বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:২৭ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
জগন্নাথপুরে রাজাকার পুত্র ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি প্রার্থী

জগন্নাথপুরে রাজাকার পুত্র ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি প্রার্থী

স্টাফ রিপোর্টারঃ  সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নের রাজাকার ছাইম উদ্দিনের ছেলে আপ্তাব উদ্দিনও ওই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হতে চান। এনিয়ে আওয়ামী অঙ্গনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। শিগগিরই এ ইউনিটের কমিটি ঘোষণা করা হবে বলে দায়িত্বশীলরা জানিয়েছেন। এজন্য প্রার্থীদের ব্যক্তিগত ও পারিবারিক আমলনামা যাচাই-বাচাই চলছে।

জানা যায়, ছাইম উদ্দিনের গ্রামের বাড়ি ওই ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামে। স্থানীয় মাতব্বর হওয়ায় স্বাধীনতা বিরোধীদের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে পাক বাহিনীর সাথে হাত মেলান তিনি। তখন পাক বাহিনীর সঙ্গে সখ্যতা থাকার কারণে ৭১-সালে স্থানীয়দের জুলুম-নির্যাতন ও লুটপাট চালান। এতে বিপুল সম্পত্তিরও মালিক বনে যান। ফলে একাধিক বিয়েও করেন রাজাকার ছাইম উদ্দিন। কেউ কেউ বলছেন তিনি ৩টি বিয়ে করেছেন। আবার কেউ কেউ বলছেন কয় বিয়ে করেছেন সেটার হিসেব নেই। মুক্তিযুদ্ধ শেষে সুনামগঞ্জের প্রখ্যাত লেখক ও আইনজীবি বজলুর মজিদ খসরুর সম্পাদিত ‘রক্তাক্ত ৭১ সুনামগঞ্জ’ বইয়ের ১৮২নং পৃষ্টা ও সাংবাদিক অপূর্ব শর্মা সম্পাদিত ‘সিলেটে যুদ্ধাপরাধী ও প্রাসঙ্গিক দলিলপত্র বইয়ে ছাইম উদ্দিনের নাম একাত্তরের রাজাকার হিসেবে উল্লেখ রয়েছে। রাজাকার পুত্র আপ্তাব উদ্দিন প্রথমে জাপা (এরশাদ) এর রাজনীতি করলেও ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দেন। বাগিয়ে নেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ। দীর্ঘদিন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পদে থাকায় গেল কিছুদিন পূর্বে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্টিত হয়। সম্মেলনে কমিটি বিলুপ্ত করা হলেও নতুন কমিটি ঘোষণা হয়নি। এতে ফের সভাপতি হওয়ার জন্য প্রার্থিতা ঘোষণা দেন রাজাকারপুত্র আপ্তাব উদ্দিন। রাজাকার ছাইম উদ্দিনের ১ম স্ত্রীর জৈষ্ঠ্যপুত্র আপ্তাব উদ্দিনও বাবার মতো ৩টি বিয়ে করেছেন। প্রথম স্ত্রী গ্রামের বাড়ি জালালপুরে থাকেন, দ্বিতীয় স্ত্রী পাশ্ববর্তী উপজেলার ইনাতগঞ্জে থাকেন আর তৃতীয় স্ত্রী থাকেন ওই ইউনিয়নের হাড়গ্রামে।

এদিকে, আপ্তাব উদ্দিন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী হওয়ায় আওয়ামী অঙ্গনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। দায়িত্বশীলদের মধ্যে কেউ কেউ কেন্দ্রীয় নির্দেশনানুযায়ী রাজাকারদের উত্তরসূরিদের কমিটিতের ঠাঁই না দিতে আহŸান জানিয়েছেন। আর যারা অনুপ্রবেশকারী তাদের ওই কমিটির মাধ্যমে বের করে দিতে হবে। তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা জানিয়েছেন সবকিছু যাচাই-বাচাই করে কমিটি অনুমোদন করা হবে।

এ ব্যাপারে আপ্তাব উদ্দিন জানান, আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার হচ্ছে। হিংসাত্মক ভাবে আমার বাবাকে রাজাকারের তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। কে বা কারা আমার বাবার নামে এরকম অপপ্রচার চালিয়ে ফায়দা হাসিল করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

এবিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বদরুল ইসলাম জানান, আমরা এখনও কমিটি দেয়নি। উপজেলার যে কোনো ওয়ার্ডে দলীয় কমিটিতে রাজাকারের বংশধরদের জায়গা দেয়া হবে না। প্রধানমন্ত্রী কঠোরভাবে নির্দেশ দিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের শত্রুরা যেন দলে জায়গা না পায়।

এ বিষয়ে কথা বলতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আকমল হোসেনের মুঠোফোনে কল দিলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া গেলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু জানান, আমরা এখনও কমিটি দেইনি। যাচাই করে যদি দেখা যায় রাজাকারে বংশধরের মধ্যে কেউ দলে আশ্রয় নিতে চেষ্টা করছে তবে অবশ্যই দলের সিনিয়র নেতাদের সাথে আলাপ করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এবং প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী আওয়ামীলীগে রাজাকারের বংশধরদের জায়গা হবে না।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com