বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
জগন্নাথপুরে অনেক বেরীবাঁধে এখনও কাজ শুরু হয়নি

জগন্নাথপুরে অনেক বেরীবাঁধে এখনও কাজ শুরু হয়নি

সানোয়ার হাসান সুনু,জগন্নাথপুর থেকে:সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে হাওর রক্ষা বেরীবাঁধ নিয়ে চলছে তুঘলকি কারবার। ২য় দফা সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরও অনেক বেরীবাঁধে কাজই শুরু হয় নি। অথচ পিআইসিদের ৫০% টাকা দেওয়া হয়েছে। কাজ না করেই সরকারি বরাদ্দকৃত টাকা লুটপাট করা হচ্ছে। উপজেলার হাওর রক্ষায় ৯২টি পিআইসির মধ্যে দ্এুকটি পিআইসি ছাড়া প্রায় সবগুলো আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠন সমূহের নেতাকর্মীদের দ্বারা গঠিত। অভিযোগ রয়েছে,পিআইসিগুলোর অনেকে গতবার বিপুল অংকের টাকা আত্মসাৎ করে এদেরকে এবারও পিআইসি সভাপতি হিসাবে রাখা হয়েছে। শুধু সভাপতি নয় একেকজন ৪/৫ টি বাঁধের কাজ বাগিয়ে নিয়েছে। কাজ নিয়ে তারা পরিবারের লোক ও ঘনিষ্ট আত্মীয়দের দিয়ে পিআইসি কমিটি করে টাকা আত্মসাৎ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ রকমই একজন পিআইসি সভাপতি হচ্ছেন চিলাউড়া-হলদিপুর ইউপি চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা আরশ মিয়া। তিনি ৬৩ লাখ টাকার কাজ বাগিয়ে নিলেও এখন পর্যন্ত (২০ মার্চ-১৮) বেরীবাঁধ গুলোতে কাজ শুরু করেন নি। অথচ তিনি ৫০% টাকা তুলে নিয়েছেন। কাজ না করেই সাড়ে ৩১ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে স্থানীয় কৃষকরা অভিযোগ করেছেন। মঙ্গলবার নলুয়া ও মই হাওর সরেজমিন পরিদর্শন কালে স্থানীয় অনেক কৃষকদের সাথে আলাপ হয়। এ সময় হাওরপাড়ের ভুরাখালী গ্রামের কৃষক ছিদ্দিকুর রহমান জানান,আওয়ামীলীগ নেতা আরশ মিয়া চেয়ারম্যান নলুয়া ও মই হাওরের পোল্ডার-১ এ বেরীবাঁধে একটুকরী মাটি ফেলেন নি। বিগত বছরের মত এবারও সে বিপুল অংকের টাকা লুটপাটের মাধ্যমে আত্মসাৎ করে নিয়েছে। বিগত বছরও সে বাঁধের কাজ না করে মোঠা অংকের টাকা আত্মসাৎ করে। বাঁধ না করায় অকাল বন্যায় হাওরের পাকা বোরো ফসল তলিয়ে যায়। ঐ সমস্ত দূর্নীতিবাজদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবীতে আমরা কৃষক সমাজ আন্দোলন করি। পরে সে সরকারি দলের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে উর্দ্ধতন নেতা ও কর্তাদের ম্যানেজ করে পার পেয়ে যায়। এবারও লুটপাটের মহাৎসব চলছে।
হাওরপাড়ের চিলাউড়া গ্রামের শহিদুল ইসলাম বলেন,এবার ভয়াবহ দূর্নীতি চলছে। সরকারি বরাদ্দ ৪/৫ গুন বৃদ্ধি করে অপ্রয়োজনীয় বাঁধের নামে অপচয় করা হচ্ছে। বহুবাঁধ রয়েছে যেখানে এখনও মাটি ফেলা হয় নি। আবার অনেক বাঁধে নামমাত্র মাটি ফেলে ভাগাবাগির মাধ্যমে টাকা লুটপাট করা হচ্ছে।
নলুয়ারহাওর পাড়ের বেতাউকা গ্রামের কৃষক মফিজ মিয়া বলেন,সরকারি নীতিমালার প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে স্থানীয় কৃষকদের কমিটিতে না রেখে সরকার দলীয় বহিরাগতদের দিয়ে কমিটি করে দায়সারা ভাবে মাটি ফেলা হয়েছে। নলুয়ার হাওর পাড়ের বেরী গ্রামের কৃষক ফখরুল ইসলাম বলেন, এবার সর্বোচ্চ বরাদ্দ দেওয়া হলেও কৃষকদের ভাগ্যের উন্নয়ন নেই। বাঁধের নামে শুরু হয়েছে মৌসুমী বাণিজ্য। অনেক জায়গায় এখনও বেরীবাঁধ না হওয়ায় আমরা কৃষকরা খুবই চিন্তার মধ্যে আছি। বাঁধের নামে বরাদ্দকৃত বিপুল অংকের টাকা এবার চলে যাচ্ছে আওয়ামী সাইনবোর্ডধারী পিআইসি সভাপতি, সেক্রেটারী ও সদস্যদের পকেটে। অনেক জায়গায় একই পরিবারে ৪/৫টি পিআইসি রয়েছে।

