বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:৫৯ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা চার বছরে সর্বোচ্চ

কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা চার বছরে সর্বোচ্চ

অনলাইন ডেস্ক::
রাজধানীর চকবাজারের উর্দু রোডে একটি ভবনে টাইলস লাগানোর কাজ করছিলেন রাসেল তালুকদার (২০)। যে জায়গায় কাজ করছিলেন রাসেল, এর কাছেই ছিল নির্মাণাধীন ভবনটির লিফট। রাসেল বুঝতে পারেননি। লিফটের নির্মাণাধীন জায়গাটির কোনো চিহ্নও দেওয়া ছিল না। তিনি ওই অরক্ষিত জায়গায় পড়ে যান। রাসেল বলছিলেন, ‘পইড়্যা যাওয়ার পর আমার কিছু মনে নাই। এরপর হাসপাতালে আছিলাম। এখন বাম পা নষ্ট হয়্যা গেছে। মেরুদণ্ডের সমস্যা। সোজা হইয়্যা দাঁড়াইবার পারি না।’ গত মার্চ মাসের শেষ দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। যে বাড়িতে কাজ করছিলেন, সেই মালিক কিছু টাকা দিয়েছেন। চিকিৎসার বাকি অর্থ দিতে হয়েছে নিজের সঞ্চয় থেকে। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি ছিলেন এই যুবক। রাসেলের এক ভাই ও বোনের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে গেছে। রাসেলের মা এখন নিজেই উপার্জন করেন। পরিশ্রমী দেহটি এখন কর্মহীন। কিন্তু রাসেল এমনটা থাকতে চান না। বলছিলেন, ‘আমারে একটু সাহায্য করার কেউ নাই। মালিক বেশ কিছু টাকা দিছিল। সব তো চিকিৎসায় শ্যাষ। আমারে যদি কেউ একটা ছোট দোকান করার কিছু ট্যাহা দ্যায়, তাও সংসারটা চলে।’ কাজ করতে গিয়ে দুর্ঘটনায় পড়ে শ্রমিকদের নিহত বা আহত হওয়ার ঘটনা ঘটছে প্রতিদিন। এভাবে কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনায় গত বছর দেশে নিহত হয়েছে ৭৮৪ জন শ্রমিক। গত চার বছরের মধ্যে এ সংখ্যা সর্বোচ্চ। চার বছরে দুর্ঘটনায় আহত হয়েছে ৫১৭ জন। আহত শ্রমিকদের মধ্যে নারীর সংখ্যা ১০৯। শ্রমিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজের (বিলস) জরিপে এ তথ্য জানানো হয়েছে। আজ সোমবার জরিপটি প্রকাশ করবে বিলস। মহান মে দিবস উপলক্ষে এ জরিপ করে সংস্থাটি।
দুর্ঘটনায় যাঁরা মরে যাচ্ছেন, অসহায় হয়ে যাচ্ছে তাঁদের পরিবারগুলো। আর আহত হয়ে যাঁরা আছেন, তাঁদের কাটছে এক দুর্বিষহ জীবন। শ্রমিক সংগঠনগুলো বলছে, কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনা রোধে সরকারি-বেসরকারি স্তরে কোনো উদ্যোগ নেই। কর্মস্থলে শ্রমিকের নিরাপত্তার নেই কোনো ব্যবস্থা। হতাহত হলে যাঁদের ভাগ্য ভালো, আইন অনুযায়ী সেই এক লাখ টাকা মেলে। আলমের মতো বেশির ভাগই পায় না সেই অর্থটুকুও। এমন একজন রাজধানীর নাখালপাড়ার বাসিন্দা শহীদুল ইসলাম আলম। ঢাকা থেকে ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে চলা একটি বাসের চালক ছিলেন। ২০০৪ সালের ঘটনা। রাতে ফিরছিলেন হালুয়াঘাট থেকে। ফুলপুরে একটি রিকশাকে বাঁচাতে গিয়ে ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় বাসটির। ডান হাত হারান আলম। এরপর দীর্ঘদিন ধরে চলে চিকিৎসা। নিজের সঞ্চয় এবং আত্মীয়দের কাছে থেকে ধার করে চলে চিকিৎসা। আলম বলছিলেন, ‘একটা পয়সা কেউ ক্ষতিপূরণ দিল না। হাত হারাইলাম, পঙ্গু হইলাম।’ এখন মহাখালী বাস টার্মিনালে একটি বাসের কাউন্টারে টিকিট বিক্রির কাজ পেয়েছেন শ্রমিক আলম। বলেন, ‘এ কাজ না পাইলে পরিবার লইয়া মইর্যা যাওয়া ছাড়া উপায় ছিল না।’ ২০১৩ সালে রানা প্লাজা ধ্বংস হয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি শ্রমিক নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটে। ওই বছর রানা প্লাজাসহ কর্মক্ষেত্রে বিভিন্ন দুর্ঘটনায় মোট ১ হাজার ৭০৬ শ্রমিক নিহত হন। রানা প্লাজার বিয়োগান্ত ঘটনা নাড়া দেয় দেশে-বিদেশে সর্বত্র। কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে শিল্প মালিক, আন্তর্জাতিক ক্রেতা, বিভিন্ন বহুজাতিক সংস্থা নড়েচড়ে ওঠে। তবে এরপরও থামেনি কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকের প্রাণহানির ঘটনা। পরের বছর, অর্থাৎ ২০১৪ সালে ৬০৩ শ্রমিক নিহত হন। ২০১৫ সালে এ সংখ্যা কমে যায় প্রায় অর্ধেক। ওই বছর ৩৬৩ শ্রমিক নিহত হন। তবে ২০১৬-তে এসে এ সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়। মারা যান ৬৯৯ জন শ্রমিক। গত বছর ৭৮৪ জন শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি শ্রমিক মারা গেছেন পরিবহন খাতে—৩০৭ জন। এরপরই আছে আছে নির্মাণশ্রমিক। তাঁদের সংখ্যা ১৩১ জন। ২০১৬ সালের তুলনায় এই দুই খাতেই নিহত শ্রমিকের সংখ্যা বেড়েছে। ওই বছর পরিবহন খাতে নিহত হন ২৪৯ আর ৮৫ জন নির্মাণশ্রমিক। সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক রাজেকুজ্জামান রতন বলেন, ‘পরিবহন, পাথর ভাঙা বা নির্মাণ খাতের মতো খাতে শ্রমঘণ্টা, মজুরির এসবের ক্ষেত্রে নিয়ননীতির কোনো বালাই নেই। গাছ থেকে ফল পড়ার মতো একটি করে জীবন টুপ করে ঝরে যায়, কেউ খেয়াল রাখে না।’ শ্রম অধিকারসংক্রান্ত সমস্ত আলোচনা বা সুযোগ-সুবিধা তৈরি পোশাক খাতের দিকেই নিবদ্ধ। অন্য খাতগুলো তাই দৃষ্টিসীমার বাইরে চলে যায়। এমনটাই মনে করেন বিলসের নির্বাহী পরিচালক সুলতান উদ্দিন আহমদ। তিনি বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনার পর এর দায় সাধারণত চালক ও তাঁর সহকারীর ওপর চাপানো হয়। আর মালিক এর সুযোগ নিয়ে ক্ষতিপূরণ থেকে পার পেয়ে যায়।’
ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়ন, বাংলাদেশের (ইনসাব) হিসাব অনুযায়ী দুর্ঘটনায় হতাহত শ্রমিকদের মধ্যে মাত্র ৩৫ শতাংশ শ্রমিক বা তাঁদের পরিবার ক্ষতিপূরণ পেয়েছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে মালিক ও শ্রমিক মিলে মিটমাট করে ফেলেন। নামমাত্র অর্থ দিয়ে বা না দিয়েই মালিক পার পান। ইনসাবের সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, পত্রিকায় নির্মাণশ্রমিকের নিহত হওয়ার যে খবর আসে, প্রকৃত সংখ্যা তার অনেক বেশি। প্রত্যন্ত অঞ্চলের খবর পাওয়াই যায় না।
তৈরি পোশাকশিল্পে বেশি দৃষ্টি দিয়ে অন্য খাতে সরকার অবহেলা করছে শ্রমিক সংগঠনের এই অভিযোগ মানতে রাজি নন শ্রম প্রতিমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক। তিনি বলেন, ‘নির্মাণ খাতের সংগঠনগুলোর সঙ্গে বার কয়েক বসেছি। এ খাতে অন্য সময়ের তুলনায় নিরাপত্তা বেশি নেওয়া হয়। আর পরিবহন খাতটির সঙ্গে আরও অনেক সংগঠন জড়িত। তাদের সঙ্গে অনেকবার আলোচনা হয়েছে।’ কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনা বাড়লেও তৈরি পোশাকশিল্প ছাড়া অন্য খাতে সরকারি নজরদারি কম বলে শ্রমিকনেতাদের অভিযোগ। প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হকও এ কথা স্বীকার করেন। তবে তিনি বলেন, এ জন্য নজরদারির কাজে থাকা লোকবল অনেক কম। তবে পরিদর্শনের ক্ষেত্রে ২০১৩ সালে যে লোকবল ছিল, এখন তা তিন গুণ বেড়েছে। তারপরও সংখ্যা কম। প্রতিমন্ত্রী জানান, খাত ধরে নিরাপত্তার বিষয় নিশ্চিত করতে তিন বছরমেয়াদি একটি কর্মপরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com