মঙ্গলবার, ২৮ Jun ২০২২, ০৬:১০ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
গ্রন্থপাঠ: ‘শূন্যের সরন্দীপে একা’

গ্রন্থপাঠ: ‘শূন্যের সরন্দীপে একা’

কবি আহমদ জুনায়েদ মূলত এই সময়ের কবি;আমাদের কবি। তাঁর কবি মানস শতভাগ আধুনীক আবার তাঁর কবিতা পাঠে দেখি উত্তর আধুনীকতাকেও তাঁর কবিতা অস্বীকার করে না। জুনায়েদের ‘শূন্যের সরন্দীপে একা’ কাব্যগ্রন্থও এমনই এক গ্রন্থ যেখানে কবি ধর্মীয় মিথকে পূঁজি করে বকের মতো ধ্যানস্থ হয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন বাস্তবতার জমিনে।আর কবি স্রষ্টার মতো শুনিয়ে দেন,’এই খানে নিতে হবে জেনে,আমি ভাবলাম!/আর নিজের জন্য তৈরি করে রাখলাম একটা ক্রোশ’।প্রত্যেক কবিরই একটা বাউল মন থাকে ;থাকা উচিত।এ হিসেবে কবি আহমদ জুনায়েদ যেনো শতভাগ বাউল।কেননা তাঁর জন্মই সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক থানার এক বাউল পরিবারে।তাঁর বাবা মনোহর আলী ছিলেন বাউল আর সেই পিতার হাতেই তিনি জেনেছিলেন-‘নির্বাণের পাঠ’ অথবা চোখ কীভাবে নক্ষত্র হয়ে ওঠে!

‘শূন্যের সরন্দীপে একা’ কাব্যগ্রন্থটি ২০০৮ সালে প্রকাশ করে শুদ্ধস্বর।বইটির প্রচ্ছদ করেছিলেন সব্যসাচী হাজরা।এই বইয়ের ছাপ্পান্নটি কবিতার মধ্যে বেশির ভাগ কবিতাই প্রেমের।আছে পৃথিবীর নানা দেশ থেকে মিথের বলয় নিয়ে বাস্তব পৃথিবীর শৈল্পিক সুর। দিনশেষে প্রত্যেকটা কবিতাই যেনো কবির জীবন দর্শনকে দূরাগত মাঠের সবুজ ঘাসের কাছে নিয়ে যায়! এ হিসেবে যারা নতুন কবি সেই ঘাসের ঘ্রাণ গায়ে মাখতেই পারেন। বইটির মলাট উল্টালেই ফ্ল্যাপে দেখতে পাই,’তার পথ নির্জন,কামিনী মহলে ফুল,প্রথার বাইরে বিচ্ছিন্ন একক।তার কবিতা মগ্নচৈতন্যের জাগৃতি।ধর্মীয় মিথ থেকে রূপকথার রাজ্য,বৃন্দাবন
থেকে ইলামের মাঠ….আপাত দেখতে শৃঙ্খলহীন শব্দে-কণ্ঠে মধুর, ভাবনায় ফোটে সমস্ত-নন্দন। সে লৌহ থেকে তাম্রলিপির কোরক খুলে
পরিয়ে দেয় কবিতার জেওরাত। রজঃস্বলা নদীও জেগে ওঠে স্পর্শে,
কবিতা যেন দ্রোপদীর শাড়ি: মুরাকাবা ঘরে ধ্যানস্থ তাকে দেখেছি-

আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি,শূন্যের সরন্দীপে সে একা এবং তার কোন শরীক নেই।’ আসলে প্রত্যেক মানুষই একা; সে তার চিবুকের কাছে একা ও অচেনা। এই সরল সত্যকে যারা সহজেই পাঠ করতে পারেন,কবিতার জায়নামাজে বসে যারা দোযখে মোববাতী জ্বালিয়ে দেন অনায়াসে মূলত তারা কবি আর এ হিসেবে আহমদ জুনায়েদও কবি। কবি আহমদ জুনায়েদ ভালো করেই জানেন কবিতার সমুদ্র হাঙরে ভরা তবে তিনি অঙ্গিকারাবদ্ধ সেখানে সাঁতার কাটার;নিজের মতো করে কাটছেনও প্রতিনিয়ত। তাই তো তাঁর ‘বিলাপ’ কবিতায় পাই-,’কবিতার বনে এসে মৃগ হয়ে গেছি/যে কস্তূরী জন্ম নিয়েছে আপন অতলে/নিজেও জানি না তার স্বরূপের কথা/ঘ্রাণোময় ব্যথা নিয়ে শুধু ঘুরে মরি…!

