সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:৫২ অপরাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
কারাগারে সালমানের সঙ্গে কে সেলফি তুললেন?

কারাগারে সালমানের সঙ্গে কে সেলফি তুললেন?

বিনোদন ডেস্ক:
যোধপুর সেন্ট্রাল জেলে ৪৮ ঘণ্টার বেশি সময় থাকতে হয়েছে সালমান খানকে। কারাগারের অভ্যন্তরের সময়টা এই বলিউড তারকার কীভাবে কেটেছে? কারাগারে তাঁর থাকার ব্যবস্থা আর তাঁকে সরবরাহ করা খাবার নিয়ে এরই মধ্যে নানা খবর প্রকাশিত হয়েছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে। এখন শোনা যাচ্ছে, তিনি নাকি বেশ আরামেই ছিলেন সেখানে। আবার অনেকে এসে নাকি তাঁর সঙ্গে সেলফিও তুলেছেন! জানা গেছে, কারাগারে ‘কয়েদি নম্বর ১০৬’ সালমান খান ছিলেন দুই নম্বর সেলে। পাশে ছিলেন ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত স্বঘোষিত ধর্মগুরু আশারাম বাপু। তবে তাঁর পাশে থাকতে মোটেও ঘাবড়াননি সালমান। আশারাম বাপু দাবি করেছেন, সালমানের সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে। সালমান নাকি তাঁকে বলেছেন, জেল থেকে বেরিয়ে তিনি একেবারেই ধূমপান ছেড়ে দেবেন আর কফি খাওয়া কমিয়ে দেবেন। কারাগারের সেলে যতক্ষণ থেকেছেন, এই তারকা নাকি আরাম-আয়েশেই ছিলেন। পেয়েছেন ভিভিআইপির খাতির। কারাগারে একটি এয়ার কুলার ছিল যোধপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের অন্যতম চিফ অফিসারের কক্ষে। সালমান খান আসার পর নাকি সেই কুলার এনে ২ নম্বর সেলে বসানো হয়। জেল সূত্রের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম লিখেছে, ডিআইজি (কারা) আর জেলারের পরিবার জেলে এসে প্রিয় তারকার সঙ্গে দেখা করেছে। পরিবারের সদস্যরা সেলফিও তুলেছে। কর্তব্যরত পুলিশ আর জেলের কর্মীদের মধ্যেও তাঁর সঙ্গে সেলফি তুলতে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। তবে সালমান কাউকেই হতাশ করেননি। শুরুতে যোধপুর সেন্ট্রাল জেল কর্তৃপক্ষ সংবাদমাধ্যমকে জানায়, সালমান খান কারাগারে কোনো বিশেষ সুবিধা পাবেন না। কিন্তু বাস্তবে দেখা গেছে উল্টো। কারাগারে প্রথম দিন প্রায় মধ্যরাত পর্যন্ত জেলের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সালমান বসেছিলেন এসি ভিডিও কনফারেন্স রুমে। সেখানে টিভি ছিল। দুই দিন নিজের ব্র্যান্ডের সিগারেট খেয়েছেন। নিয়ম অনুযায়ী পরিবারের মানুষজন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদির সঙ্গে সপ্তাহে এক দিন দেখা করতে পারবেন। কিন্তু একই দিনে কখনো দুই বোন, কখনো আইনজীবী, কখনো দেহরক্ষী শেরা, কখনো প্রীতি জিনতা এসে দেখা করেছেন সালমানের সঙ্গে। ডিআইজি প্রথম দিন জানিয়েছিলেন, সালমান সাধারণ খাটে শোবেন। পরে আবার বলা হয়, কম্বল পেতে মাটিতে শুতে হয়েছে নায়ককে। ফলে ধোঁয়াশা ছিল গোড়া থেকেই। অনেক নাটকীয়তার পর গতকাল শনিবার বিকেলে সালমান খানের জামিনের আবেদন মঞ্জুর করেন যোধপুর সেশন কোর্টের বিচারক রবীন্দ্র কুমার যোশি। ৫০ হাজার রুপির ব্যক্তিগত বন্ডে তিনি এই বলিউড তারকাকে জামিন দেন। এরপর সন্ধ্যায় কারাগার থেকে মুক্তি পান সালমান খান। কারাগার থেকে বের হওয়ার সময় ভাইজানের পরনে ছিল কালো টি-শার্ট ও কালো টুপি। সালমান কারাগার থেকে বের হওয়ার সময় বাইরে তাঁর জন্য অপেক্ষা করছিলেন দেহরক্ষী শেরা আর তাঁর দুই বোন আলভিরা ও অর্পিতা। সেখান থেকে সোজা যোধপুর বিমানবন্দরে যান তাঁরা। নিজস্ব চার্টার বিমানে মুম্বাইয়ে ফেরেন। যোধপুর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বেরিয়ে কিংবা মুম্বাই ফিরে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি সালমান।
