শুক্রবার, ১৪ Jun ২০২৪, ০৭:২৩ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
আজ বিশ্ব নদী দিবস: দখল-দূষণে মরছে নদী

আজ বিশ্ব নদী দিবস: দখল-দূষণে মরছে নদী

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্কঃ   
ঢাকাসহ দেশের বেশিরভাগ নদ-নদী এখন দখলদারদের কবলে। ভয়ানক দূষণের শিকার প্রতিটি নদী। দখল-দূষণসহ নানা কারণে দেশের নদ-নদী মরতে বসেছে।
এছাড়া পাথর ও বালু উত্তোলনেও অনেক নদী ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। সরকারি হিসাবে নদী দখলের সঙ্গে প্রায় ৪৭ হাজার ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান জড়িত। যদিও বাস্তবে এ সংখ্যা লক্ষাধিক।
দখলবাজরা শুধু নদীর দুই পাড় দখল করেই ক্ষান্ত হয়নি। তারা প্রবহমান নদীর পানিতে বাঁশ-কাঠের মাচা তুলে বানিয়েছে ঘরবাড়ি-দোকানপাট। পানি প্রবাহে বাধা দিয়ে করছে মাছ চাষ। এমন প্রেক্ষাপটে আজ দেশে ‘বিশ্ব নদী দিবস’ পালিত হচ্ছে। নদী রক্ষায় সচেতনতা বাড়তে প্রতি বছর সেপ্টেম্বরের চতুর্থ রোববার বিশ্বব্যাপী দিবসটি পালিত হয়ে আসছে।
এবারে দিবসটির প্রতিপাদ্য হল- ‘নদী একটি জীবন্ত সত্তা, এর আইনি অধিকার নিশ্চিত করুন।’ ঢাকার টঙ্গী থেকে সদরঘাট হয়ে ডেমরার সুলতানা কামাল ব্রিজ পর্যন্ত বুড়িগঙ্গা, তুরাগ ও বালু নদ দূষণে জড়িত ১২০ প্রতিষ্ঠান। নারায়ণগঞ্জে নদী দূষণের তালিকায় রয়েছে ৭৪টি প্রতিষ্ঠান। দূষণকারীদের মধ্যে একক প্রতিষ্ঠান হিসেবে শীর্ষে রয়েছে ঢাকা ওয়াসা। সরকারি হিসাব অনুযায়ী, প্রতিদিন নদীতে ২২৫ কোটি লিটার পয়ঃবর্জ্য ফেলছে ঢাকা ওয়াসা। নদী ও পরিবেশবাদী সংগঠনের নেতারা বলেছেন, বাস্তবে ঢাকার চারপাশের চার নদী এবং নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীর অবস্থা আরও করুণ। আর সারা দেশে দূষণের চিত্র ভয়ংকর ও চরম উদ্বেগজনক।
নদী সুরক্ষা নিয়ে কাজ করা সংগঠন রিভারাইন পিপলের মহাসচিব শেখ রোকন যুগান্তরকে বলেন, বাংলাদেশের নদ-নদীগুলো প্রধানত পাঁচটি সংকটে পড়েছে। এগুলো হল- প্রবাহ স্বল্পতা, দখল, দূষণ, বালু-পাথর উত্তোলন ও ভাঙন। বাংলাদেশের নদ-নদীগুলোর মূল উৎস ভারত-মিয়ানমারসহ উজান থেকে নেমে আসা পানি।
উজানে অসংখ্য বাঁধ ও ড্যাম তৈরি করে নদীর স্বাভাবিক প্রবাহ সীমিত করা হয়েছে। পানির স্বল্প প্রবাহে নদী সংকুচিত হচ্ছে। সংকুচিত নদীর দিকে লোলুপ দৃষ্টি পড়ছে দখলবাজদের। দখলের সঙ্গে আছে দূষণের সম্পর্ক। তিনি বলেন, উপরের তিন সংকটের সঙ্গে আরও দুটি সংকট ওতপ্রোতভাবে জড়িত। নদী থেকে বালু-পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। এতে নদীতে ভাঙনের সৃষ্টি হয়। এছাড়া উজান থেকে পানি নেমে যাওয়ার সময়ও নদী ভাঙন দেখা দেয়।
এক সময়ে বাংলাদেশে ছোট-বড় সাড়ে ১১শ’ নদী ছিল। বর্তমানে ৪০৫টি রয়েছে। নদী রক্ষায় সচেতনতা বাড়তে বিশ্বব্যাপী বছরের সেপ্টেম্বরের চতুর্থ রোববার পালিত হয়ে আসছে ‘বিশ্ব নদী দিবস’। আজ সেই দিনটি বছর ঘুরে আবার এলো। এবারের দিবসের প্রতিপাদ্য হচ্ছে, ‘নদী একটি জীবন্ত সত্তা, এর আইনি অধিকার নিশ্চিত করুন।’
১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের হালনাগাদ করা তথ্য অনুযায়ী- ৬২ জেলায় নদী দখলবাজের সংখ্যা ৪৬ হাজার ৮৩৯ জন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি দখলবাজ কুমিল্লা জেলায়। এর সংখ্যা ৫৯০৬ জন। দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে আছে নোয়াখালী ও কুষ্টিয়া। এর সংখ্যা যথাক্রমে ৪৪৯৯ ও ৩১৩৪ জন। ঢাকায় এ সংখ্যা ৯৫৯ জন।
জানা গেছে, তালিকা হলেও দখলবাজদের উচ্ছেদ-অভিযান খুব একটা হয় না। বিশেষ করে ঢাকার বাইরে নদী-দখলবাজ উচ্ছেদে অভিযান নেই বললেই চলে। ঢাকায় মাঝে-মধ্যে ঢাক-ঢোল পিটিয়ে অভিযান শুরুর পর অদৃশ্য কারণে তা স্থায়ী হয় না। সংসদীয় স্থায়ী কমিটিকে দেয়া নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের এক প্রতিবেদনে ধারাবাহিক উচ্ছেদ অভিযান পরিচালানোর কথা জানানো হয়েছে।
