শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৭:০৯ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
শিমুলপাতা, করোনাকাল ও প্রাসঙ্গিক জীবন (কাহিনী-৩)

শিমুলপাতা, করোনাকাল ও প্রাসঙ্গিক জীবন (কাহিনী-৩)

সিলেটের আকাশ আজ বৃষ্টিময়:
রাত চারটার একটু পরে আমার প্রিয় শব্দের মুখরতায় ঘুম ভেঙ্গেছে,হ‍্যাঁ,বৃষ্টি পরছে,কি অসাধারণ হারমোনিক একটা শব্দের আবহ! আমাকে সব সময়ই আচ্ছন্ন করে, এখনো সেরকমই হচ্ছে, একটু পর ফজরের আযান শোনা গেলো,নামাজ পড়ে ছন্দময় বৃষ্টির শব্দে আবারো হারিয়ে গেলাম। তো এই বৃষ্টির শব্দ বা বৃষ্টি দেখে স্পর্শ করে পুলকিত হওয়াটা শুরু হয়েছে উনিশ শত নিরানব্বই সালে,সেদিন ইন্টারমেডিয়েট ফাইনাল পরীক্ষার ফল বেড়িয়েছে,আমার বন্ধু সাদেক আর আমি ফলাফল জানতে ছাতক কলেজে যাই,একটু আগে আগেই যাই, অনেক্ষণ অপেক্ষার পর ফিজিক্স এর স‍্যার বের হলেন প্রিন্সিপাল স‍্যার এর রুম থেকে,দুই হাতে ছোট দুটি কাগজ,দেখে দেখে বললেন……এরা স্টার মার্ক পেয়েছো(আমার রোল টি ও ছিল),…….এরা প্রথম বিভাগ (সাদেকের রোল এখানে ছিল),তো সাদেক স্টার মার্ক না পাওয়াতে কিছুটা মন খারাপ,আমি বললাম ব‍্যাপার না,অল্পের জন‍্য আমি এস এস সি তে স্টার পাইনি,আর ও অল্পের জন‍্য এইচ এস সি তে পায় নি;তো দুটো কাটাকাটি!!!!!স্বাভাবিক হয়ে আমরা আজ ভিন্ন পথে হাঁটতে লাগলাম,সাধারণত কলেজ থেকে ছাতক বাজার হয়ে আমরা সিমেন্ট ফ‍্যাক্টরীতে যাই,আজ উল্টো পথে পেপার মিল এর ভিতর দিয়ে যাচ্ছি,পেপার মিল তখনো সম্ভবত রাষ্ট্রের মালিকানাধীন,মেইন রোড থেকে মিল পযর্ন্ত রাস্তা বেশ দীর্ঘ ও ছবির মতো সুন্দর,দুপাশে গাছপালা আর পরিপাটি রাস্তা,এ সময় ঝুমাঝুম বৃষ্টি শুরু,সাথে ছাতা নেই,থাকার প্রশ্নই আসেনা,ও বয়সে ছাতা নিয়ে কোথাও যাওয়াটা আনস্মার্ট ও মেয়েলি দেখাতো।এদিকে ভিজে একাকার আমরা দুই বন্ধু,আমার কাছে এই প্রথম মনে হলো আমি বৃষ্টি উপভোগ করছি,হ‍্যাঁ সত‍্যিই তো,এ তো সৃষ্টিকর্তার অপার রহমত,আমরা হাঁটছিলাম আর আমি অন‍্য কোন জগতের চিন্তা করছিলাম, বৃষ্টির ছন্দময়তা, মোহনীয়তা সেই থেকে আমাকে আকর্ষণ করা শুরু করলো, বয়স তখন আটারো ছুঁইছুঁই,এ বয়স হলে নাকি অনেক কিছুর অধিকার আসে,ভোটাধিকার সহ আরো অনেক কিছু,সেরকম ই কিছু হবে হয়তো,না হলে আটারো বছর বয়সেই বৃষ্টিপ্রীতির আর কি কারণ হতে পারে!তো সে থেকেই আমি মনেপ্রাণে চাই বৃষ্টি হোক,আর এজন‍্য গ্রীষ্মকাল আমার পছন্দের ঋতু,এ সময় বৃষ্টি হয় সাধারণত।
গত বছর এ সময় মালেয়শিয়া ছিলাম সরকারি এক ট‍্যুরে,লংকাবি শহরে পাহাড়ের উপর দিয়ে স্কাইরোপ বেয়ে যখন নিচে নামছিলাম ঠিক তখন শুরু হলো বৃষ্টি ;আমি তো দেখলাম এতো সেই বৃষ্টি যা আমি সবসময় চেয়ে এসেছি,কোন ও ভিন্নতা নেই! আল্লাহ কতো মহান।আজ হাসপাতাল কেবিনে শুয়ে আমি সেই ছন্দময় শব্দে বিভোর,এমন সময় দরজায় নক হলো,হুম,সকালের ঔষধের সময় হয়েছে,আর এটা ভাবতেই আমার ভালোলাগার অনুভূতি উধাও!!!নাভীর পাশে যে ইন্জেকশন দেয় ওঁরা সেটা পেইনফুল,আর ব‍্যাথা নিয়েতো বৃষ্টি উপভোগ করা যায় না,ঠিক যেমন আমার এলাকা সুনামগঞ্জের অনেক বাড়িঘর পানিতে তলিয়ে গেছে, অতিবৃষ্টির অলে অকাল বন‍্যা দেখা দিয়েছে,উনাদের জন‍্য মৌলিক চাহিদা মেটানোই এখন দায়,সেখানে নিশ্চয়ই তাঁরা বৃষ্টি উপভোগের চিন্তা করছেন না।স্হান,কাল,পরিবেশ অনুযায়ী মানুষের মনের পরিবর্তন হয়,চাওয়াগুলো ও ভিন্নতা পায়,এই আমি এখন চাচ্ছি ইন্জেকশনে যেনো কম ব‍্যাথা পাই;যদিও বাইরে বৃষ্টি হচ্ছে,কিন্তু সেটা আর আমাকে আকর্ষণ করছেনা……(চলবে…আশাকরি)

 

ডাঃ মোঃ জসিম উদ্দীন

স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com