শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৫:৪৪ পূর্বাহ্ন

pic
সংবাদ শিরোনাম :
রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা, ১৯ ফেব্রুয়ারি ভোট সিলেটে যেভাবে পাওয়া যাবে বিপিএলের টিকিট শান্তিগঞ্জে নবনিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের বরণ তাসকিনের গতিঝড়ে বিধ্বস্ত খুলনা, ১০৮ রান নিয়ে জিতলো ঢাকা রুদ্ধশ্বাস শেষ ওভারে সাকিবের বরিশালকে হারালো মাশরাফির সিলেট ৪৮ ঘণ্টার ব্যবধানে আবারও যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকহামলা, নিহত ৯ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মোহাম্মদ শাহ জাহান আর নেই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এসোসিয়েশনের দপ্তর সম্পাদক হলেন এল.আর জায়গীরদার খোকন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এসোসিয়েশন সম্পাদক হলেন শাহিনুর রহমান শাহিন শান্তিগঞ্জে রাতের আঁধারে শীতার্তদের ঘরে ঘরে গিয়ে কম্বল বিতরণ 
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ধান কাটতে শুরু করেছেন কৃষকেরা শ্রমিক সংকটের আভাস

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ধান কাটতে শুরু করেছেন কৃষকেরা শ্রমিক সংকটের আভাস

আলাল হোসেন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ:
পঞ্চাষোর্ধ আবদুল গফুর। পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের শত্রুমর্দন (বাঘেরকোনা) গ্রামের সাধারণ কৃষক। পাগলার সিচনীর হাওর ও ডাবর সংলগ্ন ডুকলাখাই হাওর মিলিয়ে মোটে ১১ কিয়ার (প্রায় ৪ একর) ধানী জমি চাষ করেছিলেন তিনি। বুধবার থেকে ডুকলাখাই’র নবীনগর গ্রামের কাছ থেকে তাঁর প্রথম ধান কাটা শুরু। ধান কাটা শুরু হয়েছে- এমন খবর পেয়ে এ প্রতিবেদক তাঁর জমিতে যান। সেখানে গিয়ে তাঁকে পাওয়া জায়নি। তাঁর যুবক ছেলে আঙ্গুর মিয়া এ প্রতিবেদককে দেখে এগিয়ে আসে। রাস্তার পাশে ধানের আঁটি গোছানোর কাজে ছিলো সে। তার চোখে মুখে সে কি আনন্দের ঝিলিক! খুব হাসিমুখেই তাদের গত তিন বছরের বিশেষ করে গত বছরের ফসল হারানোর কথা বলে যাচ্ছিল। তার মুখে হাসি এবার এজন্যই যে, জমিতে ধান কাটতে পারছে তারা। এ তো গেলো পশ্চিম পাগলার কৃষক আবদুল গফুর আর আঙ্গুর মিয়ার গল্প। একই ভাবে ধান কাটতে পারবেন ভেবে স্বস্তির কথা জানালেন পূর্ব বীরগাঁওয়ের ধরমপুর গ্রামের ষাটোর্ধ কৃষক মশিক আলী। কোনাডুপি ও রাঙ্গামাটির হাওরে তাঁরও প্রায় ১০ কিয়ার বা সাড়ে তিন একর জমি। ধান কাটা এখনো শুরু করেননি তিনি। তবে কাঁচা ধান হলদেটে ভাব ধরেছে। যেভাবে রোদ হচ্ছে এভাবে হলে সর্বোচ্চ এক সপ্তাহ লাগবে তাঁর। তাই তিনি খুশি। তবে কিছুটা ভয় কাজ করছে তাঁর ভিতরে। যদি শিলাবৃষ্টি হয় তাহলে পাকা ধান তেঁতলে যেতে পারে। পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নের উমেদনগর গ্রামের বর্গাচাষী শাফিক মিয়া। বয়স শেষের পথে। আবচা চোখে ধানখেতের দিকে তাকিয়ে তিনে বলেন, ‘ইবার আল্লায় দিয়া গেলে ঋণ শোধ করতাম। জমিনের মালিক দিয়াও ১শ থেকে দেড়’শ মন ধান তোলতে পারমু। বউত টেখা সুদো ঋণ আছি। খালি ধান দেখাইয়া রাখরাম।’ কেনো সুধে ঋণ এনেছেন প্রশ্নে এ জাত কৃষক শাফিক মিয়া বলেন, ‘কিতা যে কউরে বাবা, তিন বছর ধরি ধান পাইনা। তোমরার লাখান শিক্ষিতও নায়। চলেরাম যে কিলা তা একমাত্র আল্লায় জানইন। মাইষের কামো কাজো যাই। কাম না পাইলে ঋণ করি চলি।’ ঋণের পরিমান কত হবে জানতে চাইলে কিছুক্ষণ ভেবে বলেন, ‘লাখ টেখার কম তো অইতো নায়।’ একই দৃশ্য মশিক আলীরও। এ বছর ধান পাওয়ার আশা করছেন কৃষকরা। কম হলেও কিছু ধান ঘরে তোলতে পারবেন। তবে কিভাবে ঘরে তোলবেন সে ধান। ধান কাটার শ্রমিকের সংকট তো এখনই দেখা দিয়েছে। প্রত্যেকে যার যার জমি নিয়ে ব্যস্ত। বৃষ্টি নামার আগেই ধান ঘরে তোলে নিশ্চিত হতে চান কৃষকরা। আর সপ্তাহ সময় পার হলেই একসাথে ধান কাটার ধুম পড়বে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের দেখার হাওর, খাইহাওর, পাখিমারা হাওর, জামখলার হাওর, কোনাডুপির হাওর, খাচিভাঙ্গার হাওর, পাগলার দক্ষিণের হাওর ও নাগডরার হাওরসহ ছোট বড় প্রায় সকল হাওরেই। তাই ধান কাটার শ্রমিকেরও সংকট পড়তে পারে। এজন্য কৃষকরা আগে থেকেই শ্রমিক মিলানোর চেষ্টা করে যাচ্ছেন। শ্রকিরাও প্রস্তুতি নিচ্ছেন। নূর মিয়া ও মুসলিম মিয়া নামের পূর্ব পাগলার দুই ধান কাটার শ্রমিক জানান, ‘আমরা অনে খুব ব্যস্ত আছি। প্রচুর কাম আছে। ধান কাটাও শুরু। যদি ধান কাটা পুরাপুরি আড়ম্ভ অইযায় তাইলে আমরার রোজ বেশি পড়বো।’ কারণ জানতে চাইলে তারা জানান, ‘ধান কাউটরা কম ইবার।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com