবু সায়েম সাফিউল ইসলাম জানান, ‘খাসিয়ামারা নদীভাঙনের বিষয়ে এখনও কেউ কিছু জানায়নি। তবে আমরা ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে জরুরি পদক্ষেপ নিতে আমাদের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবো।’

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com