কবি জুনায়েদ আপাদমস্তক প্রেমিক! তার প্রেমের সরূপ প্রকৃতির সাথে
একই সরলরেখায় চলে। তাঁর ‘পাতা’ কবিতায় দেখি,’ পাতাগুলো কাপছে/জোছনায়/যেনো হ্নদয়ের/নগ্ন নৃত্য।’ এ কবিতাটি ছোট্র একটা
কবিতা অথচ এখানেই কবির যেনো প্রকৃত হ্নদযন্ত্রের দেখা পাই।
তাছাড়া তাঁর ‘ফুল’,’চুমো দাও স্নেহ করে’,’বাঁশিওয়ালা’,’পুড়ে যাওয়া
বুকের ভূগোল’,’জুয়াড়ি’,’তেমনি মুনিয়া’সহ আরো কয়েকটি কবিতা নিরেট নিঃস্ব,রিক্ত,আশাবাদী প্রেমের শৈল্পিক বুননে রচিত মনছোঁয়া কবিতা।

কবি শব্দের কারিগর,চিন্তারও বটে।আর ‘শূন্যের সরন্দীপে একা’ বই পাঠে দেখি কবি জুনায়েদও তার ব্যতিক্রম নন। যদিও এ কাব্যের বেশির ভাগ কবিতাই অনু কবিতা বলতে গেলে পনেরো/বিশ লাইনের শুধু ‘বাঁশিওয়ালা’ কবিতাটি বাদে।আর এটাও হয় তো উত্তরআধুনীকতার হাওয়া,তাছাড়া বার্তা যদি হয় সত্য-সচ্ছ সেখানে বাণী লম্বা হওয়ার কোনো মানে রাখে না।

আর এখানেই সফল কবি আহমদ জুনায়েদ। কবি হাওরের সন্তান, বাংলাদেশের সন্তান। আর তারই প্রচ্ছন্ন একটা রূপ দেখি-‘পৌষের মাঠ’,’ভানুমতি রূপ জেগে ওঠে’ অথবা ‘জোছনা কি করে ফোটে’,’তেমনি মুনিয়া’ ইত্যাদি। এ গ্রন্থপাঠে দেখি গ্রীক বা অন্যান্য মিথের ব্যবহার করা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে আধুনিক বাংলা কবিতায় ধর্মীয় বা প্রাচীন গ্রীক মিথ এনে কবিতা রচনার ঢং নতুন নয় আমরা দেখেছি কবি বুদ্ধদেব, জীবনানন্দ,শামসুর রাহমান,শহিদ কাদরী,আল মাহমুদ বা তাদেরও আগে অনেক কবিই বাংলা কবিতায় মিথ নিয়ে এসেছেন। কবি জুনায়েদও তার ব্যতিক্রম নন, তবে মিথ নিয়ে এলেও তাঁর কবিতার
বয়ন স্টাইল বা শৈলি অনেকটাই নিজস্ব রাস্তা তৈরি করতে পেরেছে।
তাছাড়া কবি জুনায়েদ বাংলাদেশের কবি হলেও তাকে তো আর বাংলাদেশে পড়ে থাকলে চলবে না!বস্তুত কবির তো গোটা পৃথিবী।
তাই কবি জুনায়েদের ভাষায়, ‘জনমানবশূন্য এদেশে মৃত সব/ পৃথিবী যেন স্থির ছবি/ মহাজড় খিলানগুলো পূর্বাপর আশ্চর্য পরিহাসে নির্বাক/
আর আমি শূন্যের সরন্দীপ হতে একা… বেরিয়েছি পৃথিবীর পথে…।’
এ যেনো কবি জীবনানন্দেরই উত্তরাধিকার।

কবি আহমদ জুনায়েদ দুঃখবাদী প্রেমের কবি।দুঃখের এক ইঞ্চি জমিও
যেনো তিনি আর অনাবাদী রাখতে চান না।তাঁর ‘জুয়াড়ি’ কবিতায় পাই,
“কষ্ট আর ভালোবাসা একদা আমায় নিয়ে জুয়ার টেবিলে বসেছিলো/
আমি একবার কষ্টের আর একবার ভালোবাসার হয়ে গিয়েছিলাম…।”
‘নীলাম্বরী শাড়ি উড়ে কার’ কবিতারও একই বয়ান-“ধান কাটা শেষ মাঠে
শুধু কুয়াশার খেলা।” অন্যদিকে দেখি,কবি এ কাব্যে ‘বলো তবে হে মধুপ’ নামের একটি কবিতা বাংলার প্রথাবিরুধী লেখক হুমায়ূন আজাদকে উৎসর্গ করেছেন।এতে সহজেই অনুমেয় কবি জুনায়েদ আজাদেরই মানস সন্তান। এদিকে কবি তাঁর মা ও তার বোন সুলতানা পারভীন কেও আরো দুটি কবিতা উৎসর্গ করেছেন।আসলে প্রকৃত কবিরা এমনই।কবিদের পাঠ করার আগে তাঁর মাকেও পাঠ করা উচিত, শেকড় পাঠ করা উচিত;জুনায়েদও তাই চান।

(সংক্ষেপিত)
লেখক:সুলেমান কবির
প্রভাষক,বিশ্বনাথ ডিগ্রি কলেজ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com