বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
দক্ষিণ সুনামগঞ্জে সোনার ফসল সংগ্রহে কৃষকদের হোড়ায় বসতি

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে সোনার ফসল সংগ্রহে কৃষকদের হোড়ায় বসতি

স্টাফ রিপোর্টার,ছায়াদ হুসেন সবুজ:: দক্ষিণ সুনামগঞ্জের সাংহাই হাওরে সোনার ফসল সংগ্রহে কৃষকদের হোড়ায় বসতি,বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। কৃষকরাই এদেশের প্রধান চালিকাশক্তি, তাইতো ধান সংগ্রহ করার জন্য কৃষকের এত আপ্রান চেষ্টা, ঘাম ঝরা কষ্ট। সোনার ফসল ধান সংগ্রহ করার জন্য জয়সিদ্ধির দরিদ্র কৃষক আজাদ মিয়ার নিজের কোন জমি নেই, তারপর বছরের খাবার জোগার করতে স্ত্রী সন্তান নিয়ে সাংহাই হাওরের এক খন্ড অনাবাদি উঁচু জমিতে ছন ও বাঁশ দিয়ে অস্থায়ী ছোটঘর (স্থানীয় ভাষায় হোড়া) বানিয়েছেন। গত এক সপ্তাহ ধরে সাংহাই হাওরেই রাত্রীযাপন করছেন। কৃষিকাজে স্বামী-স্ত্রী মিলে অন্যর জমি ধানকাটা, মাড়াই, ঝাড়া, শুকানোর কাজ করে ধান পেয়েছেন তিন মণ। গতকাল সাংহাই হাওরে কথা হয় আজাদ মিয়ার সঙ্গে। তিনি জানান, জামলাবাজ গ্রামের কৃষক আব্দুল ওয়াহিদ ধান পাহাড়া দেয়ার কাজ করছেন তিনি। আর তার স্ত্রী দিনে মাড়াই দেয়া ধান শুকানোর কাজ করছেন। তাদেরকে সহযোগীতা করছেন ১২ বছরের ছেলে খালেদ। স্বামী-স্ত্রী মিলে দশ-বার মণ ধান পেলেই তাদের সংসারের সারা বছরের আহার জোগার হবে। পাশের ছোট ঘরে (হোড়ায়) কথা হয় জয়কলস ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামের কৃষক রহিম মিয়ার সঙ্গে। তিনি জানান, সাংহাই হাওরে তাদের দুই হাল (১২ কেদারে এক হাল) জমি আছে। বাড়ি থেকে জমির দুরত্ব অনেক বেশী হওয়ায় হাওরে ধান কেটে মাড়াই দিয়ে বস্তাবন্দি করে রাখছেন। পরে গাড়ি দিয়ে ধান বাড়ি নিয়ে যাবেন। তাই হাওরে অস্থায়ী হোড়া বানিয়ে বসতি স্থাপন করেন। রান্না,খাওয়া সব কিছুই এখন হাওরে। সরেজমিন সাংহাই ঘুরে দেখা গেছে, হাওরে শতাধিক ছোট ছোট অস্থায়ী ঘর রয়েছে। কৃষি কাজের পাশাপাশি রান্নার জন্য চুলা বানিয়ে রান্না-বান্না করছেন। থাকা খাওয়া বিশ্রাম সব কিছু হচ্ছে হাওরের ছোট এই ঘরটিতে। সাংহাই হাওরে এরকম আরেকটি ছোট ছনের ঘরে কথা হয় কৃষক নেকবর আলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ধান তোলার জন্য বিশাল হাওরের এক কোনায় অস্থায়ী ছনের ঘরে রাত্রিযাপন করতে তৈরী করা হয়েছে। তিনি বলেন, ঝড়বৃষ্টি না হলে ভয় করে না, সারা রাত হাওরে মানুষ থাকেন। ঝড়বৃষ্টি এলে অস্থায়ী ঘরে থাকতে ভয় করে। সৃষ্ঠিকর্তার ওপর ভরসা করেই রাত কাটাই। হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন দক্ষিণ সুনামগঞ্জ শাখার সভাপতি রাধিকা রঞ্জন তালুকদার বলেন, হাওরের উঁচু জায়গাতে ধান পরিবহন ও রক্ষনা বেক্ষনের জন্য কৃষকরা অস্থায়ী ছোট ঘর বানিয়ে রাত্রিযাপন করছেন। তিনি বলেন, অনেক দরিদ্র মানুষ আছেন বড় বড় কৃষকের ক্ষতিগ্রস্থ ধান সংগ্রহ করে উপকৃত হচ্ছেন। তিনি বলেন, হাওরে ধান তোলা নিয়ে অন্যরকম উৎসাহ উদ্দীপনা রয়েছে। উপজেলার বেশি সংখ্যক হাওরেই এখন মানুষের চোখে পড়ার মত ভীড়। কৃষকরা বলেন, আল্লার রহমতে এবার খুব ভালভাবে ধান কাটতে পারছি। এই দিনে গত বছর পানিতে ভেসে গিয়েছিল আমাদের ফসল, কিন্তু এবার আমরা গত বছরের বেদনা মুছার জন্য আপ্রান চেষ্টা করছি। আমরা আশা করছি আগামী ১০-১৫ দিনের মধ্যে আমরা সব ধান কেটে শেষ করতে পারব।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com