রবিবার, ২৬ Jun ২০২২, ১১:২২ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
জগন্নাথপুরে বহিরাগতের দৌরাত্ব, সংশয়ে স্থানীয়রা

জগন্নাথপুরে বহিরাগতের দৌরাত্ব, সংশয়ে স্থানীয়রা

স্টাফ রিপোর্টার:: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ভুয়া নাগরিক সার্টিফিকেটের মাধ্যমে শিক্ষক পদে নিয়োগ পেতে এবারও বহিরাগতদের দৌড় ঝাঁপ শুরু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গত কয়েকদিন ধরে পৌরসভাসহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদে নাগরিক সার্টিফিকেট সংগ্রহে বহিরাগতদের দৌরাত্ব চলছে। এদের কারনে স্থানীয়রা তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এমন অবস্থা পুরো উপজেলায়।

জানা যায়, ২০১৪ সালের দিকে প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রনালয় থেকে প্রাথমিক পর্যায়ে সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগ পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। যার প্রেক্ষিতে ২০১৮ সালের ১১ মে সারাদেশের ন্যায় সুনামগঞ্জ জেলায় লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সুনামগঞ্জ জেলার মধ্যে ৯৯২জন উত্তীর্ণ হয়েছেন এর মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলায় রয়েছেন ১৯১ জন। আগামী ২৯ জুলাই মৌখিক পরীক্ষা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে। সে লক্ষ্যে প্রার্থীগনদের তাদের নাগরিক সার্টিফিকেটসহ সকল প্রয়োজনীয় সঠিক কাগজপত্র জমা দেওয়ার নির্দেশনা প্রদান করা হয়। ফলে গত কয়েক দিন ধরে জগন্নাথপুর পৌরসভা ও উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদে ভুয়া নাগরিক সনদপত্র সংগ্রহে বহিরাগতদে দৌরাত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন।

জগন্নাথপুর উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়নের ইউপি সদস্য আবদুস সামাদ বলেন, সপ্তাহ ধরে কয়েকজন বহিরাগত লোকজন নাগরিক সার্টিফিকেট দেওয়ার জন্য আনাগুনা বৃদ্ধি পায়। কিন্তুু আমরা স্থানীয় ছাড়া কোন ব্যক্তিকে ভুয়া নাগরিক সনদ দেবনা।
জগন্নাথপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র সুহেল আহমদ জানান, ভুয়া সার্টিফিকেট প্রদানের কোন সুযোগ নাই আমাদের এখানে। এ বিষয়ে আমরা সচেতন রয়েছি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রবাসি অধ্যুষিত এ উপজেলার অধিকাংশ মানুষই প্রবাস নির্ভশীল। এক সময় এই উপজেলায় স্থানীদের সরকারী চাকুরীতে আগ্রহ নিতান্তই কম ছিল। ধীরে ধীরে নানা কারনে বিদেশ প্রবণতা কমতে শুরু হওয়ায় এখন স্থানীয়রা সরকারী বিভিন্ন দপ্তরে চাকুরী করতে প্রচন্ড আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। কিন্তুু বহিরাগতদের ধাপটে স্থানীয় অনেকই বঞ্চিত হচ্ছেন। বাহিরের লোকজন ভুয়া নাগরিক সনদপত্রের মাধ্যমে চাকুরীতে প্রবেশ করে কর্মস্থলে যোগদান করেই চলে যান নিজ নিজ এলাকায়। ফলে নিয়োগকৃত পদ শূন্য হয়ে শিক্ষক সংকট লেগেই থাকে।

জগন্নাথপুর পৌরশহরের জগন্নাথপুর এলাকার বাসিন্দা শুধাংশু শেখর বাচ্চু রায় জানান, বহিরাগতের কারনে আমাদের সন্তানরা তাদের নিজের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। সরকারী নীতিমালা অনুযায়ী নিয়োগ প্রাপ্তগনকে স্ব-স্ব এলাকায় যোগদান করার কথা। কিন্তুু আমাদের এলাকায় নিয়ম বহির্ভূত ভাবে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে আমি গত ১৮ জুন সিলেট প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক তাহমিনা খাতুন বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ প্রদান করেছি। অভিযোগের প্রেক্ষিতে জগন্নাথপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে।

সহকারী শিক্ষক পদে পরীক্ষার্থী আশারকান্দি ইউনিয়নের পাইকপারা গ্রামের নির্মণ কুমার দাস বলেন, সহকারী শিক্ষক পদে ভুয়া নাগরিক সার্টিফিকেট সংগ্রহ করতে বহিরাগতরা বিভিন্ন ইউনিয়নের দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। তিনি বলেন, অন্য এলাকার লোকজনের দাপটের কারনে আমরা স্থানীয়রা অনেক সময় নিজের অধিকার থেকে বঞ্চিত হতে হয়। এবার ভুয়া নাগরিক সনদপত্র রোধে আমরা আন্দোলনে নামব।

জগন্নাথপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন বলেন, প্রবাসী অধুষিত এ উপজেলায় সরকারী চাকুরীতে লোকজনের অনিহা রয়েছে। তবে সরকার বেতন বৃদ্ধি করায় স্থানীয়রা চাকুরীতে উৎসাহী হয়ে উঠছেন। স্থানীয়রা নিয়োগ পেলে শিক্ষক সংকট কমে যাবে। ভুয়া নাগরিক সার্টিফিকেট নিয়ে চাকুরীতে বহাল থাকায় একজন সহকারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত চলছে। বহিরাগত কেউ যাতে নিয়োগ না পায় এ ব্যাপারে আমরা সচেতন আছি।

সুনামগঞ্জ জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা পঞ্চানন বালা বলেন, সুনামগঞ্জ জেলার মধ্যে ৯৯২ জন সহকারী শিক্ষক পদে উর্ত্তীণ হয়েছে। এর মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলায় রয়েছেন ১৯১ জন। ভুয়া নাগরিক সার্টিফিকেটের সুনিদিষ্ট অভিযোগ পেলে তা তদন্তপূর্বক বাতিল করা হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com