বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
আমরা ক্ষমা প্রার্থী হে শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী – মহান নেতা – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

আমরা ক্ষমা প্রার্থী হে শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী – মহান নেতা – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

ফয়ছল আহমদ

ছোটবেলায় একটা গল্প শুনেছিলাম : একজন কৃষক একটি বেজি পোষতেন। বেজিটাকে খুব আদর করতেন, প্রতিদিন তার জন্য কৃষক মাছ ধরে এনে খওয়াতেন। তাকে একটি পিঞ্জিরায় আটকে ঘরের বারান্দায় রাখতেন। ঘরের অন্যান্য সদস্যদের সাথে বেজিটার বেশ সখ্যতা গড়ে উঠে। এমনকি বেজিটা কৃষকের এক বছরের ছোট বাচ্ছাটাকেও খুব ভালবেসে ফেলেছে! একদিন কৃষাণী তার বাচ্ছাটাকে গামলার পানিতে খেলতে রেখে কোথাও দূরে চলে যান। এদিকে গামলার পাশে চলে আসে একটি বিষধর শাপ। বাচ্ছাটা কি আর শাপ /বিচ্ছু চিনে…? সে শাপের সাথে সানন্দে খেলতে শুরু করে। খেলার এক পর্যায়ে বিচ্ছুটা বাচ্ছাটাকে ছোবল মারে। অমনি বাচ্ছাটা বিষের জালায় নীল হয়ে পড়ে থাকে। এদিকে পোষা বেজি চট-ফট করতে থাকে পিঞ্জিরায়। এক পর্যায়ে পিঞ্জিরা ভেঙ্গে বেজিটা বেরুতে সক্ষম হয়। এক দৌড়ে জঙ্গলে যায় এবং বাচ্ছাটাকে বাঁচাতে জরি নিয়ে আসে। সে বাচ্ছার পাশে আসতেই কৃষক চলে আসে। কৃষক এসে দেখে তার বাচ্ছা মৃত এবং তার পাশে পিঞ্জিরা ভেঙ্গে বেজিটা দন্ডায়মান। সে রেগে-মেগে আগ্নিশর্মা …! সে ভাবল কতইনা ভালবাসতাম বেজিটাকে। নিজে না খেয়ে তাকে খাওয়াইছি, আজ সেই কি না আমার কলিজার টুকরোটাকে মেরে ফেল্ল…! আর রক্ষে নেই ..! হাতের লাটি দিয়ে এক আঘাতেই মেরে ফেল্লেন বেজিটাকে। কোন কিছুর যৌক্তিকতা চিন্তা করার সময় দিল না কৃষকের আবেগ। পরক্ষণেই তিনি দেখতে পেলেন বেজিটার মুখে জঙ্গল থেকে আনা জরি রয়েছে। সাথে-সাথে বাচ্ছাটাকে অবলোকন করতেই বেড়িয়ে আসল আসল রহস্য। আসল হত্যাকারী যে প্রিয় বেজি না তিনি বুঝতে পারলেন। কিন্তু ততক্ষণে যা হওয়ার তা হয়ে গেছে। তিনি নিজেকে অভিসম্পাত করতে লাগলেন। তিনি বলতে লাগলেন অমি যদি আমার বিবেককে জাগ্রত করে বিচার বিবেচনার জন্য একটু সময় নিতাম!

তাহলে হয়ত আজ আমার বুকের ধন বাচ্ছাটাকে হারাতে হত না। আমি কেন এত দিনের পোষা প্রিয় বেজিটাকে বিশ্বাস করতে পারলাম না …? হায় রে কপাল….! এখন আমার বুকের ধন ছেলেটাও নাই আর ভুল বুঝে আমার প্রিয় বেজিটাকেও মেরে ফেল্লাম। আমার এখন কিছুই নাই। আমি নিঃস্ব….!

