মঙ্গলবার, ২৮ Jun ২০২২, ০৬:০৪ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
‘‘ইফতারী ও আম কাঁঠালী – ভিন্নরূপী যৌতুক’’

‘‘ইফতারী ও আম কাঁঠালী – ভিন্নরূপী যৌতুক’’

যৌতুক আমাদের সমাজের জন্য একটি ব্যাধি স্বরূপ যা যুগ যুগ ধরে আমাদের সমাজটাকে কলোষিত করে আসছে। এই ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে কত পিতা যে ধ্বংস হয়েছেন তার কোন ইয়ত্তা নেই। আবার এর কুফল হিসেবে কত নারীকে যে বিধবার সাজে সাজতে হয়েছে তার পরিসংখ্যান ভয়াবহ। শশুর বাড়ির অমানবীক অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে কত অসহায় বাবার কন্যা যে আত্ম হত্যার মত কঠিন পথ বেছে নিয়েছেন তার লিষ্টিও নেহায়েত কম নয়। যৌতুক যে আমাদের সমাজে কত রকম রূপ ধারণ করে আছে তা সচেতন ভাবে দৃষ্টিপাত করলেই আমাদের দৃষ্টিগোচর হবে। এই বিভিন্ন রূপ নিয়ে বিরাজমান যৌতুকের ভিন্নরূপ যে বর্তমান সময়ে আমাদের সমাজের প্রচলিত ‘ইফতারী ও আম কাঁঠালী’ তার যথার্থতার প্রমাণ মিলবে নিম্নের বর্ণনায়।
সাধারণত যৌতুক হচ্ছে বিবাহের সময় কন্যার পিতার কাছ থেকে বরের পিতা চুক্তি করে যে অর্থ বা অন্য কোন জিনিস নিয়ে থাকেন তাই। এটি মূলত একবারই পরিশোধ করলে শেষ হয়ে যায়। কিন্তু ‘ইফতারী ও আম কাঁঠালী’ এমনই এক ভিন্নরূপী বিষয় যা প্রতি বছরই একটি নির্দিষ্ট সময়ে কন্যার পিতার জন্য প্রলয়ংকরী ঘুর্ণীঝড়ের মত আবির্ভূত হয়। যার থেকে মুক্তির নেই কোন সময়ের সীমা বা পরিসীমা অথবা কোন পথ। এক্ষেত্রে আমরা কি বলতে পারি না এটি যৌতুকের চাইতেও ঢের বেশী বিপজ্জনক একজন সামর্থহীন অসহায় পিতার জন্য, সর্বোপরি সমাজের জন্য?
রামাদ্বান/সিয়াম সাধনা আমাদের মুসলমানদের জন্য আত্মশুদ্ধির শিক্ষা,দৈর্য পরীক্ষা,পারস্পরিক সম্প্রীতি বর্ধনের সুযোগ, আল্লাহর নৈকট্য লাভের মাধ্যম। রমজান মাসে রোজা থেকে আমরা আমাদের লোভ লালসাকে সংবরণ করার শিক্ষা পাই। অন্যের দরিদ্রতা, ক্ষুধা, অভাব অনটন অনুভব করার শিক্ষা পাই। এ মাসে একজন রোজাদার বান্দাকে ইফতার করালে বেহিসাব সওয়াবের অধিকারী হওয়া যায়।কিন্তু কাহারও দুর্ববলতার সুযোগ নিয়ে ইফতার করাতে বাধ্য করলে তার উল্টো ফলাফল হওয়াটা সাভাবিক নয় কি? এ মাসে আত্মীয় স্বজনদের সাহায্য সহযোগীতা করা এবং তাদের প্রতি যত্নবান হওয়াটাই স্বাভাবিক বিষয়। কিন্তু তার পরিবর্তে নিজের আত্মসম্মান রক্ষার নাম করে আত্মীয়দের বিপদগ্রস্থ করা কোন ক্রমেই যুক্তিসঙ্গত হতে পারে না। রমজান মাসে বরের বাড়ির আত্মসম্মান রক্ষার্থে যদি কন্যার পিতাকে বাধ্য করা হয় ইফতারী খাওয়াতে তাহলে রমজানের কোন শিক্ষাই আমাদের কাজে আসল না। এক্ষেত্রে যদি বিত্তবৈভবের মালিক কোন পিতা স্বইচ্ছায় তার আত্মীয়দের আপ্যাযন করান সেটি ভিন্ন কথা।
