বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৪০ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
রাশিয়া থেকে অস্ত্র আমদানি নিয়ে বিপাকে ভারত

রাশিয়া থেকে অস্ত্র আমদানি নিয়ে বিপাকে ভারত

অনলাইন ডেস্ক::
রাশিয়ার সামরিক অস্ত্র রপ্তানির ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞার কারণে বেশ বেকায়দায় পড়েছে ভারত। কারণ, একদিকে রাশিয়ার অস্ত্র হাতছাড়া হচ্ছে, যা ছাড়া তারা অনেকটাই অসহায়; অন্যদিকে পশ্চিমা বিশ্বও যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে, তাই তাল মিলিয়ে চলতে হলে যুক্তরাষ্ট্রকে চটানো যাবে না। সব মিলিয়ে ভারত যেন উভয়সংকটে পড়েছে। গত আগস্টে ট্রাম্পের স্বাক্ষরিত এক আইন অনুযায়ী, কোনো দেশ রাশিয়ার প্রতিরক্ষা ও গোয়েন্দা বিভাগের সঙ্গে বাণিজ্য করলে তাদের মার্কিন নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়তে হবে। পাশাপাশি কংগ্রেসের অনুমোদন ব্যতীত চাইলেই প্রেসিডেন্ট রাশিয়ার ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিল করতে পারবেন না। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অস্ত্র রপ্তানিকারক দেশ রাশিয়া। মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের অভিযোগ ও ২০১৪ সালে ক্রিমিয়ায় রুশ সম্প্রসারণের প্রেক্ষাপটে রাশিয়াকে শাস্তি দিতে যুক্তরাষ্ট্র এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। এর সঙ্গে সম্প্রতি সিরিয়ায় বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে রাশিয়ার পরিচালিত অভিযান যুক্তরাষ্ট্রকে আরও খেপিয়ে তোলে। ভারত সবচেয়ে বেশি সামরিক অস্ত্র কেনে রাশিয়ার কাছ থেকে। এ লক্ষ্যে ২০১৬ সালে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মধ্যে ৬০০ কোটি ডলারের চুক্তি হয়। এর মধ্যে সাড়ে ৪০০ কোটি ডলারের বিনিময়ে দূরপাল্লার পাঁচটি এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা রয়েছে। সম্প্রতি দিল্লিতে দুজন কর্মকর্তা রয়টার্সকে জানান, চুক্তির প্রসঙ্গে অনেকটা এগোনোর পর এখন মুখ থুবড়ে পড়ে আছে। নয়াদিল্লির গবেষণা প্রতিষ্ঠান অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশনের কর্মী ও প্রতিরক্ষা কৌশলবিষয়ক বিশেষজ্ঞ অভিজনান রেজ বলেন, পশ্চিমা বিশ্বের নজর দিয়ে দেখলে রাশিয়ার সঙ্গে পশ্চিমা বিশ্বের সম্পর্ক এখন সর্বকালের তলানিতে। আর ভারতের সমর্থনের পাল্লাও কৌশলগতভাবে পশ্চিম তথা যুক্তরাষ্ট্রের দিকেই বেশি। এ অবস্থায় রাশিয়ার কাছ থেকে ব্যাপক অস্ত্র কেনার বিষয়টি এখন অনেকটাই অনিশ্চিত। তবে এ চুক্তির সঙ্গে জড়িত রাশিয়ার এক কর্মকর্তা জানান, এস-৪০০ চুক্তিটি ভারতের আস্থা ও বিবেচনার ওপর নির্ভর করছে।
এই চুক্তির আওতায় রাশিয়ার কাছ থেকে ভূমি থেকে আকাশে ছোড়া যায়—এমন দূরপাল্লার পাঁচটি এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা কিনবে ভারত। বলা হয়, এই ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা শত্রুপক্ষের পারমাণবিক বোমা বহনকারী যুদ্ধবিমান, স্টিলথ ফাইটার জেট, গোয়েন্দা বিমান, ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন শুধু শনাক্তই করতে পারে না, ৪০০ কিলোমিটার গতিতে ৩০ কিলোমিটার উচ্চতায় সেগুলো ধ্বংসও করতে পারে। এ ছাড়া রয়েছে চারটি প্রজেক্ট ১১৩৫৬ ফ্রিগেটস (রণতরি), দ্বিতীয় পারমাণবিক