বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৫:১৮ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
জামালগঞ্জের আলীপুর থেকে আছানপুর ফসল রক্ষা বাঁধ হতে পারে মানুষের চলাচলের রাস্তা

জামালগঞ্জের আলীপুর থেকে আছানপুর ফসল রক্ষা বাঁধ হতে পারে মানুষের চলাচলের রাস্তা

স্টাফ রিপোর্টার::
সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলী ইউনিয়নের দুর্গম হাওর এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা এখনও পিছিয়ে রয়েছে। চলাচলের কোন রাস্তা না থাকায় চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন হাওরবাসী। প্রতিদিন হাওরের বিস্তৃর্ন আকাঁবাকাঁ পথ/নদী পেরিয়ে আসতে হয় তাদের উপজেলা সদর ও সাচনা বাজারে। নানা দুর্ভোগের শিকার হতে হয় হাওর বেষ্টিত ও যোগাযোগ বিছিন্ন এলাকা হওয়ায়। উপজেলার বেহেলী ইউনিয়নের বদরপুর থেকে আছানপুর পর্যন্ত পাউবোর ফসল রক্ষা বাঁধই বদলে দিতে পারে এসব হাওর এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থার চিত্র। জানাযায়, আছানপুর-হরিনাকান্দি ভায়া হাওরিয়া আলীপুর হয়ে শরীফপুর পর্যস্ত প্রায় ৩০কি:মি:কাঁচা রাস্তাকে সাবমারজিবল রাস্তা হিসাবে পাকা করনের উদ্ব্যেগ গ্রহন করলে হাওর এলাকার জীবন যাত্রার মান উন্নয়ন হবে। এলাকার মানুষ সহজে যাতায়াত করতে পারবে, চলাচলে সময় খরচ ও কষ্ট দুইই কমে আসবে। হাওরিয়া আলীপুর গ্রামের আলতাব মিয়া, আ:গফুর,রুস্তুম আলী বলেন, এই রাস্তাটি হলে একদিকে হালির হাওরের বেড়ী বাঁধ স্থায়ী হবে অন্যদিকে লোকজন চলাচলের রাস্তা হবে। সরকারের পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবোর) প্রতি বছর এখানে হাওর রক্ষা বাঁধ দিতে হবে না খরচ কমে আসবে। আছানপুর গ্রামের আয়না মিয়া, রাসেল আহমদ বলেন, হাওর বেষ্টিত এই জনগোষ্ঠীকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে সাবমারজিবল রাস্তা করনের বিকল্প নেই।

উপজেলার বেহেলী ইউনিয়নের হরিনাকান্দি গ্রামের ইউপি সদস্য মনু মিয়া বলেন,কেউ অসুস্থ হলে জামালগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে যেতে অনেক সময় নৌকা বা গাড়ী না থাকায় সমস্যায় পড়তে হয়। তাই রাস্তাটি আমাদের প্রানের দাবি। সারা বছর নৌকা দিয়ে চলাচল করতে হয় এলাকার বাসিন্দাদের। জরুরী প্রয়োজনে হেমন্তে হাওরের পথ দিয়ে মোটরসাইকেল যোগে যাতায়াত করলেও অধিক ভাড়া ও ঝুকি নিয়ে চলতে হচ্ছেআর একটু বৃষ্টি হলেই এসব রাস্তায় পায়ে হাটাও মুশকিল হয়ে পড়ে। বেহেলী বাজার থেকে আছানপুর পর্যন্ত যেতে নির্ধারিত কয়েকটি ইন্জিন চালিত নৌকা রয়েছে। কোন কারনে নৌকা চলে গেলে যাত্রীদের আর এইদিন বাড়ীতে পৌছা সম্ভব হয়না। অনেকেই বাধ্য হয়ে আতœীয় স্বজনের বাড়ীতে-সাচনা বাজারে আবাসিক হোটেলে থাকতে হয়।এভাবেই কষ্টকর জীবন যাপন করছেন হাওর এলাকার এসব মানুষ। বর্ষায়কালে হাওরের উত্তাল ঢেউ প্রাকৃতিক দূর্যোগ দেখা দিলে অনেকটা পানিবন্দী অবস্থায় থাকতে হয় আমাদের এমনকি বিছিন্ন হয়ে পড়ে সব ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা। বেহেলী ইউনিয়নের আছানপুর, হরিপুর, সুন্দরপুর, দুর্গাপুর, হিজলা, নোওয়া পাড়া, মদনাকান্দি, মাহমুদপুর, উমেদপুর, হরিনাকান্দি, হাওরিয়া আলীপুর, বদরপুর সহ ১৫টি গ্রামের লোকজন রাস্তার জন্য পিছিয়ে রয়েছেন। রাস্তার জন্য এলাকার শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে অনেক কোমলমতি শিক্ষার্থীদের এমন কি পিছিয়ে পড়েছে জীবনমান ।

উপজেলার বেহেলী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সিরাজুল হক তালুকদার বলেন,অবহেলিত জনপদের মানুষের জীবনমান উন্নয়ন করতে হলে সাবমারজিবল রাস্তাটি নির্মান করা একাস্ত আবশ্যক। সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কতৃপক্ষ দৃষ্টি দিলেই হালির হাওর বেরীবাঁধ শরীফপুর থেকে আছানপুর হয়ে উঠতে পারে হাওরাঞ্চলের বঞ্চিত মানুষের ভাগ্যন্নয়নের চাবিকাঠি। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশল কর্মকর্তা শিপলু কর্মকার বলেন,রাস্তাটি বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন। এ জন্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী প্রধান কার্যালয়ে সাবমারজিবল রাস্তা নির্মানের জন্য প্রস্থাবনা পাঠানো হয়েছে। জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজা আক্তার দিপু বলেন, জনগণের চলাচলের সুবিধার্থে এই রাস্তা নির্মান করা দরকার। রাস্তাটি বাস্তবায়ন করা এলাকার মানুষের দীর্ঘ দিনের দাবী। এতে ১৫-২০টি গ্রামের ২৫ হাজার মানুষের উপকারে আসবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com