মঙ্গলবার, ২৮ Jun ২০২২, ০৬:২০ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
মেধাবী সালমান ফার্সীর গল্প..

মেধাবী সালমান ফার্সীর গল্প..

স্টাফ রিপোর্টার :: তার বাবা ছিলেন একজন ব্যাংক কর্মকর্তা। তাই মেধাবী সালমান ফার্সী মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকে অভাব অতটা টের পাননি। বলছিলাম সালমান ফার্সীর কথা যিনি ২০০৭ সালে সুনামগঞ্জের মাইজ বাড়ি আল হেরা মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়ে দাখিল ও ২০০৯ সালে সুনামগঞ্জ সরকারী কলেজ থেকে জিপিএ-৪ পেয়ে এইচ এস সি পাশ করেন। পরবর্তীতে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে স্নাতকে ভর্তি হন, আর ২০১৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই তিনি স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন। ছোট বেলা থেকেই সালমান ফার্সী ছিলেন অসম্ভব মেধাবী এছাড়া সেরা ফলাফলের জন্য তিনি বিভিন্ন সময় পেয়েছেন মেধাবী অ্যাওয়ার্ড। গ্রামের বিদ্যাপীঠ দাখিল মাদ্রাসায় পড়ার সময় সুনামগঞ্জের মাইজবাড়ী গ্রামের সালমান ফার্সী বাংলাদেশ পুলিশ এর এএসপি হবেন কখনো ভাবেনওনী। বাবা ব্যাংকার বিধায় নিজেকে সবসময় ব্যাংকার কিংবা একজন শিক্ষক হবেন সেটাই মনে ছিল তার। অথচ কী আশ্চর্য দেখুন, ৩৫তম বিসিএস (পুলিশ) ক্যাডার ব্যাচের মৌলিক প্রশিক্ষণের সফল সমাপ্তি করল সুনামগঞ্জের ছেলে মাইজবাড়ির সালমান ফার্সী, যে কিনা ছিল আইনের ছাত্র; আর সেই কিনা বেছে নিলো পুলিশের মতো চ্যালেঞ্জিং এক পেশাকে। ১৬ মে ২০১৮ ইং রোজ বুধবার যখন সে রাজশাহী সারদায় তার বেসিক প্রশিক্ষণ শেষ হলো, তখন তাঁর হাতে ট্রেনিং এ বেষ্ট ইন হর্সম্যানশিপ ক্রেস্ট তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার এই কীর্তীত্বে আনন্দে ভাসছে তার নিজ গ্রাম মাইজবাড়ী, পাশাপাশি তার মামার বাড়ি দক্ষিণ সুনামগঞ্জের ডুংরিয়া তে বইছে আনন্দের বন্যা। সালমান ফার্সীর একমাত্র মামা দক্ষিণ সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাহাজান মিয়া বলেন প্রিয় ভাগনার এই কীর্তীত্বে আমরা খুব আনন্দিত, দোয়া করি ভাগনা যেন দেশবাসীর সেবা করতে পারে। এদিকে সালমান ফার্সীর বাবা ব্যাংক কর্মকর্তা আইয়ুব আলী বলেন ছেলের এই কীর্তীত্বে অবশ্যই খুব খুশি, এখন ছেলের কাছে একটাই চাওয়া সে যেনো দেশ ও জনগণের ভালভাবে সেবা করতে পারে। সুনামগঞ্জ জেলার মাইজবাড়ী গ্রাম যা শহর থেকে ৫ কিলোমিটার দুরে অবস্থিত। ব্যাংকার বাবা আইয়ুব আলী বাড়ির ৪ ছেলের মধ্যে সবার বড় সালমান, পরিবারের কর্তা হিসেবে ৫ সদস্যের মুখে খাবার তুলে দিয়েই নিজের দায়িত্ব শেষ করতেন না আইয়ুব আলী, ভাবতেন সবসময় ছেলেদের কথা কিভাবে তাদের মানুষ করবেন। আজ তার চার ছেলের মধ্যে বড় ছেলে সহকারী পুলিশ সুপার এর চেয়ে গর্বের কি হতে পারে? তার মা-খালেদা আক্তার একজন গৃহিনী হলে তাদের ৪ ছেলেকে শিক্ষিত করার ক্ষেত্রে কোন কার্পণ্য করেননী। যার ফল শ্রুতিতে তাদের ২য় ছেলে রোমান আহমেদ আজ শাহাজালাল ভার্সিটিতে অধ্যায়ন করছে। অন্য দুই ছেলেও তাদের সিলেটের নামীদামী কলেজে লেখাপড়া করছে। সালমান ফার্সির মা খালেদা বেগম ছেলের সাফল্যে ভীষণ খুশি, আল্লাহতাওলার অসীম দয়া। প্রত্যাশা ছিল আমার ছেলে একটা ভালো চাকরি করবে, পরিবারের হাল ধরবে, আর মায়ের প্রত্যাশা পূরণ করা এখন সালমান ফার্সির লক্ষ্য। তাই সাহসী মেধাবী সালমান ফার্সির কাছে এখন বোধ হয় আর কোনো কিছুই কল্পনা নয় সবগুলাই বাস্তব।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com