সাবমেরিন ভাড়া নেওয়া ও রাশিয়ার কাছ থেকে ক-২২৬টি ৬০টি হেলিকপ্টার ক্রয়। ভারতের পররাষ্ট্রসচিব বিজয় গোখলে ও প্রতিরক্ষা সচিব সঞ্জয় মিত্র গত মাসে এ সমস্যা থেকে উত্তরণে ওয়াশিংটনে মার্কিন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। তাঁরা জানান, এই নিষেধাজ্ঞা ভারতের সেনাবাহিনীর জন্য সংকট হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাশিয়া থেকে হার্ডওয়্যার, সামরিক সরঞ্জাম সরবরাহ ও সেগুলোর রক্ষণাবেক্ষণে সহায়তা বন্ধ থাকায় তাঁদের জাহাজ চলছে না, উড়োজাহাজ উড়ছে না। যুক্তরাষ্ট্র তাঁদের যেভাবে আঞ্চলিক নিরাপত্তাসঙ্গী হিসেব পেতে চাচ্ছে, এ ক্ষেত্রে তা খুব কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।
তবে ভারতের হতাশা হয়তো কিছুটা কমাতে পেরেছেন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাডমিরাল ফিলিপ এস ডেভিডসন। তিনি ইউএস প্যাসিফিক কমান্ড কমান্ডারের (পেকম) প্রতিনিধিত্বকারী বলেন, কংগ্রেস যদি এখনই এ বিষয়ে পদক্ষেপ না নেয়, তাহলে তা ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা সম্পর্কের জন্য উদ্বেগ হয়ে দাঁড়াবে। পাশাপাশি তার মিত্র দেশগুলোর রাশিয়ার ওপর নির্ভরশীলতা বাড়বে।
রাশিয়ার বিভিন্ন প্রযুক্তি ও প্রশিক্ষণের কারণে ভারত দীর্ঘদিন ধরে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ও পরে রাশিয়ার ওপর নির্ভরশীল।
টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইনের খবরে জানানো হয়, ১৮ এপ্রিল অ্যাডমিরাল ফিলিপ সিনেট আর্মড সার্ভিসেস কমিটিকে বলেন, ‘রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা ঠিক আছে। কিন্তু এতে তৃতীয় কোনো পক্ষ যখন ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তখন আমার মনে হয় যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের মধ্যে আলোচনা হওয়া উচিত। ভারতের নিজস্ব প্রতিরক্ষাব্যবস্থা আছে। তা অবশ্যই বিবেচনায় নিতে হবে।’ একই আশঙ্কা প্রকাশ করেছে হাউস ডেমোক্রেটিক ককাস চেয়ারম্যান কংগ্রেসম্যান জোসেফ ক্রাউলিও। তিনি বলেন, ‘বিষয়টি খুব গুরুত্বপূর্ণ, যা সমাধানে এখন কাজ করা দরকার। ভারতের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ আমাদের লক্ষ্য নয়।’
তবে ওয়াশিংটনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান হিলস অ্যান্ড কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আতমান ত্রিদেবি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি অনুধাবন করে যে ভারত ধীরে ধীরে রুশ নির্ভরতা কাটিয়ে উঠছে, তাহলে হয়তো এই পরোক্ষ নিষেধাজ্ঞার হাত থেকে মুক্তি মিলবে। স্টকহোম পিস ইনস্টিটিউট গত মাসে এক প্রতিবেদনে বলেছে, গত পাঁচ বছরে ভারতের আমদানি করা মোট অস্ত্রের ৬২ শতাংশ ছিল রাশিয়ার, আগের পাঁচ বছরের ৭৯ শতাংশের তুলনায় যা অনেকটাই কম। কারনিজ এন্ডুমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল পিসের একজন পরিদর্শক বিশেষজ্ঞ কারা এবারক্রমবাই মনে করেন যুক্তরাষ্ট্রের এ নিষেধাজ্ঞার প্রভাব যতটুকু ভাবা হয়েছিল, এর চেয়ে বেশি পড়বে। কারণ, অতি বেশি চাপে মিত্ররা হয়তো যুক্তরাষ্ট্রকে পাশ কাটিয়ে রাশিয়ার দিকে ঝুঁকতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন।

সুত্র: প্রথম আলো

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com