বলিউডের এই মহাতারকার মুক্তির পর উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন ভক্তরা। যোধপুরে কারাগারের সামনে বাজি ও পটকা ফুটিয়ে আনন্দ করেন সাল্লুর ভক্তরা। জামিনে মুক্তি পেয়ে মুম্বাইয়ে নিজের বাসায় ফেরেন, তখন অনেক রাত। সালমান বাড়ি ফিরতেই আতশবাজি ফাটিয়ে শুরু হয় সেলিব্রেশন। ভাইজানের জন্য গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টের বাইরে অধীর অপেক্ষা করছিলেন ভক্তরা। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে বাড়ির বারান্দায় আসেন সাল্লু। সেখান থেকে ভক্তদের উদ্দেশে হাত নাড়েন ভাইজান। হাত জোড় করে ধন্যবাদ জানান। ইশারা দিয়ে তাঁদের বাড়ি ফিরে ঘুমাতে বলেন। আইনজীবীদের কাছ থেকে সংবাদমাধ্যম জানতে পেরেছে, আদালতের নির্দেশ ছাড়া দেশের বাইরে যেতে পারবেন না সালমান। ৭ মে আবার তাঁকে যোধপুর আদালতে হাজিরা দিতে হবে। আগেই জানানো হয়েছে, সালমান খানকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভারতের রাজস্থান রাজ্যের যোধপুরের একটি আদালত। পাশাপাশি তাঁকে ১০ হাজার রুপি জরিমানা করা হয়েছে। তাঁকে বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইনের ৫১ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। ২০ বছর আগের কৃষ্ণসার হরিণ শিকার মামলার রায় হয় গত বৃহস্পতিবার সকালে। এ মামলায় অন্য তিন অভিযুক্ত সাইফ আলী খান, টাবু ও সোনালী বেন্দ্রেকে আদালত বেকসুর খালাস দিয়েছেন। বলিউডে সালমান খানকে বলা হয় ‘হিট মেশিন’। বৃহস্পতিবার সকালে রাজস্থানের যোধপুর আদালতে সেই সালমান খানকে দোষী সাব্যস্ত করে কারাদণ্ড দেওয়ায় থমকে যায় বলিউড। অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছেন অনেক চিত্র প্রযোজক। কারণ, এরই মধ্যে এক হাজার কোটি রুপির বেশি লগ্নি করা হয়েছে এই নায়ককে ঘিরে। রায় হওয়ার পর সাংবাদিকদের কাছে সালমান খানের আইনজীবী এইচ এম সারস্বত দাবি করেন, সরকারি কৌঁসুলি অভিযোগের সপক্ষে প্রমাণ সংগ্রহ করতে পারেননি। মামলা সাজাতে ভুয়া সাক্ষী দাঁড় করিয়েছেন। এমনকি বন্দুকের গুলিতেই যে কৃষ্ণসার দুটির মৃত্যু হয়েছিল, তা-ও সরকারি কৌঁসুলি প্রমাণ করতে পারেননি। গত ২৮ মার্চ নিম্ন আদালতে কৃষ্ণসার মামলার চূড়ান্ত পর্যায়ের শুনানি শেষ হয়। প্রত্যক্ষদর্শী ব্যক্তিদের দাবি, ১৯৯৮ সালের ১ ও ২ অক্টোবর যোধপুরে ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ ছবির শুটিংয়ের মাঝে আলাদা জায়গায় দুটি কৃষ্ণসার হরিণ শিকার করেন সালমান খান। ওই সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন সাইফ আলী খান, নীলম, টাবু ও সোনালী বেন্দ্রে। রাজস্থানের যোধপুরের কঙ্কানি এলাকায় গ্রামের ক্ষুদ্র জাতিসত্তা বিষ্ণোইর অধিবাসীদের অভিযোগ, গুলির শব্দ শুনে তাঁরা সালমানের জিপসি গাড়িটি ধাওয়া করেন। কিন্তু তাঁদের ধরা যায়নি। ওই সময় চালকের আসনে ছিলেন সালমান খান। গ্রামবাসীর দাবি, প্রবল গতিতে গাড়ি ছুটিয়ে সালমান খান আর তাঁর সঙ্গীরা পালিয়ে যান। বেআইনিভাবে জঙ্গলে ঢোকার অভিযোগে সালমান খান আর অন্য তিন তারকার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৪৯ নম্বর ধারায় মামলা এখনো চলছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com