বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২১, ০৪:০১ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
ছয় বছরেও কাজ হয়নি খাড়াই-পিঠাপশিসহ নয় গ্রামের রাস্তার

ছয় বছরেও কাজ হয়নি খাড়াই-পিঠাপশিসহ নয় গ্রামের রাস্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, শহিদ মিয়া:: 

সুনামগঞ্জ-৩ (দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও জগন্নাথপুর) ও সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক ও দোয়ারাবাজার) এই দুইটি সংসদীয় আসনের শেষ সীমানা এলাকা খাড়াই ও পিঠাপশি। দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পূর্ব পাগলা ও ছাতকের জাউয়া বাজার ইউনিয়নের সংযোগস্থল। সিলেট-সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়ক থেকে খাড়াই, পিঠাপশি, ঘোড়াডুম্বুর, নাজিমপুর, জাইল্যা, চাতারখই, গণিপুর, সাদারাই ও ছয়হাড়ার কিছু অংশসহ প্রায় ৯টি গ্রামের সংযোগ সড়ক। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) সুনামগঞ্জ’র আওতায় এ রাস্তাটি অর্ধ যুগধরে বেহাল অবস্থায় পরে আছে। নির্মাণ তো দূরে থাক সংস্কার করানোর জন্যও কেউ মাথা ঘামাচ্ছেন না। কে করাবে কাজ এমন প্রশ্নে চলে গেছে ৬ বছরেরো বেশি সময়। সময়ের পালা বদলে ক্ষমতা বদলালেও বদলায়নি এ রাস্তার ভাঙ্গা দৃশ্য। কারো চোখে পড়েনি এ রাস্তাটি। ২০০৮-২০০৯ সালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতায় একবার সংস্কার ও কার্পেটিংএর কাজ করানো হলেও এর পরে আর কোনো কাজ হয়নি এ রাস্তায়। তবে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর, সুনামগঞ্জ কার্যালয় থেকে বলা হচ্ছে, চলতি বছরের সেপ্টেম্বর অক্টোবরের দিকে এ রাস্তার কাজ করানো হবে। সিলেট-সুনামগঞ্জ আঞ্চলিক মহা-সড়কের ছাতকের জাউয়া বাউয়া বাজার ইউনিয়নের খাড়াই যাত্রী ছাউনির সামনে থেকে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের পিঠাপশিসহ নয় গ্রামের একমাত্র প্রবেশদ্বার খ্যাত রাস্তাটি মহা-সড়কের শুরু থেকে স্থানীয় খাড়াই পয়েন্ট পর্যন্ত প্রায় ৫শ থেকে ৭শ মিটার জায়গা একেবারে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে আছে। দীর্ঘদিন কোনো সংস্কার বা নির্মাণ কাজ না হওয়ায় তৈরি হয়েছে বড় বড় গর্তের। রাস্তার দুপাশে পর্যাপ্ত মাটির অভাবে কিছুটা অংশ ভেঙ্গেও যাচ্ছে। উপরে বিটুমিনে তৈরি কার্পেটিং উঠে গিয়ে ইটের পুরো অংশও উঠে গিয়েছে। কোনো কোনো জায়গায় একেবারে নিচের মাটিও ওঠে গেছে। গর্তের মাঝে বৃষ্টির পানি জমা হয়ে ছোট ছোট পুকুর আকার ধারণ করেছে। কেউ হঠাৎ দেখলে বুঝতেই পারবে না যে, এটি প্রথমে ইট সোলিং, পরে এর উপরে বিটুমিনের কার্পেটিং করা হয়েছিলো। স্থানীয় লোকদের সাথে আলাপ করে জানা যায় যে, রাস্তার কাজ না হওয়ায় অর্ধ যুগেরও বেশি সময় ধরে বেহাল অবস্থায় পরে আছে ছাতকের খাড়াই থেকে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পিঠাপশি গ্রামের রাস্তার প্রায় ৫শ থেকে ৭শ মিটার জায়গা। এজন্য দুর্ভোগের অন্ত নেই এ রাস্তায় চলাচলকারী খাড়াই, পিঠাপশি, ঘোড়াডুম্বুর, নাজিমপুর, জাইল্যা, চাতারখই, গণিপুর, সাদারাই ও ছয়হাড়ার কিছু অংশসহ প্রায় ৯টি গ্রামের বিশ সহস্রাধিক  মানুষের। ভাঙ্গা রাস্তায় চরম ঝুঁকি নিয়ে ছোট যান চলাচল করলেও হরহামেশাই ঘটে সড়ক দূর্ঘটনার মতো ঘটনা। এসব দূর্ঘটনায় এখনো কেউ নিহত না হলেও আহত হচ্ছেন নিয়মিতই। শুধু যে যাত্রী তা কিন্তু নয়, এ রাস্তায় সাধারণ রোগীদের ভোগ করতে হয় অমানবিক কষ্ট। গর্ভবতী মহিলাদের জন্য এ রাস্তাটি যেনো একটি মরন ফাঁদ। গত বছর ফেব্রুয়ারি মার্চের দিকে পিঠাপশি গ্রামের জহুরা খাতুন (ছদ্মনাম) নামের এক গর্ভবতী মহিলাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় ভাঙ্গা রাস্তার ঝাঁকুনিতে রাস্তার মাঝেই গর্ভপাতের ঘটনা ঘটেছিলো। এছাড়াও প্রতিদিনই বড় বড় গর্তে পরে উল্টে যাচ্ছে রিকশা, অটো রিকশাসহ ছোট ছোট যানবাহন। বছরের শুষ্ক মৌসুমে ধুলোবালুয় একাকার হয় সমস্থ এলাকা।

খাড়াই গ্রামের নূর হোসেন বলেন, ‘রাস্তা ভাঙ্গা থাকায় প্রায় সময় গাড়ি উল্টে পরে। আমরা তুলে দেই। গত বছর পিঠাপশির এক গর্ভবতী মহিলা ভাঙ্গা রাস্তার ঝাকুনিতে রাস্তাতেই সন্তান প্রসব করেছেন।’ এ ব্যপারে জানতে পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আক্তার হোসেনকে বার বার কল দেওয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। সুনামগঞ্জ জেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী ইকবাল আহমদ বলেন, ‘রাস্তাটি প্রকৃত পক্ষে একটি ‘ভিলেজ রোড’। তাই এতোদিন নজরে পরেনি। প্রাইরোটিও পাচ্ছেনা। ইতোমধ্যে আমরা একটি তালিকা করেছি। সে তালিকায় এই রাস্তার কাজ আছে। আশা করছি আগামী সেপ্টেম্বর অক্টোবরের দিকে রাস্তার কাজটা করাতে পারবো।’

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com