রবিবার, ২৬ Jun ২০২২, ১০:১১ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
জগন্নাথপুরে ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের ৪টি প্রকল্পের কাজ এখনো শুরু হয়নি!

জগন্নাথপুরে ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের ৪টি প্রকল্পের কাজ এখনো শুরু হয়নি!

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ২৪ ডেস্ক:
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে নলুয়ার হাওর ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধের ৪টি প্রকল্পের কাজ এখনো শুরুই হয়নি। এ নিয়ে স্থানীয় কৃষকদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,উপজেলার নলুয়ার হাওর বেষ্টিত চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়ার নিজ নামীর প্রকল্প নং-১০৮ ও তাঁর আপন ভাগ্নে মিলন মিয়ার প্রকল্প নং-২৯,ভাতিজা মিজানুর রহমান প্রকল্প নং-২৮ ও আরেক ভাতিজা রইছ উদ্দিন প্রকল্প নং-১৭ এই চারটি প্রকল্পে কাজ ১৯ মার্চ পর্যন্ত কোন কাজ শুরু হয়নি। প্রকল্পগুলোর কাজ যথাসময়ে না হওয়ায় নলুয়ার হাওরের বোরো ফসল তলিয়ে যাওয়ার আশংকা করছেন কৃষকরা। চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের বেরী জামে মসজিদ থেকে গোপরাপুরের নদী পর্যন্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি মিজানুর রহমান ও মিলন মিয়া এখনও কোন কাজ শুরু করেন নি। ফলে পুরো নলুয়ার হাওর অরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে। একইভাবে ইউপি সদস্য জুয়েল মিয়ার প্রকল্প বেরী থেকে নোয়াখালী বাঁধ পর্যন্ত বেড়ীবাঁধে নামমাত্র কাজ করে টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন কৃষকরা। সরেজমিন পরির্দশনকালে দেখা যায়,নলুয়া হাওরের পোল্ডার-১ এর ১০৮ নম্বর প্রকল্পের মইয়ার হাওরস্থ বেড়িবাঁধের প্রায় এক কিলোমিটার প্রকল্পের মধ্যে শুধু একটি ভাঙা অংশে মাটি ভরাটের কাজ হয়েছে। ওই বাঁধের অধিকাংশ স্থানে মাটি পড়েনি। পাউবোর নীতিমালা অনুযায়ী বাঁধের কাজের বিতরণ উল্লেখ করে বাঁধের পাশে সাইন বোর্ড সাটানোর কথা থাকলেও সরেজমিনে সাইন বোর্ড দেখা যায়নি।
একটি সূত্র জানিয়েছে এরই মধ্যে এ প্রকল্পের ৫০ ভাগ অর্থ উত্তোলন করা হয়েছে। কিন্তু কাজ হয়েছে নামমাত্র। এখন পর্যন্ত বাঁধের কাজ শেষ না হওয়ায় স্থানীয় কৃষকরা হাওরের ফসল নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। এছাড়াও ওই প্রকল্পের পাশের ১১০ নম্বর পিআইসির কাজ এখনও শেষ হয়নি।
এদিকে সোমবার (১৯ মার্চ) দ্রুত কাজ করার দাবিতে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট স্থানীয় বেবী গ্রামের কৃষক জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে প্রায় অর্ধশতাধিক কৃষক সমবেত হয়ে গণ-স্বাক্ষরিত একটি আবেদন জানিয়েছেন। এতে উল্লেখ করা হয় এসব প্রকল্পে কাজ না করে বরাদ্দকৃত টাকা আত্মসাতের চেষ্টা চলছে। চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া বলেন,পাউবোর নীতিমালা অনুযায়ী কৃষকদের নিয়ে পিআইসির (প্রকল্প বাস্তবায়ক কমিটি) কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিনি বলেন, সব প্রকল্পেই কাজ চলছে। হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন কমিটির জগন্নাথপুর উপজেলার কমিটির আহবায়ক সিরাজুল ইসলাম বলেন,হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণের দ্বিতীয় দফা সময়সীমা পেরিয়ে যাওয়ার চারদিন (১৯ মার্চ পর্যন্ত) অতিবাহিত হওয়ার পরও বেড়িবাঁধগুলোর কাজ শেষ না হওয়ায় চরম হতাশ হয়েছি আমরা। তিনি দ্রুত অসমাপ্ত কাজগুলো শেষ করার আহবান জানিয়েছেন। উপজেলা কাবিটা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ বলেন,যে সব প্রকল্পের কাজ শেষ হয়নি। সেই সব প্রকল্পের পিআইসিদের কারণ দর্শানোর নোটিশ এরই মধ্যে দেওয়া হয়েছে। কৃষকদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিষয়টি তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। উল্লেখ্য,গত বছর জগন্নাথপুরের সর্ববৃহৎ হাওর নলুয়া সহ ছোট বড় সব হাওরে হাওর রক্ষা বেড়ীবাঁধ নির্মাণে প্রায় ৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দিলেও হাওরের বেড়িবাঁধগুলোতে নামমাত্র মাটি ফেলে অধিকাংশ টাকাই লুটপাট করে নিয়ে যায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও সরকার দলীয় নেতাকর্মীদের দ্বারা গঠিত পিআইসি ও ঠিকাদাররা। পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক নির্মিত নিম্নমানের বেড়ীবাঁধ ভেঙে জগন্নাথপুরের সবক’টি হাওরের আধাপাকা ফসল পানিতে তলিয়ে যায়। ফলে নানা কষ্টে জীবন যাপন করতে হচ্ছে কৃষকদের। এবার বোরো ফসল চাষাবাদের শুরুতেই প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে পড়েন কৃষকরা। হাওর থেকে দেরিতে পানি নামায় শুরু থেকে বোরো আবাদ ব্যাহত হতে থাকে। এর সঙ্গে শৈত্যপ্রবাহের কারণে বীজতলায় ব্যাপক ক্ষতি হয়। এরপরও কৃষকরা থেমে নেই। জীবন-জীবিকার তাগিদে বুক ভরা আশা নিয়ে কৃষকরা নেমেছেন চাষাবাদে এবছর উপজেলার নলুয়া,মইয়া,পিংলাসহ ছোট বড় ১৫টি হাওরের প্রায় ২৫ হাজার হেক্টর বোরো ফসলের চাষাবাদের আওতায় আনা হয়েছে বলে জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com