রবিবার, ২৬ Jun ২০২২, ০৮:০৬ পূর্বাহ্ন

pic
নোটিশ :
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে!! জেলা উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে বিস্তারিত জানতে : ০১৭১২-৬৪৫৭০৫
মাহমুদুল্লাহর বীরত্বকাব্য: ফাইনালে বাংলাদেশ

মাহমুদুল্লাহর বীরত্বকাব্য: ফাইনালে বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্ক:
ওভারের পঞ্চম বলে ইসুরু উদানার সাদা বলটাকে যখন দারুণ ফ্লিকে মাহমুদুল্লাহ মিড উইকেটের উপর দিয়ে উড়িয়ে গ্যালারীতে ফেললেন, হাজারো লংকানের সামনে অল্প কটা বাঘের গর্জনে প্রকম্পিত হয়ে উঠলো প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম। কারণ? বাংলাদেশ যে নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে!

টি টোয়েন্টি টানা ৫ ম্যাচে হার। এরপরই নিদাহাস ট্রফিতে নিজেদের প্রথম ম্যাচে লংকানদের মুখোমুখি বাংলাদেশ। ২১৪ রান তাড়া করে মুশফিকের ব্যাটে ইতিহাস সৃষ্টিকারী সেই প্রথম জয়ের পর ভারতের কাছে পরের ম্যাচ হারায় আজকের ম্যাচটা অলিখিত সেমিফাইনালই হয়ে গিয়েছিলো টাইগারদের জন্য।

টি টোয়েন্টিতে ক্রমাগত ব্যর্থতার সমালোচনায় জর্জরিত টাইগারদের বাঁচা মরার ম্যাচে খেলতে একরকম জোর করেই কলম্বো গেলেন সাকিব আল হাসান। কোচ ওয়ালশের সন্দেহ থাকলেও যে করেই হোক খেলবেন এই ম্যাচে, এমন উদ্দেশ্যই ছিলো তার।

টসে জিতে বোলিং নিয়ে দারুণ শুরু করলেন নিজেই। তৃতীয় ওভারে তুলে নিলেন গুনাথিলাকা কে। এরপর সাকিব, মিরাজ, মুস্তাফিজ, রুবেলদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং এ একের পর এক উইকেট হারানোর পর এক সময় গিয়ে লংকানদের স্কোর গিয়ে দাঁড়ালো ৪১/৫! বড় টার্গেট দিতে মরিয়া লংকানদের হয়ে হাল ধরলেন কুশাল পেরেরা আর থিসারা পেরেরা। থিসারার ৫৮ এবং কুশাল পেরেরা ৬১ রানের ঝোড়ো ব্যাটিং শেষে টাইগারদের জন্য টার্গেট গিয়ে দাঁড়ালো ১৬০। মুস্তাফিজ নিলেন ২টি উইকেট এবং বাকি রা নিলেন ১টি করে।

গত ম্যাচে লংকানদের বিপক্ষে ২১৪ রান তাড়া করে জয়ের পর এবার খানিকটা বুদ্ধির খেলা খেলেছে শ্রীলংকা। এই ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচে বাউন্ডারিটা বড় করে দেয়া হলো। তাতে ভালোই ভুগেছে টাইগাররা। একের পর দারুণ শটেও বাউন্ডারী পাচ্ছিলেন না ব্যাটসম্যানরা। এরপর তামিম ইকবালের হাফ সেঞ্চুরি এবং মুশফিকের ২৮ রানে দারুণ ছন্দে খেলতে থাকা টাইগাররা ছন্দ হারালো স্লগ ওভারে গিয়ে। প্রথমে থিসারার ক্যাচে পরিণত হয়ে আউট হলেন মুশফিক, তারপরই মারতে গিয়ে আউট হলেন দলে ফেরা সাকিব। খেই হারিয়ে ফেলা দলের এক প্রান্ত আগলে ধরে দাঁড়ালেন সেই চিরচেনা মাহমুদুল্লাহ। একে একে তার সামনেই রান আউট হলেন মেহেদী মিরাজ এবং মুস্তাফিজ।

শেষ ওভারে ১২ রান দরকার ছিলো টাইগারদের। দ্বিতীয় বলে মুস্তাফিজ রান আউট হলেও আম্পায়ারের সাথে তর্কে জড়ালেন মাহমুদুল্লাহ। টি টোয়েন্টি ফরম্যাটে ওভারে একটি বাউন্সার এলাউড হলেও বোলার উদানা পরপর দুটি বাউন্সার দেয়ার পরও ওয়াইড বা নো বল কোনটিই কল করেন নি আম্পায়ার। সেই তর্কের উত্তাপ ছড়িয়ে পড়লো মাঠের বাইরেও। আঙুল তুলে একাদশের বাইরে থাকা সোহানকে দেখা গেলো মাঠে ঢুকে শাসাচ্ছেন থিসারা পেরেরা কে। প্যাভিলিয়ন থেকে বেরিয়ে এলেন সাকিবও, উত্তেজিত অবস্থায় ক্রিজে থাকা মাহমুদুল্লাহ এবং রুবেলকে বললেন মাঠ ছেড়ে ফিরে আসতে। তবে শেষে পরিস্থিতি ঠান্ডা হলে মাহমুদুল্লাহ ঠিকই ফিরলেন মাঠে। তখনও টাইগারদের প্রয়োজন চার বলে ১২ রান।

ফিরেই হাঁকালেন চার। তার পরের বলে নিলেন দুটি রান। এরপর প্রয়োজন ছিলো দুই বলে ছয় রান। অতীতে বহু ম্যাচ এভাবে টাইগারদের জিতিয়েছেন। বহু ম্যাচে একপ্রান্ত আগলে ধরে এভাবেই জয়ের বন্দরে নিয়েছেন টাইগারদের। উদানার পঞ্চম ডেলিভারীর আগে হয়তো একবার চোখ বন্ধ করে সেই সময়গুলোরই স্মৃতিচারণ করলেন।

পঞ্চম বলটি এলো হাফ ভলি লেংথে। ফুটওয়ার্ক দেখিয়ে করলেন দারুণ টাইমিং। প্রেমাদাসার আকাশে উজ্জ্বল ফ্লাডলাইটের আলোকরশ্মি চিরে উড়তে উড়তে বল গিয়ে পড়লো মিড উইকেটের গ্যালারীতে। ততক্ষণে নিস্তব্ধ হয়ে গেছে গ্যালারী। এক কোনায় তাও শোনা যাচ্ছে গর্জন। অল্প কিছু টাইগার সমর্থকের চিৎকারটাই তখন যেন খুব কানে বাজলো হাজার হাজার লংকানদের!

১ বল হাতে রেখে ম্যাচ জিতলো বাংলাদেশ। তাও আবার শেষ বলে ছয় হাঁকিয়ে। জেতালেন মাহমুদুল্লাহ! “বাংলাদেশকে টুর্নামেন্ট এ এনে এর মজাটাই নষ্ট করা হয়েছে” – এমন মন্তব্যের উত্তরটা টাইগাররা দিলো নিদাহাস ট্রফির আয়োজকদের টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় করেই!

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© All rights reserved © 2017 DakshinSunamganj24.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com