রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৩৫ অপরাহ্ন

pic
সংবাদ শিরোনাম :
শান্তিগঞ্জে ধামাইল গানে গানে লোককবি প্রতাপরঞ্জনকে স্বরণ আমাদের হতে হবে অমায়িক মানুষ : এম এ মান্নান এমপি  পবিত্র শবে বরাত আজ বঙ্গবন্ধু মডেল গ্রাম ডুংরিয়ার সভাপতি নজরুল, সম্পাদক জহিরুল  একুশের প্রথম প্রহরে শান্তিগঞ্জ প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন শান্তিগঞ্জে ভাষা শহীদদের স্মরণে সুলেমান জায়গীরদার অর্গানাইজেশনের  শ্রদ্ধা নিবেদন শান্তিগঞ্জে যথাযোগ্য মর্যাদায় শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন শান্তিগঞ্জে বিজ এর বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সম্পন্ন দোয়ারার শুটকী তৈরির কাজ পরিদর্শনে শান্তিগঞ্জের সিবিও সদস্যরা সংসদে ব্যারিস্টার সুমনের ভুল ধরিয়ে দিলেন প্রধানমন্ত্রী
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
লক্ষ্যমাত্রা ছাড়াই পরীক্ষা

লক্ষ্যমাত্রা ছাড়াই পরীক্ষা

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্কঃ   
দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যমতে, গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১২ হাজার ৪২৫ জন।
মৃতের সংখ্যা ১৯৯। তবে গত কয়েক সপ্তাহে করোনার লক্ষণ নিয়ে আরও বেশ ক’জনের মৃত্যু হওয়ায় ধারণা করা যায়, পর্যাপ্ত পরীক্ষার ব্যবস্থা থাকলে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের প্রকৃত সংখ্যা আরও বড় হতো।
দুর্ভাগ্যজনক, করোনার নমুনা পরীক্ষা এবং এ রোগে সংক্রমিত রোগীদের চিকিৎসা নিয়ে এখনও মানুষকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
শুরুতে একটিমাত্র স্থানে পরীক্ষার ব্যবস্থা ছিল। বর্তমানে সে সুযোগ বাড়লেও তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।
তাই নমুনা পরীক্ষা থেকে শুরু করে চিকিৎসা পর্যন্ত দুর্ভোগের সীমা নেই। সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়ার জন্য নমুনা পরীক্ষা করা এখনও দেশে কঠিন কাজগুলোর একটি।
বস্তুত দেশে যে পদ্ধতিতে পরীক্ষা চলছে, তাতে করোনা মোকাবেলায় দ্রুত সাফল্য অর্জন করা কঠিন হবে। বর্তমানে কেবল তারাই পরীক্ষা করাতে আসছেন, যাদের করোনা উপসর্গ রয়েছে।
যাদের উপসর্গ নেই, তারা পরীক্ষা করানোর কথা ভাবছেনই না। অথচ বিষেশজ্ঞরা বলছেন, করোনায় আক্রান্ত ৮০ শতাংশ মানুষেরই কোনো লক্ষণ প্রকাশ পায় না।
পরীক্ষা না করানোর কারণে এই ৮০ শতাংশ মানুষকে পৃথক করা বা চিকিৎসার আওতায় আনা হয় না। ফলে তাদের মাধ্যমে ব্যাপকভাবে করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা থেকে যায়।
কাজেই করোনা পরীক্ষার এই প্যাসিভ (পরোক্ষ) সার্ভিলেন্স পদ্ধতি থেকে সরে আসা প্রয়োজন। আমাদের চেষ্টা হওয়া উচিত অ্যাক্টিভ (প্রত্যক্ষ) সার্ভিলেন্স পদ্ধতিতে যাওয়ার।
এ পদ্ধতির আওতায় এলাকা ধরে ধরে সবার পরীক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। এর মাধ্যমে যারা করোনা শনাক্ত হবেন, তাদের আলাদা করতে হবে। সংশ্লিষ্ট এলাকায় লকডাউন করতে হবে কঠোরভাবে। উল্লেখ্য, এ পদ্ধতি প্রয়োগ করে করোনা মোকাবেলায় সফল হয়েছে ভারতের কেরালা রাজ্য, ভিয়েতনাম, দক্ষিণ কোরিয়া, থাইল্যান্ড ও সিঙ্গাপুর। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আমাদেরও এ পদ্ধতিতে যাওয়া উচিত। তাদের মতে, এ মুহূর্তে সবচেয়ে জরুরি কাজ হল লক্ষ্য নির্ধারণ করে অর্থাৎ প্রত্যক্ষভাবে পরীক্ষা চালানো।
প্রকৃতপক্ষে যত বেশি মানুষকে পরীক্ষার আওতায় আনা যাবে, দেশের করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে তত বেশি স্পষ্ট ধারণা পাওয়া সম্ভব হবে এবং সে অনুযায়ী করণীয় নির্ধারণ করা সহজ হবে।
দুর্ভাগ্যের বিষয়, দক্ষিণ কোরিয়া, ভিয়েতনাম ইত্যাদি দেশে যখন করোনাভাইরাসে কেউ আক্রান্ত কিনা তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য স্বাস্থ্যকর্মীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করছেন, তখন আমাদের দেশে মানুষ উপসর্গ নিয়ে দিনের পর দিন অপেক্ষা করেও পরীক্ষা করাতে পারছেন না।
এ বাস্তবতায় করোনা পরীক্ষায় অ্যাক্টিভ (প্রত্যক্ষ) সার্ভিলেন্স পদ্ধতিতে যেতে হলে আমাদের কিছু জরুরি পদক্ষেপ নেয়ার প্রয়োজন হবে।
প্রথমত, মানসম্মত ল্যাবগুলোকে কাজে লাগানোর পাশাপাশি সরকারি-বেসরকারি বড় হাসপাতালগুলোকেও কাজে লাগাতে হবে। দ্বিতীয়ত, করোনা পরীক্ষার জন্য পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যকর্মী ও উপকরণের বন্দোবস্ত করতে হবে।
ঢাকায় ল্যাবের সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি সব বিভাগীয় ও জেলা শহরে ল্যাব স্থাপন করতে হবে। সর্বোপরি, করোনার পরীক্ষা থেকে শুরু করে চিকিৎসা পর্যন্ত কার্যক্রমে যে সমন্বয়হীনতা প্রকাশ পাচ্ছে, তা দূর করাও জরুরি।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com