মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৯:২৬ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
কোয়েল পাখিতে ভাগ্য বদল করলেন বানিয়াচংয়ের বশির

কোয়েল পাখিতে ভাগ্য বদল করলেন বানিয়াচংয়ের বশির

জসিম উদ্দিন: 

ঘরের কাছে যেতে না যেতেই শোনা গেল পাখির কিচিরমিচির শব্দ। ভিতরে ঢুকে দেখা গেল মেঝেতে অসংখ্য সুন্দর কোয়েল পাখির বাচ্চা। ভিতরের রুম থেকে বের হয়ে আসলেন মধ্যবয়সী এক ব্যক্তি। লাইট জ্বালিয়ে দিলেন তিনি। ছোটাছুটি করতে লাগলো সুন্দর, মায়াবী বাচ্চাগুলো। পুরো ঘর ঘুরে দেখালেন তার পালন করা বিভিন্ন বয়সী দৃষ্টিনন্দন কোয়েল পাখিগুলো।

বলছিলাম হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার বশির আহমেদের কথা। পেশায় তিনি একজন খামারি। পালন করেন কোয়েল পাখি। কোয়েল পাখি পালন করে তিনি এখন স্বাবলম্বী। পরিবারে এনেছেন স্বচ্চলতা।

জানা গেছে, বানিয়াচংয়ে তিনিই প্রথম কোয়েল পাখির খামার শুরু করেন। ইদানিং কোয়েল পাখি নিয়েই ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি।

বশির আহমেদ বলেন, প্রায় ১৫ বছর আগে শখের বশে কয়েকটি কোয়েল পাখির বাচ্চা কিনে পালন শুরু করেন তিনি। একসময় তার শখ রূপান্তরিত হয় পেশায়। ২০১৬ সাল থেকে বাণিজ্যিকভাবে তিনি কোয়েল পাখি পালন শুরু করেন। বর্তমানে তার খামারে বিভিন্ন বয়সের প্রায় ২ হাজার কোয়েল পাখি রয়েছে।

নিজের উদ্ভাবিত ইনকিউবেটরে (বাচ্চা ফোটানোর যন্ত্র) ডিম থেকে বাচ্চা ফোটান তিনি। একসাথে ২ হাজার ডিম ফোটানোর ধারনক্ষমতা রয়েছে তার নিজের তৈরি ইনকিউবেটরে।

বশির আহমেদ আরও বলেন, একসময় শুধু শহরাঞ্চলের হোটেল-রেস্টুরেন্টগুলোতে কোয়েল পাখির চাহিদা ছিল। কিন্তু ইদানিং মফস্বল এলাকায়ও কোয়েল পাখির ডিম এবং পাখির চাহিদা রয়েছে। খেতে সুস্বাদু এবং পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ হওয়ায় কোয়েল পাখির চাহিদা দিন দিন বাড়ছে।

উপজেলার ২ নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়ন কার্যালয় সংলগ্ন তোপখানা মহল্লার ৪৮ বছর বয়সী এই ব্যক্তি জানান, কয়েকধাপে বিক্রি হয় তার কোয়েল পাখিগুলো। খামারিদের চাহিদা এক দিনের বাচ্চা যা তিনি পাইকারি বিক্রি করে থাকেন। বাজারে যারা খুচরা বিক্রি করেন তাদের চাহিদা ২০-২৫ দিনের বাচ্চা। আবার সাম্প্রতিককালে কেউ নিজের বাড়িতে পালন করার জন্যও কোয়েল পাখি কিনে নেন তার কাছ থেকে। কোয়েল পাখির খামার দিয়ে এলাকায় অনুস্বরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তিনি।

তিনি জানান, তাকে অনুস্বরণ করে বানিয়াচংয়ের ১২ জন খামারি এখন কোয়েল পাখি পালন করে স্বাবলম্বী। নিজের খামার পরিচালনা করার পাশাপাশি অন্যান্য খামারিদেরও নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে থাকেন বশির আহমেদ। লাভজনক হওয়ায় কোয়েল পাখি পালনে দিনদিন মানুষের আগ্রহ বাড়ছে বলেও জানান তিনি।

এ ব্যাপারে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার সাইফুর রহমান ফোন ধরেন নি। পরে যোগাযোগ করা হয় উপসহপকারি প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মখলিছুর রহমান তালুকদারের সাথে।

তিনি সিলেটভিউকে জানান, বশির আহমেদ একজন সফল খামারি। কোয়েল পাখি পালন করে তিনি লাভবান। উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস থেকে বশির আহমেদের খামার প্রায়ই পরিদর্শন করা হয়। আমি নিজেও কয়েকবার গিয়েছি। কোয়েল পাখি পালনে তিনি যখনই সহযোগিতা চেয়েছেন আমরা সহযোগিতা করেছি। তাছাড়া মুঠোফোনেও বশির আহমদের সাথে আমাদের সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রয়েছে।

সৌজন্যে; সিলেটভিউ২৪

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com