বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
র‌্যাবের রিমান্ডেও জালিয়াতির কথা স্বীকার সাহেদের

র‌্যাবের রিমান্ডেও জালিয়াতির কথা স্বীকার সাহেদের

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্কঃ   র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) রিমান্ডেও রিজেন্ট হাসপাতালে করোনাভাইরাস টেস্ট জালিয়াতির কথা স্বীকার করেছেন সাহেদ করিম। এর আগে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কাছে ছয় দিনের রিমান্ডে থাকা অবস্থায় মনগড়া রিপোর্ট দেয়ার কথা জানিয়েছিলেন প্রতারক সাহেদ। তবে আগের মতো তার মধ্যে ঔদ্ধত্য দেখা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

এদিকে, সাহেদের অন্যতম সহযোগী তরিকুল ইসলাম (তারেক শিবলী) আদালতে প্রতারণার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

র‌্যাবের কাছে রিমান্ডের দ্বিতীয় দিনে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ তার প্রতারণার বিভিন্ন কৌশল সম্পর্কে জানিয়েছেন। র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল সফিউল্লাহ বুলবুল যুগান্তরকে বলেন, রিমান্ডে করোনাভাইরাস টেস্ট জালিয়াতির কথা স্বীকার করেছেন সাহেদ। ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার সব ধরনের তথ্য-উপাত্ত র‌্যাবের হাতে রয়েছে। সাহেদের ঔদ্ধত্যের বিষয়ে তিনি বলেন, রিমান্ডে এখন সাহেদের সে ধরনের ঔদ্ধত্য দেখা যাচ্ছে না।

গ্রেফতারের পর শুধু উত্তরা পশ্চিম থানাতেই সাহেদের বিরুদ্ধে ১৩টি প্রতারণার মামলা করেছেন ভুক্তভোগীরা। শুক্রবারও একটি মামলা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তপন চন্দ্র সাহা যুগান্তরকে বলেন, সাহেদ করিমের প্রতারণার বিষয়ে একের পর এক অভিযোগ আসছে। ৩০০ ফিট রাস্তার নির্মাণ কাজের জন্য সাব-কন্ট্রাক্টে সাহেদকে বিটুমিন সাপ্লাই দিয়েছিলেন এক ব্যবসায়ী। এছাড়া তিনি মাটি কেটে দিয়েছিলেন। সেই বিল দেননি সাহেদ।

এদিকে, সাহেদের অন্যতম সহযোগী তরিকুল ইসলাম (তারেক শিবলী) আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। শুক্রবার ঢাকা মহানগর হাকিম মামুনুর রশীদ তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করেন। জবানবন্দি রেকর্ড শেষে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। দুই দফায় ১২ দিনের রিমান্ড শেষে তরিকুলকে আদালতে হাজির করে স্বীকারোক্তি রেকর্ডের আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।

৯ জুলাই রাজধানীর নাখালপাড়া থেকে তরিকুলকে গ্রেফতার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। পরদিন প্রথম দফায় ৫ দিন এবং ১৬ জুলাই দ্বিতীয় দফায় ৭ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন আদালত।

উল্লেখ্য, করোনার নমুনা সংগ্রহ করে মনগড়া প্রতিবেদন দেয়া, রোগীদের থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়াসহ নানা অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালে ৬ জুলাই অভিযান চালিয়ে সিলগালা করে র‌্যাব। ৭ জুলাই র‌্যাব সাহেদকে ১নং আসামি করে উত্তরা পশ্চিম থানায় ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে। সেদিন হাসপাতালটির মিরপুর শাখাতেও অভিযান চালিয়ে সিলাগালা করা হয়।

১৩ জুলাই র‌্যাব মামলার তদন্তের দায়িত্ব চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আবেদন করে। ১৫ জুলাই সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে সাহেদকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। ১৬ জুলাই সাহেদকে জিজ্ঞাসাবাদে ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকার আদালত। গ্রেফতারের পর ঢাকার বিভিন্ন থানায় তার বিরুদ্ধে কমপক্ষে ২০টি মামলা হয়েছে। ছয় দিন ডিবি হেফাজতে রিমান্ডে থাকার পর বৃহস্পতিবার তাকে চার দিনের জন্য র‌্যাবের হেফাজতে রিমান্ডে নেয়া হয়।

এদিকে সাহেদের বিরুদ্ধে রাজধানী ও রাজধানীর বাইরে প্রতারণার অভিযোগ অব্যাহত রয়েছে। র‌্যাবের কাছে হটলাইনে ১৬০টির মতো অভিযোগ এসেছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের মুখপাত্র এবং আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ। তিনি বলেন, পাঁচ দিনে ১৬০টির মতো অভিযোগ এসেছে। ইমেইলে এখনও অভিযোগ আসছে। রিমান্ডে তাকে প্রতারণার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। অন্যসব অভিযোগ নিয়েও চলছে অনুসন্ধান।

সুত্রঃ যুগান্তর

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com