বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৯:২০ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
ঠান্ডা মাথায় এগোচ্ছেন পুতিন

ঠান্ডা মাথায় এগোচ্ছেন পুতিন

অনলাইন ডেস্ক::
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের চোখ এখন সিরিয়ার এমন একটি জায়গায়, যেখানে গত সপ্তাহে চারজন রুশ সেনা গোলার আঘাতে ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছেন। দেইর-আল-জুর এলাকার চারপাশের মরুভূমি এখন প্রাকৃতিক ও রাজনৈতিক দিক থেকে বিপজ্জনক জায়গা। কারণ, এখানেই এখন আমেরিকা ও রাশিয়ার সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ খেলা খেলছে।

এই দেইর-আল-জুর এলাকায় এক বছর আগে আরও কয়েকজন রুশ সেনা একইভাবে গোলার আঘাতে মরেছিলেন। পুতিনের সন্দেহ, এর পেছনে আমেরিকার হাত ছিল। রাশিয়া ধারণা করছে, গত সপ্তাহেও যে হামলা হয়েছে, সেটি কুর্দি যোদ্ধারাই করুক আর আইএসই করুক—তারা সরাসরি আমেরিকার মদদপুষ্ট। ফলে রাশিয়া এখন পাল্টা হামলার জন্য সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিচ্ছে। যারা প্রতিপক্ষে আছে, তারা বাশার আল-আসাদের বিরুদ্ধশক্তি। হয় তারা বিদ্রোহী, নয়তো আইএস। অবশ্য দেইর-আল-জুর, পালমিরা, হোমস, আলেপ্পো—এসব এলাকা থেকে রাশিয়ার সহায়তা নিয়ে বাশার বাহিনী আগেই আইএসকে সরিয়ে দিয়েছে। জিহাদিদের পিটিয়ে রাশিয়ার সেনারা তুর্কি সীমানাসংলগ্ন ইদলিবে পাঠিয়ে দিয়েছে। মোদ্দা কথা, পুরো এলাকায় রাশিয়ার প্রভাব প্রচণ্ড শক্তিশালী অবস্থায় রয়েছে। ইউফ্রেটিস নদীর দখল নিয়ে আমেরিকাপন্থী কুর্দি এবং সিরিয়ার যোদ্ধাদের সমঝোতায় মধ্যস্থতা করেছেন রুশ কর্মকর্তারা।

বছরখানেক আগে পুতিনের শীর্ষস্থানীয় আর্টিলারি টেকনিশিয়ানরা পূর্ব আলেপ্পোয় এসেছিলেন। তাঁরা ধ্বংসাবশেষ সরিয়ে বোমার আলামত পরীক্ষা করছিলেন। এই পরীক্ষার মধ্য দিয়ে তাঁরা বুঝতে চাইছিলেন প্রতিপক্ষের হাতে কোন মাত্রার অস্ত্র রয়েছে এবং এর বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্য তাঁদের কী ধরনের গোলা ব্যবহার করতে হবে। এ রকম একটি দলের সঙ্গে আমার সাক্ষাৎ হয়েছিল। তাঁরা আমাকে জানিয়েছিলেন, তাঁরা যে তদন্ত প্রতিবেদন বানাবেন, তা সরাসরি পুতিনের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এরপরই পুতিনের পরবর্তী সিদ্ধান্ত আসবে। সে অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পুতিন একজন বহুমাত্রিক ব্যবস্থাপক। তিনি একই সঙ্গে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদকে রক্ষা করেছেন এবং মধ্যপ্রাচ্যে রাশিয়ার অবস্থানকে সুসংহত করে ফেলেছেন। তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, চেচনিয়া ও রাশিয়া থেকে আসা যত জিহাদি সিরিয়ায় লড়াই করছেন, সবাইকেই তিনি মেরে ফেলবেন। একদিকে সিরিয়ায় তিনি আমেরিকার সমর্থনপুষ্ট শক্তিগুলোর ওপর সর্বাত্মক হামলা চালাচ্ছেন, অন্যদিকে তিনি বিস্ময়করভাবে ইসরায়েল, ইরান, তুরস্ক, মিসর, লেবানন, সৌদি আরব ও অন্য দেশগুলোর সঙ্গে ভালো সম্পর্ক বজায় রাখছেন। তাঁর চোখে একনায়ক, রাজা, বাদশাহ, প্রধানমন্ত্রী, প্রেসিডেন্ট, স্বৈরাচার, উদারপন্থী, গণতন্ত্রপন্থী—সবাই যেন সমান। আপাতদৃষ্টে তাঁকে সব মৌসুমের জন্য চলনসই নেতা বলে মনে হয়।

বাশার আল-আসাদ যখন তাঁকে ‘সিরিয়ার ত্রাণকর্তা’ বলেন, তখন তিনি আহ্লাদিত হন। ইসরায়েলের কুখ্যাত বর্ণবাদী প্রতিরক্ষামন্ত্রী এভিগডোর লিভারম্যানকে ‘ব্রিলিয়ান্ট লিডার’ বলে ডাকতেও তাঁর বাধে না। সিরিয়ায় ইরানিদের ওপর যখন ইসরায়েলের বিমান থেকে হামলা চালানো হচ্ছিল, তখনো নেতানিয়াহুকে ক্রেমলিন উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছে। তুরস্কের সুলতান এরদোয়ানের বিমানবাহিনী গুলি করে রুশ বিমানকে ভূপাতিত করার পরও পুতিন ইস্তাম্বুলে এরদোয়ানের গোল্ডেন প্যালেসে গিয়েছেন। মিসরের সিসি কায়রোর অপেরায় পুতিনকে নিয়ে গেছেন। ক্রেমলিনে সৌদি বাদশাহকে অভ্যর্থনা জানান পুতিন। ইরানে রুহানির বাসভবনে গিয়ে তিনি আমেরিকার বিরুদ্ধে খামেনির সমালোচনামূলক বক্তৃতা উপভোগ করেন।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় রাশিয়া যে উত্তর ইরানে হামলা চালিয়েছিল, পুতিনের এই বদান্যতার কারণে ইরান তা মনে করিয়ে দিতে পারে না। মিসরের সিসিও পুতিনকে মনে করাতে চান না, ১৯৭২ সালে আনোয়ার সাদাত রুশদের মিসর থেকে বের করে দিয়েছিলেন। পুতিনের কূটনৈতিক কৌশলের কারণেই কোনো পক্ষই তাঁর প্রকাশ্য বিরোধিতা করতে পারে না।

সিরিয়ায় পুতিন অভিযান শুরু করার পর বাশার আল-আসাদের বিরুদ্ধপক্ষ সবচেয়ে বেশি চাপের মুখে পড়ে। সিআইএর পক্ষ থেকে যখন বলা হয়েছিল, রাশিয়া বেছে বেছে যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থিত বিদ্রোহীদের ওপর হামলা চালাচ্ছে, তখন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ বলেছিলেন, কেবল আইএস ও সন্ত্রাসীরাই তাঁদের শত্রু। তাদের নিশ্চিহ্ন করতে রাশিয়া পিছপা হবে না। এই অভিযানের মধ্য দিয়ে প্রথমেই রাশিয়া বুঝিয়ে দিয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের এতদিনকার একচেটিয়া আধিপত্যের দিনের অবসান হয়েছে। মধ্যপ্রাচ্যে পুতিন যে অবস্থান ইতিমধ্যে তৈরি করেছেন, এখন সেটিকে ধরে রাখার দিকেই তিনি সবচেয়ে বেশি মনোযোগী হয়েছেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com