রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:৪২ অপরাহ্ন

pic
সংবাদ শিরোনাম :
অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা সুনামগঞ্জের শান্ত কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক মনোনীত প্রথম দল হিসেবে বিশ্বকাপের কোয়ার্টারে নেদারল্যান্ডস আর্জেন্টিনাকে হারানোর ৩২ বছর পর ক্যামেরুনের ব্রাজিলবধ ২-০ গোলে হারিয়েও ঘানার সঙ্গে বিদায় উরুগুয়ের পর্তুগালকে হারিয়ে রোনালদোদের সঙ্গে দ্বিতীয় রাউন্ডে কোরিয়া ব্রাজিল সাপোর্টারদের মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা আর স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত শান্তিগঞ্জ শান্তিগঞ্জে বাংলাদেশ এনজিও ফাউন্ডেশন দিবস উদযাপন ২৮ তম বিসিএস ফোরাম সিলেট’র সভাপতি ডাঃ জসিম, সম্পাদক সাগর কোস্টারিকাকে ৪-২ গোলে হারিয়েও বিদায় জার্মানির
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
নজরুল বনাম রবীন্দ্রনাথ

নজরুল বনাম রবীন্দ্রনাথ

আমার এক বন্ধু যার কাছ থেকে তিন-চার বছর আগের একটা কথা শুনে বড্ডই চমকে উঠেছিলাম। সে বলছিল যে নজরুল ইসলাম নাকি নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছিলেন কিন্তু রবীন্দ্রনাথ ষড়যন্ত্র করে নজরুলকে বিষ খাইয়ে অসুস্থ করেছিলেন যাতে নজরুল নোবেল না পান ! আর কিছুদিন আগে এক বড়ভাইয়ের মুখে শুনেছিলাম নজরুলের যখন নোবেল পুরস্কার পাওয়ার সম্ভাবনা জেগে উঠেছিল তখন রবীন্দ্রনাথ ব্রিটিশ সরকারের সাথে লবিং করে নজরুলের নোবেল আটকে দেন, আর রবীন্দ্রনাথ তো ব্রিটিশ দালাল ছিলেন যার ফলে এই কাজটি করতে সুবিধা হয়েছিল তার।
# ১ম কথা, একজন ব্যক্তির যদি নোবেল প্রাইজ পাওয়ার যোগ্যতা থাকে তাহলে তার অসুস্থতা কি কখনো তার পুরস্কারপ্রাপ্তির পথে প্রতিবন্ধকতা হতে পারে?
# ২য় কথা রবীন্দ্রনাথ না হয় ব্রিটিশদের দালাল ছিলেন, উনি না হয় লবিং করেই নিজে নোবেল পেয়েছেন এবং নজরুলের নোবেল আটকেছেন। কিন্তু সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার কি তখন ইংল্যান্ড দিত? যে সংস্থা থেকে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হত সেটা কি এতই দুর্বল ছিল যে একজন কবির লবিংএ আটকে যেত? আর নোবেল পুরস্কার প্রধান কমিটি যদি সেচ্ছায় রবীন্দ্রনাথের মত একজন ব্যক্তির কথায় কাউকে নোবেল দিত বা বাতিল করত তাহলে কি বিশ্বের অন্যান্য বিখ্যাত কবি, সাহিত্যিক ব্যক্তিরা বসে থাকতেন?
এরকম হাজারো প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হয়েছে রবীন্দ্রনাথ ও নজরুলকে নিয়ে।ফেইসবুক ও ইন্টারনেটের বিভিন্ন সাইটে পাওয়া যায় এসব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। অথচ যেসব বরাহ শাবকরা এসব তথ্য শেয়ার করে বা পোস্ট দেয় তাদের পেটে বোমা মারলেও রবীন্দ্রনাথ, নজরুল বা নোবেল নিয়ে কোন তথ্য বের করা যাবে না। তারা শুধু মিথ্যা গুজবে কান দিতে জানে আর প্রোপাগান্ডা ছড়িয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করতে। যেসব ছাগুরা রবীন্দ্রনাথ বা নজরুলকে নিয়ে বাড়াবাড়ি করে তাদের যদি বলা হয় নজরুলের একটি কবিতা বা একটি রবীন্দ্রসংগীত বলতে তাহলে তাদের অবস্থা হয় “ছেড়ে দে কেঁদে বাচি মা” এর মত। কিন্তু সমালোচনার সুযোগ পেলেই বলে উঠবে নজরুল, রবীন্দ্রনাথের চেয়ে বড় কবি, নজরুল নোবেল পান নি কেন ইত্যাদি, ইত্যাদি।
