বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৩:৫৩ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
আমেরিকার স্বপ্ন ভেঙে দুঃস্বপ্ন ট্রাম্প

আমেরিকার স্বপ্ন ভেঙে দুঃস্বপ্ন ট্রাম্প

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্কঃ চার বছর আগে ৪৫তম আমেরিকান প্রেসিডেন্ট হিসাবে শপথ নেন বিদায়ি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তখন অভিষেক ভাষণে তিনি বলেছিলেন, ‘আমেরিকান হত্যা-ধ্বংসযজ্ঞ’ শেষ করবেন।

কিন্তু ২০ জানুয়ারি বুধবার নিজের হেলিকপ্টারে শেষবারের মতো হোয়াইট হাউজ ছেড়ে যাওয়ার সময় ট্রাম্প দেখবেন তার মেয়াদের বর্জ্য-জঞ্জাল সরানোর মতো অবস্থানেও নেই।

আমেরিকান স্বপ্ন দেখিয়ে আসা ট্রাম্প আমেরিকার দুঃস্বপ্ন হয়ে ফিরছেন মসনদ থেকে। ‘আমেরিকা আগে’ গো তুলে কমপক্ষে ১৫০ বছর পেছনে নিয়ে গেছেন আমেরিকার গণতন্ত্র। জাতীয়তাবাদ ছন্দ তুলে শ্বেতাঙ্গ-কৃষ্ণাঙ্গ বৈষম্যে ভেঙে দুই ভাগ করেছেন মার্কিন ঐক্য। রাষ্ট্রের ভেতর আরেক রাষ্ট্রের সৃষ্টি করেছেন গত চার বছরে। এএফপি।

প্রেসিডেন্ট হওয়ার আগ থেকেই নিজেকে ‘জিনিয়াস’ হিসাবে তুলে ধরতে পছন্দ করতেন ট্রাম্প। তার বক্তব্য ছিল-তিনি এমন সব কাজ করতে পারবেন যা অন্য কোনো প্রেসিডেন্টের পক্ষে সম্ভব হয়নি। আমেরিকানদের হত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ চিরতরে বদলে দেবেন। কিন্তু বিদায়বেলায় মেরিন ওয়ান হেলিকপ্টার থেকে ট্রাম্প দেখবেন মার্কিন রাজধানী সামরিক বাহিনীর ক্যাম্পে পরিণত হয়েছে।

৬ জানুয়ারি ট্রাম্পের অন্ধ সমর্থকরা ক্যাপিটলে তাণ্ডব চালানোর কারণে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের শপথকে সামনে রেখে পুরো ওয়াশিংটন নিরাপত্তা চাদরে। দেশজুড়েও বাড়তি নিরাপত্তা নিতে হয়েছে।

ন্যাশনাল গার্ডের সেনারা অটোমেটিক রাইফেল তাক করে পাহারা দিচ্ছেন ওয়াশিংটনের রাস্তা। যেন ইরাকের বাগদাদের মতো ব্লক করে রাখা খালি রাস্তা এগুলো। অন্য আমেরিকানদের হাত থেকে আমেরিকানদের রক্ষায় ওয়াশিংটন ডিসিতে আফগানিস্তান থেকেও বেশি সেনা মোতায়েন করতে হয়েছে।

এ যেন নজিরবিহীন এক উপাখ্যান। ট্রাম্প কল্পনাও করতে পারবেন না ২০১৭ সালে তার অভিষেকের সময়ের কংগ্রেস ভবন ও আশপাশের এলাকার দৃশ্য আর তার পরের প্রেসিডেন্টের অভিষেকের সময়ের দৃশ্যের মধ্যে কত পার্থক্য!

