বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
জৈন্তাপুরে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ’১৮ উদযাপন উপলক্ষে মৎস্য কর্মকর্তার সংবাদ সম্মেলন

জৈন্তাপুরে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ’১৮ উদযাপন উপলক্ষে মৎস্য কর্মকর্তার সংবাদ সম্মেলন

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি-:: জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৮ উদযাপন উপলক্ষ্যে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার এস এম খালেকুজ্জামানের সংবাদ সম্মেলন ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত।
“স্বয়ং সম্পূর্ণ মাছের দেশ বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ” এ পতিপাদ্যকে সামনে রেখে প্রতি বছরের ন্যায় এবার ও জৈন্তাপুর উপজেলায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ১৮ উদযাপন উপলক্ষ্যে উপজেলা মৎস্য অফিস কার্যালয়ে লিখিত বক্তব্য রাখছেন উপজেলা মৎস কর্মকর্তা এস এম খালেকুজ্জামান, মৎস সপ্তাহের কর্মসূচি হিসেবে ১৮ জুলাই থেকে ২৪ জুলাই ২০১৮ পর্যন্ত ৭দিন ব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচী গোষণা করা হয়।

কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে ১৯ জুলাই বর্ণাঢ্য শোভা যাত্রা মাছের পনা অবমুক্ত করণ ও আলোচনা সভা। ২৪ জুলাই ২০১৮ মূল্যায়ন সভা ও পুরষ্কার বিতরণ।  সংবাদ সম্মেলনে মৎস কর্মকর্তা বলেন, নদী মাতৃক বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে মৎস্য খাতের গুরুত্ব অপরিসীম। দেশের মানুষের আমিষের চাহিদা পূরণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দারিদ্র বিমোচন, সামাজিক নিরাপত্তা বৃদ্ধি বৈদেশিক মুদ্র অর্জনে এই খাত কার্যকর অবদান রাখছে। জৈন্তাপুর উপজেলায় আধুনিক ও পরিকল্পিত উপায়ে মৎস্যচাষ, আহরণ, পরিচর্যা , সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনায় উপজেলা মৎস্য অফিস নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। জাতীয় জিডিপিতে মৎস্য খাতের অবদান ৪.৩৯ শতাংশ এবং কৃষিজ জিডিপিতে মৎস্য খাতের অবদান প্রায় এক-চতুর্থাংশ অর্থাৎ ২২.৭৬ শতাংশ। বাংলাদেশের রপ্তানী আয়ের ২.৪৬ শতাংশ আসে মৎস্য খাত থেকে যা এখনো দ্বিতীয় বৃহত্তম রপ্তানী খাত হিসেবে বিবেচিত। আমাদের প্রাণিজ আমিষের ৬০ শতাংশ যোগান দেয় মৎস্য খাত যা আমাদের সহজলভ্য ও নিরাপদ উৎস হিসেবে স্বীকৃত। দেশের জনগোষ্ঠীর ১১ শতাংশের অধিক প্রায় ১৭৫ লক্ষ লোক প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে এ সেক্টরে বিভিন্ন কার্যক্রমে নিয়োজিত থেকে জীবিকা নির্বহ করে। স্বাদু পানির মাছ আহরণে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয় এবং বদ্ধ জলাশয়ের মাছ উৎপাদনে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম, আপনারা যেনে খুশি হবেন ২০১৭-১৮ অর্থিক বছরে জৈন্তাপুর উপজেলায় মোট ৫২৬৪ মে.টন মাছ উৎপন্ন হয়েছে উপজেলায় মোট মাছের চাহিদা রয়েছে ৩৪০৮ মে.টন ফলে আমাদের উদ্বৃত্ত রয়েছে ১৮৫৬ মে.টন যা থেকে আমাদের উপজেলার মৎস্য চাষিরা স্থানিয় চাহিদা পুরণ করে অন্য এলাকায় বিক্রিকরে আর্থীক ভাবে সচ্চলতা ফিরে পেয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com