# আরো একটি বিষয় খেয়াল করলাম যে অনেকে এখন নজরুলকে রবীন্দ্রনাথের সমকক্ষ বানিয়ে ফেলছেন এবং অনেকে বাংলা সাহিত্যে নজরুলকে রবীন্দ্রনাথের প্রতিদ্বন্দ্বীও করে ফেলেছেন। অথচ বাস্তব জীবনে রবীন্দ্রনাথ-নজরুল পরস্পর, পরস্পরের গুরু শিষ্য ছিলেন।নজরুল তার জীবনদশায় সবসময়ই রবীন্দ্রনাথকে গুরু মেনে এসেছিলেন। রবীন্দ্র-নজরুলের সম্পর্ক ছিল বেশ রসালো ও মধুর। কিন্তু আমাদের বঙ্গদেশীয় সাহিত্য বিশারদগণ এই দুই গুরু-শিষ্যকে দাড় করিয়ে দিয়েছেন পরস্পর বিরোধী রুপে। ভাবতে অবাক লাগে যে কিভাবে মানুষ এতো গুজব ছড়াতে পারে বা বিশ্বাস করে? আমাদের বাঙালি সাহিত্যবিশারদরা সঠিকভাবে না জানে নজরুলকে, না জানে রবীন্দ্রনাথকে। যারা রবীন্দ্র-নজরুলকে সমকক্ষ ভাবেন তাদের জ্ঞাতার্থে বলা উচিত যে রবীন্দ্রনাথ ও নজরুল পরস্পর গুরু শিষ্য ছিলেন।রবীন্দ্রনাথ নজরুলকে স্নেহ করতেন। রবীন্দ্রনাথ নজরুলকে তার লিখা বসন্ত কাব্যগ্রন্থটি উৎসর্গ করেন এবং নজরুল তার কাব্যগ্রন্থ “সঞ্চিতা” রবীন্দ্রনাথকে উৎসর্গ করেন। এবং নজরুল তার সঞ্চিতায় রবীন্দ্রনাথকে বিশ্ব কবিসম্রাট উপাধিতে ভূষিত করেন। এখন একটু চিন্তা করুন তো এই দুজনের মধ্যে যদি প্রতিদ্বন্দ্বিতার সম্পর্ক থাকত তাহলে কি উনারা এটা করতেন? এমনকি নজরুল তার শ্রেষ্ঠ কবিতা “চির উন্নত মম শির” রচনার পর প্রথম রবীন্দ্রনাথকে পড়ে শুনান এবং রবীন্দ্রনাথ কবিতা শুনে মুগ্ধ হয়ে বলেন “তোর কবিতা তোকে একদিন বিশ্বখ্যাত করবে।কিন্তু এসব তথ্য আমাদের তথাকথিত সাহিত্য বিশারদদের কানে যাবে না তারা শুধু প্রোপাগান্ডা ছড়াবে। এর পিছনে মূল ঘঠনা হল বাঙালি মুসলমানের একটি বিরাট অংশ এখন পর্যন্ত রবীন্দ্রনাথকে গ্রহণ করতে পারে নি এবং পারবেও না। তার কারণ রবীন্দ্রনাথ একজন হিন্দু কবি।একজন হিন্দু কবির এত অর্জন সাহিত্য বিশারদদের পরশ্রীকাতরতার অন্যতম কারণ। আর নজরুলকে গ্রহণ করার কারণ হচ্ছে নজরুলের নামের মধ্যে কিছুটা হলেও মুসলমানিত্বের ছাপ আছে। বাঙালি মুসলমান সমাজের একটি বিরাট অংশ রবীন্দ্রনাথকে গ্রহণ করতে পারে না কারণ তাদের মধ্যে সবসময় একটি আক্ষেপ কাজ করে কারণ রবীন্দ্রনাথ কেন মুসলমান হলেন না? কেন রবীন্দ্রনাথ মুসলমানদের নিয়ে কিছু লিখলেন না? (যদিও রবি মুসলমানদের নিয়ে লিখেছেন,’মুসলমানির গল্প’ সহ আরো অনেক রচনা) এই আক্ষেপ নিয়েই তারা রবীন্দ্রনাথ সমালোচনায়
নামে, প্রোপাগান্ডা ছড়ায় এবং শেষমেশ রবীন্দ্রনাথের সাথে নজরুলককে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামিয়ে দেয়। তারা রবীন্দ্রনাথের পরিবর্তে নজরুলকে চালিয়ে দিতে চান। কিন্তু তারা একটু খোঁজখবরও নেন না যে বাস্তবিক জীবনে কেমন সম্পর্ক ছিল এই দুই কবির। এখন যদি নজরুল বা রবীন্দ্রনাথ বেচে থাকতেন তাহলে কি বলতেন এইসব অশ্লীলতা দেখে?
লেখক:সৌরভ পাল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক:মোহনা সাংস্কৃতিক
সংগঠন,এম.সি কলেজ সিলেট।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com