এতে বলা হয়- ২০১০ থেকে ২০১৯ সালের ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের দুই পাশে ১৬ হাজার ২২৫টি স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। এর মধ্যে পাকা ২ হাজার ৫৭৭টি, আধাপাকা ১ হাজার ৬৯৬টি ও অন্যসব স্থাপনা ১১ হাজার ৯৫২টি। উদ্ধার হওয়া তীরভূমি ও জায়গার পরিমাণ ৬০১ দশমিক ৩২ একর। উচ্ছেদ চালানোর সময়ে ঢাকা নদী বন্দরে ৪১ লাখ ২৪ হাজার ৫০০ টাকা এবং নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরে ২১ লাখ ৯৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এর মধ্যে চলতি বছরে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে ৩ হাজার ২০০ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও ৯১ একর ভূমি উদ্ধার করা হয়।
নদী দিবস সামনে রেখে শনিবার রাজধানীতে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর নদী রক্ষায় পদক্ষেপ নেয়। কিন্তু বিভিন্ন কারণে সেই উদ্যোগ ব্যাহত হয়। বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর অবস্থানের কারণে নদী রক্ষাকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেয়া হয়েছে। সেই চ্যালেঞ্জ প্রতিহত করতে দখলদাররা নানাভাবে চেষ্টা করছে। আইনিভাবে কেউ যাতে এ কাজে বাধা দিতে না পারে, সেই লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে। নদী আন্দোলনের সঙ্গে সরকার নিজেই সম্পৃক্ত। সুতরাং এ আন্দোলন সফল হবে।
সংশ্লিষ্টরা জানান, নদীর সংকটে পড়ার আরেকটি বড় কারণ দূষণ। ঢাকার চারপাশের চার নদী, গাজীপুর, মানিকগঞ্জ, নরসিংদী, মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন নদ-নদীর দূষণ সীমাহীন। মাত্রাতিরিক্ত দূষণে সদরঘাটের বুড়িগঙ্গার পানি কুচকুচে কালো, হাজারীবাগের পানি রক্তের মতো লাল। তুরাগের পানি কোথাও কালো, কোথাও গাঢ় নীল। বালু নদের পানি ধূসর বর্ণ ধারণ করেছে। ওয়াসার পয়ঃবর্জ্য আর কলকারখানা থেকে ফেলা বিষাক্ত তরল বর্জ্যে বিপন্ন হচ্ছে পরিবেশ। নাগরিক জীবনে নেমে এসেছে নানা বিপর্যয়।
শুধু রাজধানীর চারপাশ বা আশপাশের জেলা নয়, সারা দেশে চলছে দখল-দূষণের আগ্রাসী প্রতিযোগিতা। নদীখেকোরা অনেকটাই অপ্রতিরোধ্য। মাঝে-মধ্যে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হলেও নানা ফাঁকফোকর আর সীমাবদ্ধতায় তা থমকে যায়। সরকারি উদ্যোগ আর আদালতের নির্দেশনাকে চ্যালেঞ্জ করে একের পর এক নদী গ্রাস করা হচ্ছে। নদ-নদীর দূষণ ও দখল রোধে উচ্চ আদালত দুই দফা নির্দেশনা দিয়েছেন। কিন্তু সেগুলো প্রতিপালনের কোনো লক্ষণ নেই।
জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার বলেন, সারা দেশের নদ-নদী দখলমুক্ত করার লক্ষ্যে জেলা প্রশাসকদের মাধ্যমে অবৈধ দখলদারদের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। এ তালিকা ধরে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে। এ লক্ষ্যে এক বছর মেয়াদি ক্র্যাশ প্রোগ্রাম নেয়া হয়েছে। ক্র্যাশ প্রোগ্রামের মধ্যে রয়েছে- নদীর অবৈধ দখল উচ্ছেদ, নদীর সীমানা চিহ্নিত করা, মরা নদীর জমি চিহ্নিত করতে জরিপ করা ও জমি সংরক্ষণ করা, নদীর জমি লিজ দেয়া হলে এবং ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নামে নদী রেকর্ড হয়ে থাকলে তা বাতিল করা।
নদী দিবসের কর্মসূচি : জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন এবং দেশের প্রায় ৭০টির বেশি বেসরকারি নদী, পরিবেশ ও সামাজিক সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত জোট ‘বিশ্ব নদী দিবস উদযাপন পরিষদ বাংলাদেশ’র যৌথ উদ্যোগে শনিবার রাজধানীতে শাহবাগ এলাকায় ‘নদীর জন্য পদযাত্রা’ বের করে। এতে রিভারাইন পিপলের পরিচালক মোহাম্মদ এজাজের পরিচালনায় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বিশ্ব নদী দিবস উদযাপন পরিষদ বাংলাদেশের সদস্য সচিব শেখ রোকন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। বাপার সহ-সভাপতি বুদ্ধিজীবী সৈয়দ আবুল মকসুদ, বাপার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মিহির বিশ্বাস, ঢাকা যুব ফাউন্ডেশনের সভাপতি শহীদুল্লাহ, নোঙরের সামস সুমন, নদী পক্ষের হাসান ইউসুফ খান, নাগরিক উদ্যোগের মাহবুব আকতার প্রমুখ বক্তব্য দেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com