শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৩৮ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
ইরাকে নারী প্রার্থীরা নির্বাচনী প্রচারে বিকৃত হয়রানির শিকার

ইরাকে নারী প্রার্থীরা নির্বাচনী প্রচারে বিকৃত হয়রানির শিকার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::
প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের পতনের পর ইরাকে এবার পঞ্চমবারের মতো পার্লামেন্ট নির্বাচন হতে যাচ্ছে। ১২ মে হবে এই নির্বাচন। এ নির্বাচন ঘিরে নারী প্রার্থীদের হয়রানির শিকার হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। কোনো কোনো নারী প্রার্থীর পোস্টার বিকৃত করা হচ্ছে, ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে। এমনকি নারী প্রার্থীদের ভুয়া যৌন ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। এমন এক ভিডিও ছড়িয়ে যাওয়ার ঘটনায় প্রার্থিতাও প্রত্যাহার করেছেন এক নারী। ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরি করে নির্বাচন থেকে নারীদের দূরে সরিয়ে রাখতে এ ধরনের হয়রানির ঘটনা ঘটানো হচ্ছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। দেশটির নির্বাচনী আইন অনুসারে, ৩২৯ আসনের পার্লামেন্টের ২৫ শতাংশ আসন নারীদের জন্য সংরক্ষিত। এ বছর প্রায় ২৬ হাজার নারী এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন; যা মোট প্রার্থীর ৩৭ শতাংশ। নির্বাচন সামনে রেখে পোস্টারে ছেয়ে গেছে ইরাক। নির্বাচনী প্রচারের পোস্টারে দেখা যাচ্ছে, নারী প্রার্থীদের কেউ মাথা স্কার্ফ দিয়ে ঢেকে রেখেছেন। অনেকেই তা করেননি। বেশ সাজগোজ তাঁদের। গত মাসে নির্বাচনী প্রচার হওয়ার শুরু পর থেকেই নারী প্রার্থীদের এমন পোস্টার নিয়ে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে। নারী প্রার্থীদের (মুখমণ্ডল ঢেকে রাখা ও খোলা রাখা—দুই ধরনের পোস্টারই রয়েছে) পোস্টার বিকৃত করা হয়েছে। কোনো কোনো পোস্টার থেকে নারী প্রার্থীদের মুখের অংশ ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে। কারও কারও মুখে গোঁফ এঁকে দেওয়া হয়েছে। এক ব্যক্তির সঙ্গে শয্যায়—সরকারদলীয় জোটের এক নারী প্রার্থীর এমন ভুয়া ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়া হলে ওই নারী তাঁর প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেন।
নারী প্রার্থীদের হেনস্তা করতে এমন আরও কয়েকটি ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে নির্বাচনে নারীরা যেন প্রার্থী হতে না পারেন, এ জন্য এসব কর্মকাণ্ড করে ভীতি তৈরি করা হচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে। জাতিসংঘ বিষয়টিকে ‘ভীতিকর’ বলে মন্তব্য করেছে। ইরাকে সর্বশেষ সংসদ নির্বাচন হয়েছিল ২০১৪ সালে। মাত্র ২২ জন নারী সরাসরি ভোটের মাধ্যমে ওই নির্বাচনে জয়ী হয়েছিলেন। কোটা পূরণের জন্য পরে ৬১ জন নারীকে সংসদে নেওয়া হয়। এঁদের মধ্যে খুব কমই জাতীয় পর্যায়ে মনোযোগ আকর্ষণ করেন। ওই সময়ের প্রধানমন্ত্রী নুরি আল-মালিকির কট্টর সমর্থক হান্নান আল-ফেতলায়ি ছিলেন তেমন একজন নারী। এখন তিনি নিজেই ইরাদাহ নামে একটি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। ভিয়ান দাখিল ছিলেন ইরাকের একমাত্র ইয়াজিদি সম্প্রদায় থেকে আসা নারী এমপি। ইসলামিক স্টেট বা আইএসের কাছে তিনি ছিলেন সবচেয়ে প্রত্যাশিত নারী। তাঁকে তারা ‘মোস্ট ওয়ান্টেড ওমেন’ নামে আখ্যায়িত করত। এ ছাড়া পার্লামেন্টে থাকা বাকি নারীদের দলের সঙ্গে বসে থাকা ছাড়া তেমন কোনো ভূমিকা রাখতে দেখা যায় না। অনেকের অভিযোগ, নারী প্রার্থীদের রাজনীতির বিষয়ে গভীরতার অভাব রয়েছে। তাঁরা চেহারা দেখিয়ে জয়ী হন। কিছু নারী প্রার্থী অবশ্য তা স্বীকারও করেন। দেশটির নারীবিষয়ক সাবেক মন্ত্রী বুশরা জুয়িনি সৌদি আরবের সংবাদমাধ্যম আরব নিউজকে বলেছেন, বড় রাজনৈতিক দলগুলো জানে, কীভাবে ভোটারদের সঙ্গে প্রতারণা করতে হবে। তারা নতুন নতুন মুখ আনে। সেই নবাগতরা রাজনীতি বোঝে না। তাদের কোনো কর্মসূচি বা লক্ষ্যও নেই। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের মতে, সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে, নানাভাবে আক্রমণ করে দৃঢ়চেতা ও স্পটবাদী নারীদের নির্বাচনে অংশ নেওয়া থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করা হয়। কম শিক্ষিত ও দুর্বল প্রার্থীরা নির্বাচনের জন্য রয়ে যান। ইরাকে জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ প্রতিনিধি জান কুবিস বলেন, হয়রানির আশঙ্কায় শিক্ষিত, প্রাণবন্ত, যোগ্য, সাহসী ও উদার নারীরা নির্বাচন করতে ভয় পান।
বিশ্লেষকদের প্রত্যাশা, ২০১৪ সালের চেয়ে এবার নারী প্রার্থীরা ভালো করবেন। কারণ সাম্প্রদায়িকতা, দলবাজি ও দুর্নীতির কারণে অনেক পুরুষ প্রার্থীর ব্যাপারে ভোটারদের বিরক্তি ও হতাশা রয়েছে।
আলী নামে বাগদাদের এক ভোটার বলেন, ‘আমি একজন নারী প্রার্থীকে ভোট দেব। আশা করি, নিজেদের অধিকারের পাশাপাশি তাঁরা আমাদের জন্য সুন্দর একটি ভবিষ্যৎ গড়ার জন্য লড়াই করবেন।’

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com