বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:২৩ পূর্বাহ্ন

pic
সংবাদ শিরোনাম :
অপু বিশ্বাসের বিষয়ে মুখ খুললেন বুবলী মুফতি ইব্রাহীমের বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে, কাল তোলা হবে আদালতে শান্তিগঞ্জে শেখ হাসিনার জন্মদিনে বৃক্ষরোপণ ও খাদ্য বিতরণ করলো ছাত্রলীগ চেয়ারম্যান প্রার্থী সামছুল ইসলাম রাজা’র উদ্যেগে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন শান্তিগঞ্জে কাপ‌ড়ের রং দি‌য়ে আইস‌ক্রিম তৈ‌রির দায়ে ৩ ফ্যাক্টরিকে জ‌রিমানা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিনে দেওয়ান ফরিদ গাজী স্মৃতি সংসদের দোয়া মাহফিল নানা আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন করলো শান্তিগঞ্জ ছাত্রলীগ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিনে শান্তিগঞ্জ আ.লীগের কেক কাটা ও আলোচনা সভা শেখ হাসিনার জন্মদিনে শান্তিগঞ্জ আ.লীগের কেক কাটা ও আলোচনা সভা আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষে শান্তিগঞ্জে আলোচনা সভা
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
মাগফিরাতের দশ দিন: রমজান ইবাদতের মাস

মাগফিরাতের দশ দিন: রমজান ইবাদতের মাস

প্রেমময়ের সান্নিধ্য লাভের অবারিত সুযোগ নিয়ে আসে রমজান। এ মাসে খোদার রহমতের ফল্গুধারায় মুমিন-মুত্তাকির অন্তর সিক্ত হয়। মানবগ্রহে সাম্য, সম্প্রীতি, সহানুভূতি ও সহমর্মিতার ঐশী আবহ তৈরি করে সিয়াম। সিয়াম সাধনায় মাটির মানুষ পরিণত হন সোনার মানুষে। শত কর্মব্যস্ততার মাঝেও আপন প্রভুর সামনে সিজদাবনত হওয়ার, দোয়া, তাসবিহ-তাহলিল, তাওবা ইস্তিগফার করার সুযোগ তৈরি করে দেয়।

এ মাসে আল্লাহর কাছে সব রকমের ইবাদতের গুরুত্ব অনেক বেশি। হাদিসে এ মাসে ইবাদতের গুরুত্ব বর্ণিত হয়েছে এভাবে :

ক. এ মাসে একটি ওমরাহ করলে একটি হজ আদায়ের সওয়াব হয় এবং তা রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর সঙ্গে হজ আদায়ের মর্যাদা রাখে। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘রমজান মাসে ওমরাহ করা আমার সঙ্গে হজ আদায় করার সমতুল্য’। [বুখারি : ১৮৬৩]।

খ. রমজানে ইবাদতে রাত জাগরণের ফজিলত বিশেষভাবে বর্ণিত হয়েছে। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি ইমানের সঙ্গে নেকির প্রত্যাশায় রমজানের রাত জাগরণ করবে তার অতীতের গুনাহগুলো মাফ করে দেওয়া হবে।’ [বুখারি : ৩৭; মুসলিম : ৭৬০]।

গ. রমজানের শেষ দশকে রাসূলুল্লাহ (সা.) বিশেষভাবে ইবাদতে মনোনিবেশ করতেন। হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘রাসূলুল্লাহ (সা.) রমজানের শেষ দশকে বেশি বেশি ইবাদতে মনোনিবেশ করতেন, যতটা তিনি অন্য দিনগুলোতে করতেন না।’ [মুসলিম : ১১৭৫]।

ঘ. হজরত আয়েশা (রা.) থেকে আরও বর্ণিত হয়েছে, তিনি বলেন, ‘রমজানের শেষ দশক এলে রাসূলুল্লাহ (সা.) তার লুঙ্গি শক্ত করে বাঁধতেন এবং তিনি এর রাতগুলোতে নিজে জাগতেন আর পরিবারকেও জাগাতেন।’ [বুখারি : ২০২৪]।

ঙ. রাসূল (সা.) বলেন, ‘এটা ধৈর্যের মাস। আর ধৈর্যের প্রতিদান জান্নাত। এটা সমবেদনার মাস। এ মাসে মুমিনের রিজিক বৃদ্ধি করে দেওয়া হয়। যে ব্যক্তি তার অধীনের কাজের ভার লাঘব করবে, আল্লাহ তাকে ক্ষমা করবেন এবং জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেবেন।’ [বায়হাকি]।

চ. প্রিয় নবি (সা.) বলেন, ‘হে লোকজন, এ মাসে চারটি জিনিসের ওপর খুব গুরুত্ব দাও এবং বেশি বেশি করে কর। ১. কালিমা তাইয়্যেবা-‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু’। ২. ইস্তিগফার তথা ক্ষমা প্রার্থনা। ৩. জান্নাত চাওয়া। ৪. জাহান্নাম থেকে মুক্তি কামনা করা। [মেশকাত : ১/১৭৪, বায়হাকি, শুয়াবুল ইমান ৩/৩০৫]।

সুতরাং পবিত্র এ মাসটিতে সিয়াম পালনের পাশাপাশি সার্বক্ষণিক খোদার ধ্যানে নিমগ্ন থাকা, রাত জেগে ইবাদত-বন্দেগি করা, সিজদাবনত থাকা এবং যথাসাধ্য কুরআন তিলাওয়াত ও বুঝে বুঝে কুরআন পড়া সব মুসলমানের কর্তব্য। যাতে রাসূল (সা.)-এর আদর্শ অনুযায়ী রমজান মাস কাটাতে পারি এবং আল্লাহতায়ালার নিয়ামত ও হেদায়েত থেকে আমরা পূর্ণরূপে লাভবান হতে পারি। আল্লাহতায়ালা আমাদের তাওফিক দান করুন। আমিন।

লেখক : অধ্যক্ষ, দারুল উলুম ঢাকা, মিরপুর ১৩

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com