বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:২৩ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
বানে ভেসে যাবে ঈদের আনন্দ!

বানে ভেসে যাবে ঈদের আনন্দ!

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্কঃ   দেশের অভ্যন্তরে ও সীমান্তবর্তী ভারতের রাজ্য আসাম, মেঘালয়, সিকিমে বর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হতে পারে। একই সঙ্গে বন্যার স্বায়ীত্বকাল বেড়ে আগস্টে গড়াতে পারে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র এক পূর্বাভাসে জানিয়েছে, ব্ৰহ্মপুত্র-যমুনা নদীর পানি সমতল বুধবার (২১ জুলাই) থেকে পুনরায় বাড়তে পারে, যা ২৬ জুলাই নাগাদ সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছাতে পারে।

ফলে আগামী ৫ দিনে কুড়িগ্রাম, বগুড়া, গাইবান্ধা, সিরাজগঞ্জ, জামালপুর, টাঙ্গাইল এবং মানিকগঞ্জ জেলার পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে এবং চলমান বন্যা পরিস্থিতি জুলাই মাসের শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।

এছাড়া বাড়তে পারে গঙ্গা-পদ্মা নদীর পানি সমতলও। বুধবার নাগাদ রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ পয়েন্ট, মুন্সিগঞ্জ জেলার ভাগ্যকূল পয়েন্ট এবং শরীয়তপুর জেলার সুরেশ্বর পয়েন্টে পানি সমতল স্থিতিশীল থাকতে পারে এবং তারপর পুনরায় বাড়তে পারে।

ফলে জেলাসমূহের নিম্নাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতি আগামী ১০ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।

ঢাকার চারপাশের নদীসমূহের পানির সমতলও বাড়তে পারে। আগামী ৫ দিনের মধ্যে ডেমরা পয়েন্টে বালু নদী, মিরপুর পয়েন্টে তুরাগ নদের পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করতে পারে। রেকাবি বাজার পয়েন্টে ধলেশ্বরী নদীর পানি এবং নারায়ণগঞ্জে লক্ষ্যানদীর পানি ইতোমধ্যে বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে, যা আরো অবনতি হতে পারে।

ভারতের আবহাওয়া অফিসও বলছে, পুরো জুলাইয়ের শেষ নাগাদ আসাম, সিকিমে ভারী বর্ষণ হবে। এক্ষেত্রে পাহাড়ি ঢলে বন্যার পরিস্থিতির আরো অবনতি হবে। ইতোমধ্যে দেশটির আসামের অন্তত ২৫ জেলার নিম্নাঞ্চল বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। মারা গেছে অন্তত ৮০ জন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া এ বিষয়ে জানান, বর্তমানে ১৮টি জেলা বন্যার পানিতে প্লাবিত রয়েছে। দেশে ও দেশের সীমান্তবর্তী ভারতের রাজ্যগুলোতে বৃষ্টিপাত বাড়ায় এই অবস্থার আরো অবনতি হতে পারে। এ ক্ষেত্রে আরো বেশ কয়েকটি জেলা প্লাবিত হতে। আর বন্যা স্থায়ীত্ব হতে পারে আগস্টের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত।

আগামী ১ আগস্ট দেশে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে বলে জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। এ অবস্থায় দেশের উত্তর ও উত্তর-পূর্ব এবং মধ্যাঞ্চলের মানুষদের ঈদের আনন্দে বাগড়া বসাবে বানের পানি। করোনাকালে ইতোমধ্যে মানুষের আয় কমে গেছে। তার ওপর অনেকেরই বসতভিটা ভেঙে নিয়েছে নদী। কারো ঘর-গবাদি পশু ভেসে গেছে। বন্যাকবলিত এলাকাগুলোতে দেখা দিয়েছে খাদ্য সংকট। অনেকেই চলছেন সরকারি সহায়তায়।

জানা গেছে, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, জামালপুর, বগুড়া, সিরাজগঞ্জসহ মানুষের দুর্ভোগের কোনো শেষ নেই। অনেকেরই বীজতলা নষ্ট হয়ে গেছে। বানের পানি নেমে গেলেও ধানের চারা রোপণ করতে পারবেন কি-না, সে চিন্তাও কপালে ভাঁজ ফেলে দিয়েছে। ইতোমধ্যে নষ্ট হয়ে গেছে লাখ লাখ হেক্টর জমির ফসল। মাছচাষিদের খামার পানিতে তলিয়ে সর্বস্ব খোয়া গেছে অনেকের।

পাউবো বলছে, দেশের প্রধান প্রধান নদ-নদীগুলোর ২৮টি স্থানে বিপৎসীমার উপর দিয়ে বর্তমানে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। বাংলাদেশ ও ভারতের আবহাওয়া অধিদফতরের দেওয়া তথ্যানুযায়ী, বৃহস্পতিবার নাগাদ দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চল এবং তৎসংলগ্ন ভারতের হিমালয় পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, মেঘালয় ও ত্রিপুরা প্রদেশে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস আছে। ফলে, এ সময়ে ব্রহ্মপুত্র-যমুনা, উত্তরাঞ্চলের ধরলা ও তিস্তা, উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আপার মেঘনা অববাহিকার প্রধান নদ-নদীসমূহ এবং দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের পাহাড়ি অববাহিকার নদ-নদীসমূহের পানি সমতল দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে।

সুত্রঃ বাংলানিউজ২৪

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com