‘ইফতারী ও আম কাঁঠালী’ বর্তমান সময়ে আমাদের সমাজে অবশ্যই পালণীয় একটি রেওয়াজে পরিণত হয়েছে। যে রেওয়াজ অনুযায়ী একজন কন্যার পিতা তার মেয়েসন্তানকে বিবাহ দেওয়ার পর মেয়ের শশুর বাড়ির সকল আত্মীয় স্বজনদের জন্য রমজান মাসে বাহারী ইফতার সামগ্রী নিয়ে যেতেই হবে এবং মধু মাস খ্যাত জৈষ্ঠ্য মাসে আম,কাঁঠাল,লিচু,লটকন,জাম,আপেল,আঙ্গুর সহ বাহারী ফল মূল নিয়ে যেতেই হবে যদিও এর নামকরণ করা হয়েছে শধুই ‘আম কাঁঠালী’ এবং এইগুলি শুধু বরের পরিবারই ভক্ষণ করেরন না হাবিগুষ্টি দাওয়াত করে ভক্ষণ করানো হয়। অথচ এই জিনিসগুলি আনতে কনের পিতার উপর দিয়ে কেমন বেগে সাইক্লোন বয়ে গেল তার প্রতি ভ্রুক্ষেপ করার মত সময় বরের পরিবারের কাহারও থাকে না উপরন্তু কোন কিছুর সর্ট পড়লে কটুকথা শুনাতে এক বিন্দুও কার্পণ্য করতে দেখা যায় না।একেই বলে ‘‘কাহারও পৌষ মাস, কাহারও সর্বনাশ’’। এটি এমন একটি রেওয়াজ যা কোন ধনী গরীব ভেদাভেদ করে না, সবার উপরই সমান ভাবে প্রভাব বিস্তার করে। অবশ্য এই রেওয়াজ প্রচলনের জন্য দায়ী আমাদের বিত্তবান বাবারা ,আমাদের লোভ লালসা, আমাদের অপ্রয়োজনীয় আত্মমর্যাদার প্রতিযোগীতা যার কুপ্রভাবের বলি হচ্ছেন শুধুই কন্যার পিতা। এমনও হয় বরের বাড়ি থেকে ডিমান্ড পাঠানো হয় কতটুকু পরিমান জিনিস আনতে হবে, কি কি আইটেম আনতে হবে। অনেক ক্ষেত্রে হুমকিও আসে এই পরিমান বা এটা সেটা না আনলে আনারই প্রয়োজন নেই, আমাদেরত পাড়ায় বা গ্রামে মুখ দেখাতে হবে?। এইসব হুমকিতে কাবু হয়ে ও ডিমান্ডের লিষ্ট অনুযায়ী পন্য নিয়ে যেতে কন্যার পিতাকে ছুটতে হয়। সামর্থ না থাকে ত ধার করজ করে না হয় জমি জমা বিক্রি করে হলেও কন্যার শশুর বাড়ির সম্মান রক্ষা করতেই হবে। এর ব্যত্যয় ঘটলে যে কন্যার উপর নেমে আসবে অমানবিক নির্যাতন,শাশুরী,ননদ,শশুর সহ পরিবারের সবাই ক্ষণে ক্ষণে কটু কথা শুনাতে কোনও দিধা করবে না। এমনকি পাড়া পড়শিও কম যাবে না। একসময় বরও শশুরের উপর বিরক্ত হয়ে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটাতেও এগিয়ে আসবেন স্বরূপে। উপায়ান্তর না পেয়ে সর্ব শেষ মেয়ের ঠিকানা হবে অসহায় বাবার ভাঙ্গা বাড়ি। অনেক ক্ষেত্রে মেয়ে তার বাবা মায়ের উপর বোজা না বাড়াতে বেছে নেন আত্মহত্যার মত কঠিন মুক্তির পথ। হায় ! ‘ইফতারী ও আম কাঁঠালী’ তুই মানুষের মায়া মমতা ও ভালবাসার বন্ধনকেও হার মানিয়ে নির্দিধায় মানবতার উর্ধ্বে স্থান করে নিলি !!!
