রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৩৪ অপরাহ্ন

pic
সংবাদ শিরোনাম :
শান্তিগঞ্জে ধামাইল গানে গানে লোককবি প্রতাপরঞ্জনকে স্বরণ আমাদের হতে হবে অমায়িক মানুষ : এম এ মান্নান এমপি  পবিত্র শবে বরাত আজ বঙ্গবন্ধু মডেল গ্রাম ডুংরিয়ার সভাপতি নজরুল, সম্পাদক জহিরুল  একুশের প্রথম প্রহরে শান্তিগঞ্জ প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন শান্তিগঞ্জে ভাষা শহীদদের স্মরণে সুলেমান জায়গীরদার অর্গানাইজেশনের  শ্রদ্ধা নিবেদন শান্তিগঞ্জে যথাযোগ্য মর্যাদায় শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন শান্তিগঞ্জে বিজ এর বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সম্পন্ন দোয়ারার শুটকী তৈরির কাজ পরিদর্শনে শান্তিগঞ্জের সিবিও সদস্যরা সংসদে ব্যারিস্টার সুমনের ভুল ধরিয়ে দিলেন প্রধানমন্ত্রী
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
করোনায় দুদকের আরেক কর্মকর্তার মৃত্যু, চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগ

করোনায় দুদকের আরেক কর্মকর্তার মৃত্যু, চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগ

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্কঃ   
করোনায় আক্রান্ত হয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আরেক কর্মকর্তা মৃত্যুবরণ করলেন। (ইন্নালিল্লাহি…রাজিউন)। তার নাম মো. খলিলুর রহমান (৫৭)। তিনি দুদকের বিশেষ অনুসন্ধান ও তদন্ত সেল-২ এর প্রধান সহকারী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
শনিবার দুপুর ১টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। পরীক্ষায় কোভিড-১৯ পজিটিভ হওয়ার বিষয়টি সামনে আসার পর তিনি যথাযথ চিকিৎসা পাননি বলে অভিযোগ উঠেছে।
তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন দুদকের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। তিনি বলেন, আমরা পরপর দুজন দক্ষ কর্মকর্তাকে হারালাম। আমি তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি রইল সমবেনা।
এর আগে গত ৬ এপ্রিল করোনায় আক্রান্ত হয়ে দুদকের পরিচালক (প্রশাসন) জালাল সাইফুর রহমান মারা যান। তার স্ত্রী সন্তানও করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে তারা এখন সুস্থ।
খলিলুর রহমানের অসুস্থতার বিষয়ে দুদকের একজন দায়িত্বশীল উপ-পরিচালক যুগান্তরকে বলেন, তিনি ১০-১২ দিন আগে অসুস্থ হন। করোনা উপসর্গ দেখা দিলে তিনি শিশু হাসপাতালে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করেন। কয়েকদিন পর রিপোর্ট আসে পজিটিভ। এরপর তিনি চিকিৎসার জন্য কয়েকটি হাসপাতালে চেষ্টা করেন। কিন্তু কোথাও তিনি চিকিৎসা পাননি। শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে পরশু তিনি ইবনে সিনা হাসপাতাল কল্যাণপুর শাখায় তাকে নিয়ে গেলে আইসিও’র ব্যবস্থা হয়নি। সিটও পাওয়া যায়নি। তাকে ওই হাসপাতালের আউটডোরে অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়। পরে সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
ঢাকা মেডিকেলেও তাকে আইসিও সাপোর্ট দেয়া সম্ভব হয়নি বলে জানান ওই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, কর্তৃপক্ষ আরেকটু আন্তরিক হলে হয়তো তিনি আইসিও সাপোর্ট পেতেন।
তিন মাস আগে তার হার্টে রিং পড়ানো হয়। এরপর তিনি সুস্থই ছিলেন। তিনি সরকারি ছুটির ভেতর বাসা থেকে বের হননি। তারপরও কীভাবে আক্রান্ত হলেন মনে করতে পারছেন তা তার পরিবারের সদস্যরা।
তার এক বোন পুলিশ কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি জানান, তাদের বাড়ি ঝালকাঠির কাঠালিয়ায়। গ্রামের বাড়িতেই তার ভাইকে জানাজা শেষে কবর দেয়া হয়েছে।

সুত্রঃ যুগান্তর

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com