বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৫:১৩ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
পাগলা বাজারে অবৈধ স্ট্যান্ড, যানজট ভোগান্তি চরমে!

পাগলা বাজারে অবৈধ স্ট্যান্ড, যানজট ভোগান্তি চরমে!

স্টাফ রিপোর্টার :: দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পাগলা বাজার একটি প্রাচীনতম ব্যস্ততম বাজার। প্রতিদিনই এখানে হাজার হাজার মানুষের পদচারণা। বর্তমানে এই প্রাচীনতম বাজার জনদুর্ভোগের অন্যতম স্থানে পরিনত হয়েছে। পাগলা বাজারে সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে গড়ে উঠেছে অবৈধ লেগুনা ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার স্ট্যান্ড। ফলে স্বাভাবিক গতিতে যানবাহন চলতে না পারায় যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। এতে ভোগান্তিতে পরতে হচ্ছে ওই মহাসড়কে চলাচলরত হাজার হাজার মানুষকে। এছাড়াও বাজার সংলগ্ন প্রাচীনতম পাগলা হাইস্কুল এন্ড কলেজ ও একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। উক্ত বিদ্যালয় গুলোতে প্রায় হাজার খানেক ছাত্রছাত্রীরা লেখাপড়া করে। তাই তাদেরকে প্রতিদিনই বিদ্যালয়ে আশা যাওয়ায় চরম দুর্ভাগ পোহাতে হচ্ছে। সেখানে ছাত্রী ও শিশুদের কথা তো বলাবাহুল্য।

সরেজমিনে দেখা যায়, পাগলা বাজারে সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে গড়ে উঠেছে অবৈধ লেগুনা এবং সিএনজিচালিত অটোরিকশা স্ট্যান্ড। এখানে মহাসড়ক দখল করে ২০/৩০টি লেগুনা ও সিএনজি সব সময় দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। এতে যানবাহন চলাচলে ও সাধারণ মানুষ মহাসড়ক পার হতে বাধা সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে সারাক্ষণ মহাসড়কটিতে যানজট লেগে থাকে। এছাড়াও মহাসড়কের দুপাশ দখল করে ফলের দোকান, জেনারেল স্টোর, চায়ের দোকানসহ গড়ে তোলা হয়েছে বিভিন্ন ধরনের অবৈধ দোকানপাট। বাধ্য হয়ে মানুষ মহাসড়কের ওপর দিয়ে চলাচল করছে। এতেও যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। প্রতিদিনই যানজট ভোগান্তির স্বীকার হতে হচ্ছে মহাসড়ক দিয়ে চলাচলরত মানুষদের। যানজটের কারণে দুর্ঘটনার মাত্রাও বাড়ছে প্রতিনিয়ত। কয়েকযুক ফেরিয়ে গেলেও এখনো শৃঙ্খলা ফিরে আসেনি পাগলা বাজারে।
সিএনজি চালক সুজন ও লেগুনা চালক জিপু দাস জানান, স্ট্যান্ড না থাকায় এ সড়কের দুই পাশে গাড়ি রাখা হয়। অন্যত্র গাড়ি রাখার কোনো জায়গা নেই। গাড়ি রাখার জায়গা থাকলে আমরা মহাসড়কে গাড়ি রাখতাম না।

ট্রাক চালক আব্দুস সালাম জানান, প্রতিদিনই এখানে যানজট লেগে থাকে। ট্রাফিক পুলিশ নিয়োগ থাকলেও ড্রাইভাররা তাদের কথা মানছে না। তাই অবৈধ স্ট্যান্ডের কারণে যানজট নিরসন করা সম্ভব হচ্ছে না। এই যানজট থেকে মুক্তি চাই।

প্রাইভেট কার চালক শামিম আহমদ জানান, এখানে যে সমস্যা হয় তা বলে শেষ করা যাবে না। নানা মুখী সমস্যায় জর্জরিত এই মহাসড়ক। কবে যে এই সমস্যার সমাধান হবে কে জানে।

বাজারের এক ব্যবসায়ী আব্দুল হামিদ জানান, মহাসড়কের দুই পাশ দখল করে বসানো হয়েছে অবৈধ দোকানপাট। ওইসব দোকানপাট থেকে প্রতিদিন টাকা উঠানো হয়। তাছাড়া মহাসড়কটিতে বিভিন্ন যানবাহনের স্ট্যান্ড গড়ে উঠেছে। যার ফলে সব প্রকার যানবাহন চলাচলে বাধা সৃষ্টি হচ্ছে। এতে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়ে যার জন্য প্রতিদিন আমাদেরকে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে।
সচেতন মহলের মতে, অনেকবার উচ্ছেদ করা হলেও কয়েকদিন গেলেই আবারো অবৈধ স্থাপনা তৈরি করা হয়। একটা সিন্ডিকেট মানুষের ভোগান্তি তৈরি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। কিছু স্থানীয় প্রভাবশালীরা প্রভাব কাটিয়ে দিনদিন অবৈধ স্থাপনা তৈরি করছে। কোন ভাবেই এর প্রতিকার হচ্ছে না। তাহলে কি আমরা বলতে পারি এসব দেখার কেউ নেই?
পাগলা বাজারের নেতৃত্বদানকারী একাধিক ব্যক্তি জানান, দীর্ঘ কয়েকবছর অতিবাহিত হলেও হয়নি বাজার ব্যবস্থাপণা কমিটি। আমরা কমিটি করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। বাজারে কমিটি না থাকায় এমন ভোগান্তিময় কাজ হচ্ছে।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও দিরাইয়ে দায়িত্বরত ট্রাফিক সার্জন রমজান আলী জানান, অনেকবার চেষ্টা করেছি এই যানজট নিরসনের কোন ফল পাইনি। এই অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে ও স্ট্যান্ড রাস্থা থেকে সড়িয়ে অন্য জায়গায় নিলে যানজট নিরসন হবে। আমাদের একার পক্ষে এই সমস্যার সমাধান সম্ভব নয়। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে আমরা এই অবৈধ স্থাপনা ও স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করে যানজট মুক্ত পাগলা বাজার উপহার দিতে চাই।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com