একটি উদাহরণ দিলে বাস্তব চিত্রপট আরও একটু পরিস্কার হয়। ডুংরিয়া-শান্তিগঞ্জ রোডের একজন অতি পরিচিত রিক্সা চালক ‘আব্দুছ মিয়া’। গ্রামের হতদরিদ্র লোকের মধ্যে তিনি অন্যতম একজন। সারাদিন রিক্সা চালান এবং মাজে মধ্যে অন্যের কাছে হাত পেতে সংসারের ভরণপোষণ করেন। এভাবে সংসার চালিয়ে তিনি মেয়েও বিয়ে দিয়েছেন। বিয়েতে ধার করজ করেও তাকে আনেক আনুষ্ঠানিকতা করতে হয়েছে যা একবারই করে শেষ হয়েছিল। কিন্তু ‘ইফতারী ও আম কাঁঠালী’ যে তার পিছু ছাড়ছে না, ঠিক কাঁঠালের আঠার মতই লেগে আছে কপালে। আব্দুছ মিয়ার সাথে আলাপকালে উচ্চারীত হয় এমনই আকুতি ‘‘ গত খালকে (কাল) আমার আত (হাতে) যে মোবাইল দেখছিলায় ইটা বেছিলিছি। বেইচ্চা আমার ফুরির (মেয়ের) বাড়িত ১মন ইস্তারী (ইফতারী) ফাটাইলিছি। কিতা খরমু (করব) ফুরিরে তিথ দের না (চাপ দেওয়া) ইস্তারী খাইত খরি। হেসে (শেষে) মোবাইল বেইচ্চা ১মন ইস্তারী ফাটাইলিছি টেখা (টাকা) আছিল না আত। খাইলাউক হালার হালাইনতে।’’ আব্দুছ মিয়ার মত দরিদ্র রিক্সা চালকের জন্যও ইফতারী খাওয়ানোর ক্ষেত্রে কোন মাফ নেই। মোবাইল কেন বিটে মাটি বিক্রি করে হলেও ইফতারী চাইই চাই। এরকম আরও হাজার হাজার উদাহরণ আমাদের সমাজে আছে যা আমাদের চারপাশেই ঘটছে অহরহ।
আত্মার সাথে আত্মার মিল ঘটলেইত আত্মীয়তার সম্পর্ক হয়। আত্মীয়তার সম্পর্ক তৈরীর মূল নিয়ামকত শুধুই ভালবাসা। এখানেত লেনদেনের কোন বিষয় থাকতে পারে না। যে কোন ধরনের হিসাব নিকাশের উর্ধ্বে আত্মীয়তার সম্পর্ক হওয়া উচিৎ। আত্মীয়তার বন্ধনে বরের পিতা এবং কনের পিতা সমান অবস্থানে থাকাটাই সাভাবিক এবং সম্মানের। যদি সামর্থবান হয় দুই পক্ষই তাহলে উভয় পক্ষই একে অন্যকে আত্মীয়তার সম্পর্ককে মধুর করতে ‘ইফতারী ও আম কাঁঠালী’ খাওয়াতে পারেন। তবে এক পক্ষকে চাপে ফেলে ‘ইফতারী ও আম কাঁঠালী’ আদায় করে নেওয়াটা অন্যায়। এটা কোন ভাবেই একটা সুস্থ সাভাবিক সমাজে কাম্য হতে পারে না। এতে আত্মীয়তার মধূর সম্পর্কে ছেদ পড়ে এবং তিক্ততা বাড়ে। যা সংসারে অশান্তি ডেকে আনে। আসুন আমরা ‘ইফতারী ও আম কাঁঠালী’ কে অবশ্যপালনীয় রেওয়াজে পরিণত না করে আত্মীয়তার সম্পর্ককে মধূময় করে তুলি। সমাজকে কলোষিত মুক্ত করি। আত্মীয়তার সম্পর্ককে সম্মান জানাই।

লেখক: ফয়ছল আহমদ,প্রভাষক- ডুংরিয়া হাই স্কুল এন্ড কলেজ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com