পাউবোর নীতিমালা অনুযায়ী সময় পেরিয়ে গেলেও হাওরের ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধের কাজ শুরু না করে প্রকল্পের সভাপতি উপজেলার চিলাউড়া-হলদিপুর ইউপি চেয়ারম্যান আরশ মিয়া ও তার আত্বীয় স্বজনদের নিয়ে টাকা লুটপাটের পায়তারা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সোমবার বিকেলে হাওরপারের বেরি গ্রামের কৃষকরা উপজেলার কাবিটা কমিটির সভাপতি জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। কৃষকদের লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়,উপজেলার নলুয়ার হাওর ব্যষ্টিত চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া নলুয়া ও মই হাওরের পোল্ডার-১ এ তার নিজ নামীয় প্রকল্প নং- ১০৮ (বরাদ্দকৃত ২৪ লাখ টাকা) ও তার আপন ভাগ্না মিলন মিয়ার প্রকল্প নং- ২৯, (বরাদ্দকৃত ১৬ লাখ ১৩ হাজার টাকা) ভাতিজা মিজানুর রহমান এর প্রকল্প নং- ২৮ (বরাদ্দকৃত ১৭ লাখ ২৮ হাজার টাকা) ও আরেক ভাতিজা রইছ উদ্দিন প্রকল্প নং- ১৭ (বরাদ্দকৃত ৫ লাখ ২৭ হাজার টাকা) এই চারটি প্রকল্পে (২০ মার্চ’১৮) পর্যন্ত কোন কাজ শুরু হয় নি। সময়ক্ষেপন করে সরকারের বরাদ্দকৃত অর্থ আত্মসাতের চেষ্টা চলছে। প্রকল্পগুলোর কাজ যথাসময়ে না হওয়ায় নলুয়ার হাওরের বোরো ফসল তলিয়ে যাওয়ার আশংকা করছেন কৃষকরা। অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে,বেরী জামে মসজিদ থেকে গোপরাপুরের নদী পর্যন্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি মিজানুর রহমান ও মিলন মিয়া এখনও কোন কাজ শুরু করেন নি। ফলে পুরো নলুয়ার হাওর অরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে। একইভাবে ইউপি সদস্য জুয়েল মিয়ার প্রকল্প বেরী থেকে নোয়াখালী বাঁধ পর্যন্ত বেরী বাঁধের নামে দায়সারা কাজ করে টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেছেন।
কৃষক জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগ করে বলেন,চেয়ারম্যান আরশ মিয়া তার আত্মীয় স্বজনদের নিয়ে পিআইসি গঠন করে লুটপাটের চেষ্ঠা করছেন। দুইবার সময় বাড়ানো হলেও তিনি কাজ শুরু করেনি। প্রকৃত কৃষকদের না দিয়ে কমিটি করে নিজের আত্মীয়-স্বজনদের দিয়ে প্রকল্প গঠন করে টাকা লুটপাট করছেন। এ ব্যাপারে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি সভাপতি,ইউপি চেয়ারম্যান আরশ মিয়া সাথে আলাপ হলে তিনি জানান,অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,আমার প্রকল্পে কাজ শুরু করেছি। মিলন ও মিজানুরের প্রকল্পে বাঁধের জায়গা নিয়ে বিরোধ থাকায় কাজ শেষ করতে বিলম্ব হচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ’র সাথে আলাপ হলে তিনি জানান,যারা কাজে গাফলাতি করছেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উল্লেখ্য উপজেলার নলুয়া ও মই হাওরসহ কয়েকটি হাওরে এবার ৬৮ কিলোমিটার হাওর রক্ষা বেরীবাঁধ নির্মানে সাড়ে ১৪ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com