ক্ষমকায় আসার সময় ট্রাম্প বলেছিলেন ‘আমরা এত বেশি বিজয় অর্জন করতে যাচ্ছি, আপনারা জয়ের আনন্দে ক্লান্ত হয়ে যাবেন।’ কিন্তু বুধবার সকালে পরাজয়ে ক্লান্ত নগরী রেখে যাচ্ছেন তিনি। তিনি একমাত্র প্রেসিডেন্ট যিনি এক মেয়াদে দুবার অভিশংসিত হয়ে ব্যতিক্রম নজির গড়েছেন।

আর হোয়াইট হাউজ ও কংগ্রেসের উভয় কক্ষ- প্রতিনিধি পরিষদ ও সিনেট, সবখানে রিপাবলিকান নয়; কেবলই ডেমোক্র্যাটদের জয়জয়কার। জর্জিয়ায় দুটি রিপাবলিকান সিনেট আসন হারানোর পেছনেও ট্রাম্পের দায় কম নয়।

অবশ্য সব দোষ একা ট্রাম্পের নয়। করোনা মহামারিরও ভূমিকা আছে। চীন থেকে আসা ভাইরাসটিতে চার লাখের বেশি আমেরিকান প্রাণ হারিয়েছেন। সব কিছু লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। অন্যান্য দেশে ক্ষতি হলেও করোনা আমেরিকার ক্ষতি করেছে সবচেয়ে বেশি। সংকট কাটাতে ট্রাম্পের অপব্যবহারকে দায়ী করা হলেও তার মতো আর কোনো প্রেসিডেন্টকে এত খারাপ সংবাদ শুনতে হয়নি।

২০১৬ সালে আমেরিকানরা ভাবতেও পারেননি যে ট্রাম্প তাদের প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন। হিলারি ক্লিনটনের মতো জনপ্রিয় প্রার্থীকে হারিয়ে ইলেকটোরাল ভোটের জোরে জেতেন তিনি। ২০১৮ সালে নিজেকে ‘স্মার্ট নয় বরং জিনিয়াস, খুবই জিনিয়াস’ বলে তুলে ধরেন ট্রাম্প।

ট্রাম্প হচ্ছেন পাগলাটে, মিথ্যাবাদী ও দাম্ভিক-অহঙ্কারী। ২০১২ সালে এক টুইটে তিনি বলেন, ‘যখন কেউ আমাকে আক্রমণ করে, আমি ১০০ গুণ বেশি পালটা আক্রমণ করি। এটাই জীবনের পদ্ধতি।’ মিথ্যা, পাগলাটে ও শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ব মনোভাব দিয়ে তিনি আমেরিকাকে দুই মেরুতে বিভক্ত করে ফেলেছেন।

ওয়াশিংটন পোস্টের ফ্যাক্টচেক টিম বলছে, ৩০ হাজারের বেশি মিথ্যা বা ভুল তথ্য তুলে ধরে তিনি উগ্র সমর্থকদের খেপিয়েছেন। নিজেকে ও নিজের সমর্থকদেরও তিনি নজিরবিহীনভাবে ‘বেটার’ বলতেন। তার ব্লু-কলার সমর্থকদের তিনি বলেন, ‘আমরা হচ্ছি এলিট।’ স্বৈরচারী ও অহঙ্কারী একনায়কদের সঙ্গে তালমিলিয়ে চলেছেন তিনি।

করোনাভাইরাসের আক্রমণে প্রথমে অদেখা এই শত্রুকে পাত্তাই দেননি ট্রাম্প। শেষ পর্যন্ত এই অদেখা শত্রুর কাছে তাকেও পরাজিত হতে হয়েছে। গত অক্টোবরে করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি।

শেষ পর্যন্ত ট্রাম্পের অহঙ্কার চূর্ণ হয়ে যায় ৩ নভেম্বর ভোটে দ্বিতীয় মেয়াদে ভোটাররা তাকে প্রত্যাখ্যান করার মধ্য দিয়ে। প্রতারণা ও কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচনের ফল উলটে দেওয়ার জন্য সমর্থকদের উসকে দেন ট্রাম্প।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com