হে প্রিয় মহান নেতা …! তুমাকে হারানোর পরে আমরা বুঝতে পেরেছি আমরা কি হারিয়েছি…! এই হারানো অমূল্য রত্ন আমরা আর কোন দিন কি ফিরে পাব…? আমাদের এই অপূরণীয় ক্ষতি কি কোন দিন আর পূর্ণ হবে …? আমরা কি আর যোজন-যোজন অপেক্ষা করেও এমন একজন নেতা পাব….? এরকম হাজারও প্রশ্ন মনে। কিন্তু উত্তরের কোন কূল কিনারা পাই না …! কেন তুমাকে এভাবে মৃত্যুবরণ করতে হল…? তুমি এ দেশের স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলে, এটাই কি তুমার অপরাধ ছিল…? তুমার জীবন বাজী রেখে কোটি বাঙ্গালীর জীবন বাচিয়ে ছিলে, এটাই কি তুমার মস্ত বড় অপরাধ ছিল…? স্বাধীনতা উত্তর বিদ্ধস্ত, নিমজ্জিত, দূর্ভিক্ষ পিরীত, তলাবিহীন ঝুরীর অপবাদ প্রাপ্ত বাংলার অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে, বাংলার মানুষের মুখে অন্ন তুলে দিতে, বস্ত্র তুলে দিতে, চিকিৎসা তুলে দিতে ভিখারীর বেশে দেশে দেশে হাত পেতে ঘোরে বেড়িয়েছ, এটাই কি তুমার পাহাড় সম অপরাধ ছিল….? যে অপরাধের দাত ভাঙ্গা প্রতিশোধ নিতে খন্দকার মুস্তাক, কর্ণেল ফারুক , কর্ণেল রশিদ,  মেজর ডালিমের মত আর্মি অফিসারদের দেশপ্রেম একে বারে উতলে উঠেছিল …! আবার এসব দেশপ্রেমিকদের রক্ষা করতে পরদিন ‘ সো হোয়াট ‘ বলা ততকালীন আর্মি সেকেন্ড ইন কমান্ড মেজর জিয়াউর রহমানের দেশপ্রেমের জোয়ার বয়ে গিয়েছিল …! ধীক্ষার এই দেশ প্রেমিকদের ….! ধীক্ষার…! এমন দেশপ্রেমিক ছিল বাংলার কোলাঙ্গার মীর জাফর আলী খাঁন, যার কোলাঙ্গারী আচরণের কারণে আমরা কোটি কোটি বাঙ্গালী দুই শত বছর পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ ছিলাম। পরে এই মীর জাফর বুঝতে পেরেছিলেন তিনি কি করেছিলেন। কিন্তু ততক্ষণে নদীর জল গড়িয়ে অনেক দূর চলে গিয়েছিল। তার পক্ষে নিজেকে অভিসম্পাত করা ছাড়া আর কিছুই বাকী ছিল না। তাকেও তিলে তিলে বেঈমানীর স্বাদ গ্রহণ করতে হয়েছিল। ধীক্ষার জানাই এইসব ইতিহাসের কলঙ্খীত মানবরূপী পিশাচদের…!

হে জাতির পিতা ঐ দিন ওরা মানুষের দল ছিল না – যারা সরাসরি তুমার মুখাপেক্ষী হয়েও তুমার মুখের বুলি শুনার পরেও যারা তুমার বুকে বুলেট বিদ্ধ করতে পেরেছিল। আমি দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়ে বলতে পারি তারা এক একটা জানোয়ার ছিল …! নাহয় যে মানুষটার মুখের এক ডাকে কোটি-কোটি বাঙ্গালী অস্ত্র ধারণ করে মৃত্যুমুখে, অগ্নিতে যাপিয়ে পড়তে পারে, যে মানুষটার তর্জনীর ভয়ে শত -শত বাঘা-বাঘা পাকিস্থানী আর্মি অফিসাররা তর তর করে কাপতে থাকত সেই মানুষটার বুকে এমন করে নির্মম ভাবে বুলেট বিদ্ধ করতে পারত না … আমি তা বিশ্বাস করি না… তারা পশুই ছিল… তারা পিশাচই ছিল… তাদেরকে মানুষ বল্লে মানব জাতির যে কলঙ্খ হবে…!

হে সর্ব কালের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী আমরা দুঃখীত এই জন্যে যে ঐ পশুগুলা ছিল বাঙ্গালী, তবে আমি মেনে নিতে পারছি না তারা সত্যিই বাঙ্গালী ছিল। হয়ত তাদের জন্মের কোন ত্রুটি ছিল, হয়ত ভুলবশত বাংলার পবিত্র মাটিতে ভূমিষ্ট হয়ে বাংলার মাটিকে অপিত্র করেছিল, না হয় অন্যত্র জন্ম নিয়ে বাংলাকে কলোষিত করতেই বাঙ্গালী হয়েছিল। নতুবা পারত না আমাদের কে, বাঙ্গালীদের কে কলঙ্খিত করতে।
হে মহান নেতা… হে জাতির পিতা… হে শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী …. আমরা সত্যিই আপনার কাছে ক্ষমা প্রার্থী….!

লেখক,প্রভাষক- ডুংরিয়া হাই স্কুল এন্ড কলেজ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com